Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper

শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ৫ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ৪ নভেম্বর, ২০১৯ ২৩:১৬

মহাসড়কের পাশে তিনটি ময়লার ভাগাড়

মো. নাসির উদ্দিন, টাঙ্গাইল

মহাসড়কের পাশে তিনটি ময়লার ভাগাড়

পৌরবাসীর সুযোগ-সুবিধা এবং স্বাস্থ্যের কথা চিন্তা করে বর্জ্য ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে পরিচ্ছন্ন শহর গড়ে তোলার সব কাজ করা উচিত।

শতবছরের পুরনো টাঙ্গাইল পৌরসভায় আজও গড়ে ওঠেনি বর্জ্য ব্যবস্থাপনার কোনো ভাগাড়। শহরে ঢুকতেই মহাসড়কের রয়েছে তিনটি ময়লার ভাগাড়। দুর্গন্ধ দিয়েই যেন স্বাগত জানানো হয় শহরবাসী ও শহরে আগত অতিথিদের।

পৌরসভা সূত্র জানা যায়, ১৮৮৭ সালের ১ জুলাই টাঙ্গাইল পৌরসভা প্রতিষ্ঠিত হয়। ১৩২ বছরের পুরনো এই পৌরসভায় আধুনিক বর্জ্য ব্যবস্থাপনা গড়ে তোলা তো দূরের কথা, আবর্জনা ফেলার নির্দিষ্ট ভাগাড় নির্মাণ হয়নি আজও। শহরের সব আবর্জনা ফেলা হচ্ছে শহরে প্রবেশের বিভিন্ন সড়কের পাশে।

বিগত ৭-৮ বছর ধরে শহরের আবর্জনা ফেলা হচ্ছে রাবনা এলাকার টাঙ্গাইল-ময়মনসিংহ সড়কের পাশে। আর দক্ষিণ অংশের ময়লা ফেলা হচ্ছে শহরের আরেক প্রবেশমুখ কাগমারি বেবিস্ট্যান্ড এলাকায়। এ ছাড়াও শহরের আশেকপুর এলাকায় ময়লা-আবর্জনা ফেলা হচ্ছে। টাঙ্গাইল নতুন বাস টার্মিনালের উত্তরে বৈল্লা সেতুর পর থেকে বিশাল এলাকাজুড়ে রাস্তার পাশে ময়লা-আবর্জনা ফেলা হচ্ছে। একই চিত্র দেখা যায় বেবিস্ট্যান্ড ও আশেকপুর এলাকায়।

বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতির (বেলা) টাঙ্গাইল অঞ্চলের গবেষণা কর্মকর্তা গৌতম চন্দ্র চন্দ জানান, রাস্তার পাশে খোলা জায়গায় এভাবে ময়লা-আবর্জনা ফেলা পরিবেশ সংরক্ষণ আইনবিরোধী কাজ। পৌরবাসীর সুযোগ-সুবিধা এবং স্বাস্থ্যের কথা চিন্তা করে বর্জ্য ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে পরিচ্ছন্ন শহর গড়ে তোলার সব কাজ করা উচিত।

টাঙ্গাইল পৌরসভার মেয়র জামিলুর রহমান মিরণ জানান, আধুনিক বর্জ্য ব্যবস্থাপনা গড়ে তোলার পরিকল্পনা রয়েছে। আবর্জনা ফেলার জন্য যে পরিমাণ জায়গা দরকার তা পৌরসভার নেই। জেলা প্রশাসনের কাছে জায়গা চাওয়া হয়েছে।

 


আপনার মন্তব্য