Bangladesh Pratidin

ঢাকা, রবিবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : শনিবার, ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২৩:৩৫
প্রতিকূলতার পরও বিদেশ যাচ্ছেন রেকর্ড নারীকর্মী
জিন্নাতুন নূর
প্রতিকূলতার পরও বিদেশ যাচ্ছেন রেকর্ড নারীকর্মী

সাতক্ষীরার স্বামী পরিত্যক্তা আঞ্জুমান আরা বেগম। দুই মেয়েকে নিয়ে অসচ্ছল পরিবারে একটু সচ্ছলতা ফিরিয়ে আনতে বিদেশ যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। জনশক্তি রপ্তানিকারকদের স্থানীয় প্রতিনিধির সহায়তায় সরকারিভাবে প্রশিক্ষণ নিয়ে গৃহশ্রমিক হিসেবে কুয়েত পাড়ি জমান। সেখানে কাজ করে নিজ রোজগারের অর্থ দেশে পাঠিয়ে নতুন ঘর তোলেন। তার পাঠানো অর্থে মেয়েরা শিক্ষা গ্রহণ করে। বড় মেয়ের বিয়েও দেন। আঞ্জুমান আরার মতো দেশের অনেক নারীই সংসারে সচ্ছলতা ফিরিয়ে আনতে দুই দশক ধরে বিদেশে পাড়ি দিচ্ছেন। এতে অনেকেরই ভাগ্য বদলাচ্ছে। তবে বিপরীত ঘটনাও কম নয়। বিদেশে মালিকের অমানুষিক নির্যাতন সইতে না পেরে

অনেক নারীই খালি হাতে দেশে ফিরে আসছেন। কিন্তু শত প্রতিকূলতার পরও নারীরা তাদের ভাগ্য বদলের চেষ্টায় বিদেশে যাচ্ছেন। তাদের সহযোগিতায় আগের চেয়ে আরও সচেতন ও আন্তরিক হয়েছে প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় এবং অন্যান্য প্রতিষ্ঠান। সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের তথ্যমতে, বিদেশে সম্প্রতি শ্রমিক প্রেরণের হারে ভাটা পড়লেও পুরুষদের তুলনায় নারীদের বিদেশ গমনের হার বেশি। গত ছয় বছরে নারীদের বিদেশ গমনের হার ছয় গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। ১৯৯১ সাল থেকে বিদেশে নারী প্রেরণ শুরু হলেও ২০০৩ সাল পর্যন্ত এমন শ্রমিকের সংখ্যা আড়াই হাজারের বেশি অতিক্রম করেনি। ২০০৪ সালে এসে এ সংখ্যা ১১ হাজার অতিক্রম করে। আর গত এক দশকে বিদেশে নারীশ্রমিকদের গমনের হার কয়েক গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। ২০১৪ সালে এ সংখ্যা ছিল ৭৬ হাজার ৭০০। ২০১৫ সালে তা দাঁড়ায় এক লাখ তিন হাজার ৭১৮ জনে। আর চলতি বছরের আগস্ট পর্যন্ত এ সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৮৩ হাজার ৭০৫ জন। নারীকর্মীদের মধ্যে বিদেশে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক অংশই গৃহকর্মী হিসেবে যাচ্ছেন। আর কিছু যাচ্ছেন গার্মেন্টকর্মী হিসেবে। জর্ডানে বর্তমানে প্রায় ১০ হাজার নারীকর্মী গার্মেন্ট খাতে কাজ করছেন। বিদেশে নারীশ্রমিকদের গমন বৃদ্ধির পেছনে কয়েকটি কারণ আছে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে কম খরচে বিদেশ গমন। এ ছাড়া নারীশ্রমিকদের থাকা-খাওয়ার খরচ ও চিকিৎসা ব্যয় মালিকরা বহন করে থাকেন। এ জন্য বিদেশে যেতে তারা বেশি উৎসাহী। তবে অভিবাসী উন্নয়ন প্রোগ্রাম (ওকাপ) পরিচালিত ‘এক দশকে বাংলাদেশের নারী অভিবাসন : অর্জন, চ্যালেঞ্জ, সম্ভাবনা’ শীর্ষক গবেষণায় বলা হয়, বিদেশে কাজ করতে গিয়ে নারীরা শারীরিক, যৌন ও মৌখিক নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন। তারা কাজের বিনিময়ে প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী কাজ পাচ্ছেন না। অনেকে মাসের পর মাস বিনা বেতনে কাজ করে যাচ্ছেন। নারীশ্রমিকরা সেখানে ভুগছেন স্বাস্থ্যজনিত নানা সমস্যায়।

মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা যায়, আগে বিদেশে যেসব নারী কাজ করতে যেতেন তাদের মোবাইলে কথা বলতে দেওয়া হতো না। কিন্তু এখন দেওয়া হচ্ছে। বিপদে পড়লে নারীরা কীভাবে নিজেদের রক্ষা করবেন তা তাদের শেখানো হচ্ছে। নারীদের নিজ দূতাবাসের নম্বর বাধ্যতামূলকভাবে মুখস্থ করতে বলা হয়েছে। এ ছাড়া যেসব দেশে পাঠানো হচ্ছে সেখানে তাদের সঙ্গে সমঝোতা স্বাক্ষরে নিরাপত্তার বিষয়টি নিশ্চিত করা হচ্ছে। প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী নুরুল ইসলাম জানান, প্রবাসে গিয়ে নারীরা অর্থনৈতিক সক্ষমতা অর্জনের পাশাপাশি বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনে অবদান রাখছেন। আর নারীকর্মীদের সংখ্যা আরও বৃদ্ধি করতে মধ্যপ্রাচ্যের বাজার ছাড়াও তাদের জন্য নতুন বাজার খোঁজা হচ্ছে। ব্যুরো অব ম্যানপাওয়ার, এমপ্লয়মেন্ট অ্যান্ড ট্রেনিংয়ের (বিএমইটি) পরিসংখ্যান অনুযায়ী, বাংলাদেশ থেকে নারীশ্রমিকরা বেশি যাচ্ছেন মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে। এর মধ্যে তারা যাচ্ছেন সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত, জর্ডান, ওমান, কাতার, লেবানন, মরিশাস, কুয়েত, মালয়েশিয়া, বাহরাইন, সিঙ্গাপুর, হংকংসহ অন্যান্য দেশে। ১৯৯১ সালে সৌদি আরবে যেখানে মাত্র ২৯ জন নারী গিয়েছিলেন, সেখানে চলতি বছর আগস্ট পর্যন্ত ৪৮ হাজার ৯৭ জন নারীকর্মী গেছেন। বর্তমানে দেশটিতে কাজের জন্য বাংলাদেশি নারীদের ব্যাপক চাহিদা থাকায় এ বিষয়ে বাংলাদেশের সঙ্গে সৌদি আরবের চুক্তিও স্বাক্ষরিত হয়। সেই চুক্তির আওতায় ২০১৫ সালেই সৌদি আরবে ২০ হাজার ৯৫২ জন নারীকর্মীকে পাঠানো হয়। এ ছাড়া গত বছর সংযুক্ত আরব আমিরাতে গেছেন ২৪ হাজার ৩০৭ জন। ওমানে ১৬ হাজার ৯৮০। জর্ডানে ২১ হাজার ৭৭৬ জন। এদিকে নারীকর্মীদের দক্ষ করে তুলতে সরকারিভাবে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হয়েছে। তাদের দৈনন্দিন কাজে ব্যবহারের জন্য গন্তব্যসহ বিভিন্ন দেশের ভাষা ও কাজ শেখানো হচ্ছে। এ ছাড়া বিপদে পড়লে করণীয় এবং আয় করা অর্থের সদ্ব্যবহারের বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে। তাদের বিনা খরচে বিদেশে যাওয়ার জন্য ব্যবস্থাও করা হচ্ছে। বর্তমানে দেশের ছয়টি বিভাগে নারীকর্মীদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা আছে। এ প্রশিক্ষণ কেন্দ্রগুলোতে এখন প্রতিবছর অর্ধলাখ নারী প্রশিক্ষণ নিচ্ছেন। এ ছাড়া বিদেশে যাওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় খরচ বহনে প্রবাসীকল্যাণ ব্যাংক সহজ শর্তে ঋণসুবিধা দিচ্ছে। জানা যায়, প্রশিক্ষণ শেষে ইতিমধ্যে ৬২ হাজার নারী গৃহশ্রমিক হিসেবে বিদেশ পাড়ি দিয়েছেন। প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মোহাম্মদ আজহারুল হক বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘সৌদি আরবে আমাদের বিপুলসংখ্যক নারীকর্মী কাজ করতে  গেছেন। এদের মধ্যে সর্বোচ্চ হয়তো ২০০ জন দেশে ফেরত এসেছেন। এর বাইরে অনেকেই সংস্কৃতি ও খাদ্য সমস্যার কারণে দেশে ফিরে আসছেন। তবে কেউ বিদেশে আমাদের দূতাবাসে অভিযোগ করলে তা যাচাই করে আমরা সেই নারীশ্রমিককে দেশে পাঠানোর ব্যবস্থা করি।’ জনশক্তি বিশ্লেষকরা জানান, বিদেশে পুরুষকর্মী পাঠানোর ক্ষেত্রে নানা ধরনের নিষেধাজ্ঞা থাকলেও নারীকর্মী পাঠানোর ক্ষেত্রে কোনো বাধা নেই। মধ্যপ্রাচ্যসহ বিভিন্ন দেশে নারীকর্মীর চাহিদা দিন দিন বাড়ছে। এ জন্য বিভিন্ন দেশ বাংলাদেশ থেকে নারীকর্মী নিতে সরকারি ও বেসরকারি পর্যায়ে চুক্তি করেছে। এ ছাড়া একজন পুরুষকর্মী তার মোট উপার্জনের যত টাকা দেশে পাঠান, তার চেয়ে একজন নারীশ্রমিক বেশি পাঠান। এ জন্য এসব নারী যাতে নিরাপত্তার সঙ্গে কাজ করতে পারেন সে বিষয়টি নিশ্চিত করতে হবে।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow