শিরোনাম
প্রকাশ : ১৩ জানুয়ারি, ২০২১ ১৪:২৫
প্রিন্ট করুন printer

শীতার্তদের পাশে দাঁড়াতে প্রাণ আপ এর কর্মসূচি

অনলাইন ডেস্ক

শীতার্তদের পাশে দাঁড়াতে প্রাণ আপ এর কর্মসূচি

শীতার্ত মানুষের পাশে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিতে ‘ছড়াই ভালোবাসার উষ্ণতা সিজন-৩’ কর্মসূচি শুরু করেছে দেশের জনপ্রিয় বেভারেজ ব্র্যান্ড ‘প্রাণ আপ’। বুধবার রাজধানীর বাড্ডায় প্রাণ গ্রুপের প্রধান কার্যালয়ে এই কর্মসূচির উদ্বোধন করা হয়। 

‘ছড়াই ভালোবাসার উষ্ণতা’ কর্মসূচি চলবে আগামী ৫ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। এর আওতায় উত্তরাঞ্চলের রাজশাহী, দিনাজপুর, পঞ্চগড় ও ঠাকুরগাঁও জেলার দুস্থ ও অসহায় মানুষদের মাঝে কম্বল বিতরণ করবে প্রাণ আপ। আগামী ২০ জানুয়ারি থেকে কম্বল বিতরণ শুরু হবে।   

এই উদ্যোগ সফল করতে এবার প্রাণ আপ এর পাশে থাকছে জনপ্রিয় অভিনেতা ফজলুর রহমান বাবু, জিয়াউল হক পলাশ এবং গলি বয় খ্যাত রানা মৃধা ও তাবিব মাহমুদ। 

অনুষ্ঠানে প্রাণ গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইলিয়াছ মৃধা জানান, “প্রাণ সবসময় ব্যবসা পরিচালনার পাশাপাশি অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে আসছে। আমরা করোনায় সম্মুখ সারির যোদ্ধাদের জন্য পিপিই, হাসপাতালগুলোতে করোনার নমুনা সংগ্রহের বুথ এবং সারাদেশে প্রায় ৭০ হাজার দারিদ্র্য পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করেছি এবং এই সহায়তা অব্যাহত রয়েছে। শীতে উত্তরাঞ্চলের জেলার মানুষ সবচেয়ে ভুক্তভোগী। আমরা প্রতিবার চেষ্টা করি দারিদ্র্য শীতার্ত মানুষদের সহায়তা করতে।  

প্রাণ বেভারেজ লিমিটেড এর নির্বাহী পরিচালক আনিসুর রহমান জানান, “আমাদের এই ক্যাম্পেইনের উদ্দেশ্য শীতার্ত মানুষদের সহায়তার পাশাপাশি ব্যবহৃত প্লাস্টিক নিয়ে জনসচেতনতা তৈরি। আমরা আগের দুটি সিজনে বলেছিলাম ব্যবহৃত প্লাস্টিক জমা দিলে বিপরীতে একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ অর্থ জমা করে সেখান থেকে কম্বল বিতরণ করা হবে। তবে এবার করোনার কারণে আমরা মানুষকে বাসায় থেকে আমাদের ক্যাম্পেইনে অংশ নেয়ার আহবান জানিয়েছি”।

তিনি বলেন, “প্রাণ আপ এর ফেসবুক পেজে ক্যাম্পেইন সংক্রান্ত একটি ভিডিও পোস্ট করা হয়েছে। অংশগ্রহনকারীদের ওই ভিডিওর কমেন্ট বক্সে প্রাণ আপ এর ছবিসহ যেকোন ছবি পোস্ট করতে পারবেন। প্রতি পোস্টের বিপরীতে একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ অর্থ বরাদ্দ হবে কম্বল কেনার জন্য। যত বেশি কমেন্ট পড়বে তত বেশি অর্থ প্রাণ আপ এর পক্ষ থেকে বরাদ্দ দেয়া হবে। তাই অংশগ্রহনকারীরা এই ক্যাম্পেইনে অংশ নিয়ে শীতার্তদের প্রতি সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিতে পারেন”। 

