Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শুক্রবার, ২০ জানুয়ারি, ২০১৭

প্রকাশ : রবিবার, ২৬ জুন, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ২৫ জুন, ২০১৬ ২৩:০৪
পর্যবেক্ষণ
ফায়ার ফায়ার ক্রসফায়ার
রোবায়েত ফেরদৌস
ফায়ার ফায়ার ক্রসফায়ার

কবি বলেছেন, গোলাপকে যে নামেই ডাকো, গোলাপ গোলাপই— তার কাজ গন্ধ বিলানো। ‘ক্রসফায়ার বা ‘চিহ্নিত-বারুদ-বিনিময়’, ‘বন্দুকযুদ্ধ’, ‘এনকাউন্টার,’ ‘ক্লিন-হার্ট বা পরি (ছিন্ন)-হূদয়’— যে নামেই ডাকা হোক এর কাজ ‘এক্সট্রাজুডিশিয়াল কিলিং’ বা ‘বিনা বিচারে মানুষ হত্যা’। এর শুরু এক যুগ আগে, ২০০৪ সালে। তখনো এই ক্রসফায়ারের বৈধতা ও কার্যকারিতা নিয়ে প্রশ্ন ওঠে। গেল ১২ বছরে তথাকথিত ক্রসফায়ারে প্রায় ১ হাজার ৮০০ মানুষ খুন হয়েছে। সবশেষ ফাইজুল্লাহ ফাহিম ও মুকুল বন্দুকযুদ্ধে নিহত হন। প্রশ্ন হচ্ছে, প্রশাসন কি বিচার বিভাগের ওপর আস্থা রাখতে পারছে না? নয় তো ২৪ ঘণ্টার ব্যবধানে জঙ্গিসন্দেহে আটক দুজনকে কেন ‘বন্দুকযুদ্ধে’ হত্যা করা হলো? মাদারীপুরে কলেজশিক্ষক রিপন চক্রবর্তীকে কুপিয়ে পালানোর সময় জনতার হাতে ধরা পড়ে ফাহিম। শনিবার ১৮ জুন ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মারা যান তিনি। ফাহিম নিহত হওয়ার ২৪ ঘণ্টা না পেরোতেই ঢাকায় রবিবার পুরস্কার ঘোষিত ছয় জঙ্গির একজন মুকুল ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হন। পুলিশ বলছে, ‘লেখক অভিজিৎ রায় হত্যাকাণ্ডে এই মুকুলই নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। অভিজিৎ রায়কে যেখানে হত্যা করা হয়, সেখানকার ভিডিও ফুটেজে মুকুলের উপস্থিতি দেখা গেছে। এ ছাড়া অন্তত সাতটি হত্যা ও হামলার ঘটনায় জড়িত তিনি। মুকুল নিষিদ্ধ আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের সামরিক ও আইটি শাখার প্রধান ছিলেন। ’ তারা যদি জঙ্গি হয়ে থাকেন প্রচলিত আইনে তাদের বিচার করা সম্ভব। পুলিশ যেখানে সাম্প্রতিক সময়ে ঘটে যাওয়া একটি হত্যাকাণ্ডের তদন্তেরও সুরাহা করতে পারছে না সেখানে এত বড় ‘মওকা’ পেয়ে কেন তাদের ‘বন্দুকযুদ্ধ’-এর পথে ঠেলে দিল, ঠিক বোধগম্য নয়! ফাহিমকে জনতা ঘটনাস্থলে ধরে ফেলার পর সবাই ভেবেছিল এবার হয়তো হত্যাকারীদের নেটওয়ার্ক বের করা সহজ হবে। জঙ্গিসন্দেহে আটক দুই তরুণকে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ হত্যার ঘটনা তাই সবাইকে বিস্মিত করেছে। এভাবে না মেরে বা মৃত্যুর ঘটনা না সাজিয়ে তাদের স্বীকারোক্তি ও তথ্যের ভিত্তিতে সুষ্ঠু বিচার করতে পারলে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা পেত, বিচার বিভাগের প্রতি মানুষের আস্থা বাড়ত। এদের জিজ্ঞাসাবাদ করে জঙ্গিচক্রের মাস্টারমাইন্ড, অর্থদাতা, পরিকল্পনা-নকশা এসব গুরুত্বপূর্ণ তথ্য উদ্ঘাটন করা ছিল পুলিশের কাজ। কোনো কারণ ছাড়াই বলা যায় বন্দুকযুদ্ধে মারা যাওয়ার ঘটনা তাই প্রশ্ন ও অবিশ্বাস তৈরি করেছে। প্রশাসন কেন আইন নিজের হাতে তুলে নিল? এর জুতসই কোনো উত্তর আমরা খুঁজে পাচ্ছি না। গুপ্তহত্যা নিয়ে প্রশ্নের উত্তর কিন্তু গুপ্তই থেকে যাচ্ছে, প্রকাশ্যে আসছে না। এটা রাষ্ট্রকে নিরাপত্তার হুমকিতে ফেলে দিচ্ছে। কে এর জবাবদিহি