Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : ২৭ মে, ২০১৯ ০৮:৩৮

সিলেটে পথশিশুদের জন্য স্বপ্নের দোকান!

সিলেট ব্যুরো

সিলেটে পথশিশুদের জন্য স্বপ্নের দোকান!

পথশিশুদের মাঝে ঈদের আনন্দ ছড়িয়ে দিতে সিলেটে খোলা হয়েছে স্বপ্নের দোকান। পথশিশুদের ঈদ আনন্দের স্বপ্নটি কিছুটা হলেও পূরণ করাই যার একমাত্র উদ্দেশ্য।

আর তাই শনিবার সকালে সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের সামনে পথশিশুদের জন্য স্বপ্নের দোকান খোলে বসেন মানবতাবাদী একদল শিক্ষার্থী। যেখান থেকে ১৪০ জন পথশিশুকে তাদের নিজেদের পছন্দমত নতুন কাপড় দেওয়া হয়।

২০১৭ সালে যাত্রা শুরু করা ব্যতিক্রমী এই স্বপ্নের দোকানের প্রতিষ্ঠাতা এ কে এম নাঈম অঙ্কুর। প্রতিষ্ঠার পর থেকেই দেশের বিভিন্ন স্কুল, ভার্সিটির শিক্ষার্থীসহ দেশ বিদেশের বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষের অনুদানে প্রতি বছর পথশিশুদের মাঝে ঈদবস্ত্র বিতরণ করা হয়।

স্বপ্ন দোকানের এক সদ্যস্য নাদেল আহমদ বলেন, মানবিক দিক বিবেচনা করে লোকেরা দান করেন স্বপ্ন দোকানে। দানকৃত অর্থ ও কাপড় স্বপ্নের দোকানের ফান্ডে জমা হয়। পরবর্তীতে দানকৃত পণ্য সামগ্রীর সাথে নতুন আরোও ক্রয় করে তা পথ শিশুদের মধ্যে বিতরণ করা হয়।

মূলত বাবা মায়ের সাথে ঈদের পোষাক কেনার যে আনন্দ বা স্বাদ রয়েছে, নগরীর পথশিশুদের মাঝে সেই আনন্দ আর স্বাদটুকু প্রদান করাই স্বপ্নের দোকানের কাজ। এখানে পথশিশুরা কোন রকম মূল্য ছাড়াই নিজেদের পছন্দ মত পোষাক নিতে পারছে।

স্বপ্নের দোকান থেকে ঈদের কাপড় নিতে আসা দক্ষিণ সুরমার লাউয়াই বস্তির পূর্ণিমা বেগম (৬) বলেন, বাবা নেই। টাকা ছাড়াই আমাদের ঈদের কাপড় দিচ্ছেন। নতুন জামা পেয়ে আমি খুবই খুশি।

এ সম্পর্কে সপ্নের দোকানের সদস্য রাহুল চন্দ্র দাস বলেন, অন্য শিশুরা যখন বাবা মায়ের সাথে শহরের বড় বড় শপিং মহলে যায়, পথশিশুরা তখন চেয়ে থাকে। আর অসহায় এসব পথশিশুদের মাঝে সেই আনন্দের পূর্ণতা দেওয়ার উদ্দেশ্যেই আমাদের স্বপ্নের দোকানের এই ক্ষুদ্র চেষ্টা। 

রাহুল বলেন, গত বছর আমরা ১২০ জনকে কাপড় দিয়েছিলাম। এবার চৌহাট্টা ও উপশহরের দুইটা জায়গায় আলদা আলাদা দোকান করা হয়েছে। মানবতার ডাকে সাড়া দিয়ে অনেকেই আমাদের বিভিন্নভাবে সাহায্য করছেন। অসহায় পথশিশুদের মুখে হাসি ফোটানোই আমাদের একমাত্র উদ্দেশ্য।

 

বিডি প্রতিদিন/ ওয়াসিফ


আপনার মন্তব্য