শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ২২ এপ্রিল, ২০১৯ ২৩:১৫

বোলিং করতে হবে বুদ্ধি খাটিয়ে

ইংল্যান্ড বিশ্বকাপ : ক্যাম্প শুরু টাইগারদের

বোলিং করতে হবে বুদ্ধি খাটিয়ে
অনুশীলনে বাংলাদেশ দলের বোলিংয়ে দুই ভরসা মুস্তাফিজুর রহমান ও রুবেল হোসেন। গতকাল মিরপুরে

টাইগারদের বিশ্বকাপ অনুশীলন ক্যাম্প শুরু হয়েছে গতকাল। প্রিমিয়ার লিগের খেলার কারণে প্রথম দিনে স্কোয়াডের সবাইকে পাওয়া যায়নি। সকালে ক্রিকেটাররা রিপোর্ট করে, যার যার মতো নিজ দলের অনুশীলনে যোগ দেন। তবে যাদের খেলা নেই তারা অনুশীলন করেছেন। সহঅধিনায়ক সাকিব আল হাসান ভারতে আইপিএল নিয়ে ব্যস্ত থাকায় ক্যাম্পে যোগ দিতে পারেননি। প্রথম দিনে অনুশীলন, পেসারদের ইনজুরি ও দলের নানা বিষয় নিয়ে মিডিয়ার সঙ্গে কথা বলেছেন টাইগারদের বোলিং উপদেষ্টা কোর্টনি ওয়ালশ

 

বিশ্বকাপ অনুশীলন ক্যাম্প শুরু হলো। প্রথম দিন কেমন দেখলেন?

ওয়ালশ : এটা খুবই ভালো যে বিশ্বকাপ অনুশীলন ক্যাম্প শুরু হয়েছে। যদিও আমরা জানি যে বাংলাদেশে এখন খেলা চলছে (প্রিমিয়ার লিগ) যে কারণে পুরো স্কোয়াডকে পাব না। যারা আপাতত খেলার বাইরে তাদের কয়েকজনকে পেয়েছিলাম। এটা খুবই ভালো দিক যে বিশ্বকাপের আগে প্রস্তুতি নেওয়ার জন্য বেশ কিছু সময় পাচ্ছি আমরা। মুশফিক এখনো ফিট নয়। বিশ্বকাপের আগে যাতে সবাই প্রস্তুত হতে পারেন সেদিকে খেয়াল রাখছি।

 

বিশ্বকাপে বোলারদের নিয়ে কি পরিকল্পনা করছেন?

ওয়ালশ : ইংল্যান্ডের উইকেট সাধারণত ফ্লাট থাকে। সে কারণে বোলিংয়ে বৈচিত্র্য আনতে হবে। আমাদের বোলাররা কি ধরনের এবং কিভাবে তারা দৃঢ়তার সঙ্গে বোলিং করতে পারেন তা নিয়ে পরিকল্পনা করছি। ইংল্যান্ডে সচরাচর হাই স্কোরিং ম্যাচ হয়। এমন উইকেটে বোলাররা কতটা কার্যকরভাবে বোলিং করতে পারে সেটাই আসল।

 

আপনি যখন ইংলিশ কন্ডিশনে বোলিং করেছেন তখন উইকেট কেমন ছিল?

ওয়ালশ : আমি যখন ইংল্যান্ডে বোলিং করেছি তখনকার চিত্র সম্পূর্ণ আলাদা ছিল। তখন উইকেটগুলো ছিল বোলারদের সহায়ক। বেশ পেস হতো। আর এখন উইকেট পুরোপুরি ব্যাটিং সহায়ক হয়ে গেছে। প্রতি ম্যাচেই অনেক রান হয়। আমাদের বোলারদেরও সেভাবেই প্রস্তুত করছি। বোলাররা কিভাবে ব্যাটসম্যানদের আটকে রাখবেন সেভাবে পরিকল্পনা করছি। উইকেটে বোলিং করতে হবে, স্লোয়ার, বাউন্সার, ইয়র্কারও দিতে হবে।

 

লম্বা সফরে মুস্তাফিজকে নিয়ে উদ্বিগ্ন কিনা?

ওয়ালশ : কঠিন করে কিছু ভাবছি না। এখন পর্যন্ত মুস্তাফিজ ভালোই আছে। আর মুস্তাফিজ যখন ফিট থাকে তখন যেকোন ম্যাচ জয়ে সে ‘এক্স-ফেক্টর’ হয়ে যায়। তার মানে এই নয় যে প্রতিটি ম্যাচেই সে ম্যাজিক দেখাবে, কিন্তু তার উপস্থিতি সবার আত্মবিশ্বাস বাড়িয়ে দেয়। এখন আমাদের উদ্বিগ্ন হওয়ার একটাই বিষয়, মুস্তাফিজকে ফিট রাখা। কারণ সে একটি ম্যাচ খেলেই ইনজুরিতে পড়েছিল। রুবেলেরও সামান্য সমস্যা আছে। চার পেসারের মধ্যে তিনজনই পুরোপুরি ফিট নয় (অন্যজন মাশরাফি)। আমরা জানি যে মাশরাফি একজন যোদ্ধা, সে জানে কিভাবে লড়াই করতে হয়। কিন্তু  সে এখন শতভাগ ফিট নয়। আমরা চেষ্টা করছি কিভাবে তাদেরকে ফিট করে তোলা যায়। তবে যারা পুরোপুরি ফিট নয়, আয়ারল্যান্ডে তাদের ওপর বেশি চাপ প্রয়োগ করতে চাই না। তবে আমি প্রধান কোচের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছি, যদি আয়ারল্যান্ডে কোনো ব্যাকআপ পেস বোলার রাখা যায় সেটা ভালো। তাহলে আমাদের মেইন পেস বোলারদের দ্রুত রিকোভারি করতে সহায়তা করবে।

 

ইংল্যান্ডে বোলিং কৌশল কেমন হবে?