করবে? জঙ্গিরা ভয়ঙ্কর, নিঃসন্দেহে; কেউ কেউ বলেন, যারা এভাবে চাপাতি দিয়ে নিরীহ মানুষ হত্যা করে তাদের আবার মানবাধিকার কী? তারা তো মানুষই না। মানুষ হলে তবে না মানবাধিকারের প্রশ্ন; অমানুষের জন্য আবার মানবাধিকার কী? পাঠক, ক্ষমা করবেন, আমি কোনো জঙ্গির পক্ষে সাফাই গাইছি না। জঙ্গিরা ধর্মের দোহাই দিয়ে একের পর এক যেভাবে মানুষ হত্যা করছে তা ন্যক্কারজনক, ঘৃণ্য, পৈশাচিক। আমরা চাই প্রতিটি হত্যার বিচার হোক। সুষ্ঠু তদন্ত হোক। প্রকৃত অপরাধী শাস্তি পাক। সাধারণ মানুষের আতঙ্ক কেটে যাক, জনমনে শান্তি ফিরে আসুক। কিন্তু সন্দেহভাজন একজন ব্যক্তিকে কোনো সাক্ষ্য-প্রমাণ ছাড়াই মেরে ফেলা কি বিধিসম্মত? কোথাও কি লেখা আছে ‘অমুক পরিস্থিতির সম্মুখীন হলে পুলিশ বা র‌্যাব বন্দুকযুদ্ধে লিপ্ত হইতে পারিবেন’। আক্রমণের শিকার হলে আত্মরক্ষার জন্য পুলিশ অবশ্যই গুলি ছুড়তে পারে। সেই পরিস্থিতি কি তৈরি হয়েছিল? এ বিষয়ে অবশ্যই পুলিশ প্রশাসন ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ব্যাখ্যা দেওয়া উচিত। কারণ একজন মানুষের হাতে হ্যান্ডকাফ লাগানো অবস্থায় পুলিশ তাকে নিয়ে বের হলো সহযোগীদের ধরার জন্য আর মাঝপথে পুলিশের ওপর আক্রমণ হলো, লোকটি পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করল এবং পুলিশ ও সন্ত্রাসীর গোলাগুলির মাঝে পড়ে মারা গেল। এই বন্দুকযুদ্ধের গল্পটা বাংলা সিনেমার গল্পের মতো ক্লিশে হয়ে যায়নি কি? একই গল্প চলছে বছরের পর বছর ধরে। বন্দুকযুদ্ধের কাহিনীগুলো অনেক আগেই বিশ্বাসযোগ্যতা হারিয়ে ফেলেছে; এসব হত্যাকাণ্ড মানবাধিকারের সুস্পষ্ট লঙ্ঘন। এ নিয়ে চলতি মাসে সন্দেহভাজন সাত জঙ্গিসহ ১৪ জন নিহত হয়েছেন কথিত বন্দুকযুদ্ধে (প্রথম আলো, ২০ জুন ২০১৬)। তালিকাটি সংক্ষিপ্ত নয়। মানবাধিকার সংগঠন আইন ও সালিশ কেন্দ্রের (আসক) হিসাব অনুযায়ী, বিএনপির নেতৃত্বাধীন তৎকালীন চারদলীয় জোট সরকারের শেষ তিন বছরে কথিত ক্রসফায়ারে ৭৪৬ জন সন্দেহভাজন অপরাধী নিহত হন। ২০০৭ ও ২০০৮ সালে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দুই বছরে ক্রসফায়ার কমে দাঁড়ায় ২৫৬-তে। আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে মহাজোট সরকার ২০০৯ সালে ক্ষমতায় আসার পর প্রথম চার বছরে একইভাবে ‘ক্রসফায়ারে’ ৩৩৮ জন সন্দেহভাজন নিহত হন। এ সময়গুলোতে বেড়ে যায় গুম ও গুপ্তহত্যার ঘটনাও। গুম ও গুপ্তহত্যার শিকার ব্যক্তিদের পরিবারের অভিযোগ, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পরিচয়ে ধরে নিয়ে যাওয়ার পর তাদের স্বজনরা নিখোঁজ হয়েছেন, পরে কারও কারও লাশ মিলেছে। অথচ ২০০৮ সালে আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহারে বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড বন্ধের কথা বলা হয়েছিল। লজ্জার ব্যাপার হলো, ‘ক্রসফায়ার’, ‘বন্দুকযুদ্ধ’ তো বন্ধ হয়ইনি বরং এর সঙ্গে যুক্ত হয়েছে ‘গুম-গুপ্তহত্যা’। আসকের হিসাব থেকে দেখা যাচ্ছে, ২০১৪ সালে ১২৮ ও ২০১৫ সালে ১৪৬ জন কথিত বন্দুকযুদ্ধ বা ক্রসফায়ারে নিহত হন। আর চলতি বছরের এ পর্যন্ত ৫৯ জন নিহত হয়েছেন (প্রাগুক্ত)। এসব ঘটনায় দেশে ও বাকি বিশ্বে সরকারের ইমেজ ভয়ঙ্করভাবে প্রশ্নবিদ্ধ হবে।

আসল কথা ‘আইনের শাসন’ ও ‘সুশাসনের’ অভাব, যা গণতন্ত্রের সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ নিদান ও অনুষঙ্গ। এর ঘাটতি হলে পদে পদে মানবাধিকার লঙ্ঘন হতে থাকে। জঙ্গিদের নৃশংস খুনখারাবি, পুলিশের গণগ্রেফতার ও বিচারবহির্ভূত হত্যা— পরিস্থিতিকে জ্যামিতিক হারে উদ্বেগজনক করে তুলেছে। যেভাবে বেআইনি পন্থায় আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার চেষ্টা চলছে, তা সংবিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক। কারণ সংবিধানের ৩১ থেকে ৩৫ ধারায় স্পষ্ট করে বলা আছে, একজন অভিযুক্ত ব্যক্তি যত বড় অপরাধী হোক না কেন, তাকে বিচারিক প্রক্রিয়ার মধ্যে নিতে হবে। তাই পুলিশ প্রশাসন বা অন্য কেউ চাইলেই এটা করতে পারে না। এর উপযুক্ত জবাব দেওয়ার সময় এখন এসেছে। এজন্য দায়ীদের জবাবদিহিতার আওতায় আনতে হবে। এই যে একটা পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে তাতে ষড়যন্ত্রকারীদের পক্ষে ঘোলা পানিতে মাছ শিকারের সুযোগ তৈরি হচ্ছে। এটা মানি, জঙ্গিবাদ-সন্ত্রাসবাদকে দেশ থেকে ঝেঁটিয়ে বিদায় করতে রাষ্ট্রকে অবশ্যই শক্তি প্রয়োগ করতে হবে— তবে তা করতে হবে রাষ্ট্রীয় আইন ও সংবিধানের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে।

লেখক : সহযোগী অধ্যাপক, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। robaet.ferdous@gmail.com

up-arrow