অভিনেতা ফজলুর রহমান বাবু বলেন, “দুস্থ ও শীতার্ত মানুষদের সহায়তায় প্রাণ আপ এর এই উদ্যোগ খুবই প্রশংসনীয়। এতো ভাল একটি উদ্যোগের সাথে আমাকে রাখায় প্রাণ আপ কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানাই।” 

প্রাণ বেভারেজ লিমিটেড এর জেনারেল ম্যানেজার (মার্কেটিং) আতিকুর রহমান এবং প্রাণ আপ এর সিনিয়র ব্র্যান্ড ম্যানেজার তন্ময় দাস এসময় উপস্থিত ছিলেন। 

বিডি প্রতিদিন/হিমেল


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ জানুয়ারি, ২০২১ ১৪:১৫
প্রিন্ট করুন printer

হোন্ডা আনলো নতুন দামে ‘নতুন লিভো’

অনলাইন ডেস্ক

হোন্ডা আনলো নতুন দামে ‘নতুন লিভো’

দেশের মোটর বাইকের বাজারে ১১০ সিসি মডেলের মধ্যে ‘সর্বাধুনিক সুবিধা’ নিয়ে লিভো সিরিজের নতুন বাইক বাজারজাতকরণ শুরু করেছে বাংলাদেশ হোন্ডা প্রাইভেট লিমিটেড। 

বাংলাদেশের গ্রাহকের চাহিদার প্রতি খেয়াল রেখে হোন্ডার আরএনডি বিভাগের পরামর্শ অনুযায়ী মুন্সিগঞ্জের সর্বাধুনিক কারখানায় প্রস্তুতকৃত লিভোর দুটি ভ্যারিয়েন্স-লিভো ড্রাম ১০৩,৯০০ টাকা এবং লিভো ডিস্ক পাওয়া যাবে ১০৮,৯০০ টাকায়।

অভিনব নকশা এবং উদ্ভাবনী সেবার মাধ্যমে গ্রাহকের আস্থা অর্জন করা হোন্ডা লিভো ২০১৭ সালের জুন মাসে বাংলাদেশের বাজারে আসার পরে মাত্র ৩৭ মাসের মধ্যেই ৫০ হাজার ইউনিট বিক্রির মাইলফলক অতিক্রম করে লিভো দেশব্যাপী ব্যাপক সারা পায়। 

এরই ধারাবাহিকতায় আজ নতুন রূপে, নতুন দামে বাংলাদেশ হোন্ডা উন্মোচন করলো লিভো। স্পোর্টি লুক এবং ডিজিটাল এনালগ মিটারের পাশাপাশি নতুন লিভোতে রয়েছে এনার্জিটিক ফ্রন্ট লুক এবং কার্ভড ফুয়েল ট্যাংক।

হোন্ডা ইকো টেকনোলজি বা এইচইটি সম্বলিত ১১০ সিসি সক্ষমতার ইঞ্জিন ব্যবহারে প্রতি লিটার জ্বালানি তেলে ৭৪ কিলোমিটার পর্যন্ত মাইলেজ যাওয়া যাবে। 

বাংলাদেশের রাস্তার অবস্থা অনুযায়ী হোন্ডা লিভোতে রয়েছে ১২৮৫ মিলিমিটার লম্বা হুইল বেইজ, ৫ স্টেপ এডজাস্টেবল রিয়ার সাস্পেন্সন, ক্লাস লিডিং ১৮০ মিমি উচ্চ গ্রাউন্ড ক্লিয়ারেন্স এবং একটি আপরাইট হ্যান্ডেল পজিশন যা চালক এবং সহযাত্রীর চলাচলকে আরামদায়ক করবে। 

লিভোতে রয়েছে ডিস্ক ব্রেক এবং এইচইটি টায়ার প্রযুক্তি যা ব্রেকিং পারফরমেন্সকে উন্নত করে এবং চলাচলকে নিরাপদ করে। পাশাপাশি, প্রতিটি যাত্রাকে সহজ করবে সিলড চেইন, এমএফ ব্যাটারি, টিউবলেস টায়ার এবং বায়ু শুদ্ধকরণ সুবিধা। সবকিছু নিয়ে ১১০ সিসি মডেলের বাইকের মধ্যে অর্ধলাখ কাস্টমারের কাছে ‘লিভো সেরা’। 

