১০ অক্টোবর, ২০২১ ১৩:৫৭

কুমিল্লায় কোয়েল পাখি পালনে স্বাবলম্বী হচ্ছে তরুণরা

মহিউদ্দিন মোল্লা, কুমিল্লা

কুমিল্লায় কোয়েল পাখি পালনে স্বাবলম্বী হচ্ছে তরুণরা

কুমিল্লায় কোয়েল পাখি পালনে স্বাবলম্বী হচ্ছে তরুণরা। দিন দিন এই সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। জেলা প্রাণি সম্পদ অধিদপ্তরের মতে কোয়েল পাখি পালনে মনোযোগী হলে তরুণরা বেকারত্ব ঘুচাতে পারবে।

সূত্র মতে, অনেকে ক্ষুদ্র আকারে নিজেদের পরিবারের ডিম ও মাংসের চাহিদা মেটাতে কোয়েল পাখি পালন করছেন। বড় খামারি রয়েছেন কুমিল্লা সদর, সদর দক্ষিণ, লালমাই, বরুড়া, বুড়িচং ও চান্দিনাসহ বিভিন্ন উপজেলায়। জেলায় খামারির সংখ্যা পঞ্চাশের বেশি হবে বলে জানিয়েছেন খামারিরা। 
 
কুমিল্লার সদর দক্ষিণ উপজেলার কুন্দারঘোড়া গ্রাম। এই গ্রামে তরুণ আনোয়ার উল্লাহ তিন বছর ধরে কোয়েল পাখি পালন করছেন। ঘরসহ পুঁজি লেগেছে আড়াই লাখ টাকা। তার বর্তমানে ২০০০ পাখি কোয়েল রয়েছে। তিনি প্রতিদিন ১৫০০ ডিম সংগ্রহ করেন। স্থানীয় তরুণরা পরামর্শ চাইলেও তিনি সহযোগিতা করেন। কোয়েল পালনে তার পরিবারে স্বচ্ছলতা এসেছে। মনোযোগী হলে কোয়েল পালনে যে কেউ সফলতা পেতে পারে বলে জানান তিনি। 
 
জেলার বড় খামারি চান্দিনার রূপসী বাংলা এগ্রো ফার্মের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. তাজুল ইসলাম বলেন, প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ নিয়ে কাজ করলে সফলতা আসবে। এছাড়াও স্থানীয়ভাবে বাজার তৈরির কাজও করতে হবে।
 
জেলা প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা ডা. নজরুল ইসলাম বলেন, কোয়েল পাখির মাংস ও ডিম পুষ্টিকর খাবার। জেলায় কোয়েল পাখির মাংস ও ডিমের চাহিদা বাড়ছে। জেলা প্রাণি সম্পদ অধিদপ্তর তাদের পরামর্শ দিয়ে সহযোগিতা করছে। কোয়েল পাখি চাষে তরুণরা বেকারত্ব ঘুচাতে পারে।
 
বিডি প্রতিদিন / অন্তরা কবির  

সর্বশেষ খবর