ওয়ালশ : বোলিং করতে হবে বুদ্ধি খাটিয়ে। ব্যাটসম্যানকে আটকে রাখতে হলে বোলিংয়ে বৈচিত্র্য থাকতে হবে। উইকেট দেখেই সিদ্ধান্ত নিতে হবে, কেমন বোলিং করতে হবে! উইকেট দেখেই আপনার কৌশল ঠিক করতে হবে। উইকেট থেকে আপনি কতটা সুবিধা আদায় করে নিতে পারছেন সেটাই আসল।

 

তাসকিনের কি অবস্থা?

ওয়ালশ : আজকে (গতকাল) নাকি মাঠে এসেছিল। আমি তাকে দেখিনি। আমি তাকে এর আগে ম্যাচে খেলার সময় দেখেছি। কয়েক ওভার বোলিং করতেও দেখেছি। সে বেশ কিছু সময় ইনজুরিতে পড়েছিল। নিউজিল্যান্ড সফরে তার খেলা খুবই দরকার ছিল। ফিরতে হলে তাকে ম্যাচ খেলার জন্য ফিট থাকতে হবে। তবে আমি তার ইনজুরি নিয়ে দুশ্চিন্তা করছি না।  নিউজিল্যান্ড সফরেই খেলার কথা ছিল। ওকে ম্যাচের জন্য ফিট করাই হবে আমার কাজ। আসলে ম্যাচে ফিটনেস ফিরে পাওয়াটাই গুরুত্বপূর্ণ। খেলতে  খেলতেই সে এটা ফিরে পাবে। যত ম্যাচ সে খেলবে, ততই ওর ভালো। আয়ারল্যান্ডে ওকে পেলে তো ভালো হতো, এটিই হচ্ছে তাকে নিয়ে যথার্থ মন্তব্য। কিন্তু দল নির্বাচন হয়ে গেছে। তাকে চেষ্টা করে যেতে হবে, ক্রিকেট খেলতে হবে। বল করে ম্যাচে ফিটনেস ফিরে পেতে হবে। যেকোনো কিছুই হতে পারে। এখন সে বিশ্বকাপ দলে নেই, কেউ যদি চোটে পড়ে, তাকে ডাকা হতে পারে সবার আগে। তাকেও আমাদের তৈরি রাখতে হবে।

 

মুশফিকের বিষয়ে কোনো আলোচনা হয়েছে কি?

ওয়ালশ : মুশফিকের বিষয়ে কথা হয়েছে। সে খুবই পেশাদার একজন খেলোয়াড়। আমি তাকে দেখেছি এসব ছোটখাটো বিষয়ে কোনো সমস্যা হবে না।

 

সহঅধিনায়ক সাকিবের অনুপস্থিতিতে অনুশীলন সম্পর্কে...

ওয়ালশ : সে এখন ভারতে আইপিএলে খেলছে। আমি মনে করি এটা তার জন্য ভালো। সেখানে তার ম্যাচ প্রাকটিস হচ্ছে। যদিও এটা অপ্রত্যাশিত বিষয় ছিল যে সে বেশ কিছু ম্যাচ খেলতে পারেনি। তবে আমরা আশাবাদী, সামনের ম্যাচগুলোতে সে খেলতে পারবে। সে যদি সেখানে কয়েকটি ম্যাচ খেলতে পারে, সেটা খুবই ভালো হবে তার জন্য। সে এখন ম্যাচ খেলার জন্য প্রস্তুত আছে, এটাই বড় বিষয়। সে ইনজুরিতে ছিল, তার অনুশীলনও করেছে। আমি মনে করি, সে যদি আইপিএলে কয়েকটি ম্যাচ খেলার সুযোগ পায় তবে বিশ্বকাপের জন্য প্রস্তুতি হয়ে যাবে।

 

সাকিবের অনুপুস্থিতিতে বিশ্বকাপ ক্যাম্পে কোনো প্রভাব পড়বে কিনা?

ওয়ালশ : সবাই বোঝে, তাকে কি  করতে হবে। সাকিব যদি এখানে এসে অনুশীলন করার চেয়ে আইপিএলে কয়েকটি ম্যাচ খেলে এতে কোনো প্রভাব পড়বে বলে আমি মনে করি না। বরং আয়ারল্যান্ড যাওয়ার আগে যদি কয়েকটা ম্যাচ খেলতে পারে সেটাই বরং ভালো হবে।


আপনার মন্তব্য