প্রাপ্যতা এবং মূল্য: লাল, নীল এবং গ্রে এই তিন রঙে জানুয়ারির মধ্যে দেশজুড়ে হোন্ডার সব পরিবেশক এবং ডিলার শো-রুমে পাওয়া যাচ্ছে লিভো।

বিক্রয় পরবর্তী ২ বছর অথবা ২০ হাজার কিলোমিটার (যেটি আগে হবে) পর্যন্ত ওয়ারেন্টি এবং চারটি সেবা বিনামূল্যে পাবেন গ্রাহক।

আরও জানা যাবে, bdhonda.com এ।

বিডি-প্রতিদিন/সালাহ উদ্দীন


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ জানুয়ারি, ২০২১ ০৩:১১
প্রিন্ট করুন printer

রূপালী ব্যাংক ও বিডিএসের মধ্যে চুক্তি

অনলাইন ডেস্ক

রূপালী ব্যাংক ও বিডিএসের মধ্যে চুক্তি

ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের মধ্যে বাংলাদেশ ব্যাংকের পুনঃঅর্থায়ন স্কিমের আওতায় ৩.৫০ শতাংশ সুদে এমএফআই প্রতিষ্ঠান বিডিএস বরিশাল ও রূপালী ব্যাংক লিমিটেডের মধ্যে একটি চুক্তি (এমওইউ) সই হয়েছে। সোমবার রূপালী ব্যাংক থেকে পাঠানো এক প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

এতে বলা হয়, বৃহস্পতিবার (২১ জানুয়ারি) বিডিএস ভবন বরিশালের সম্মেলন কক্ষে এই চুক্তি সই হয়। রূপালী ব্যাংকের মহাব্যবস্থাপক মো. মজিবর রহমান ও বিডিএস বরিশালের নির্বাহী পরিচালক সরদার হুমায়ুন কবির নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের পক্ষে চুক্তিতে সই করেন।

রূপালী ব্যাংক বরিশাল বিভাগীয় কার্যালয়ের মহা-ব্যবস্থাপক মো. ইকবাল হোসেন খাঁ এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত চুক্তি সই অনুষ্ঠানে বিডিএসের সভাপতি লীলা চক্রবর্তী, ব্যাংকের ডিজিএম জেবু সুলতানা ও রোকনুজ্জামানসহ উভয় প্রতিষ্ঠানের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

বিডি-প্রতিদিন/শফিক


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ জানুয়ারি, ২০২১ ০২:৪৪
প্রিন্ট করুন printer

রিবানা-র ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর নিযুক্ত হলেন পূর্ণিমা

অনলাইন ডেস্ক

রিবানা-র ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর নিযুক্ত হলেন পূর্ণিমা

জনপ্রিয় চিত্রনায়িকা ও মডেল দিলারা হানিফ পূর্ণিমা রিবানা-র ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর নিযুক্ত হলেন। রিবানা-র পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। গত ২১ জানুয়ারি রাজধানীর একটি পাঁচতারা হোটেলে দলটির ব্যান্ড অ্যাম্বাসেডর হিসেবে এই অভিনেত্রী নাম ঘোষণা করা হয়।

প্রাকৃতিক উপাদানে যারা ত্বকের যত্ন নিতে পছন্দ করেন, তাদের জন্য বলা যায় রিবানা যেন একটি বিশ্বাসের নাম। প্রাকৃতিক উপাদানের গুণাগুণ অক্ষত রেখে শতভাগ বিশুদ্ধ স্কিন ও হেয়ার কেয়ারসামগ্রী পৌঁছে দিচ্ছে রিবানা।

চিত্রনায়িকা ও মডেল দিলারা হানিফ পূর্ণিমা বলেন, আমি কয়েক মাস ধরে রিবানা এবং চুলের যত্নে পণ্যগুলো ব্যবহার করছি এবং খুব বেশি পছন্দ করছি এটি সত্যি আমাকে বিস্মিত করেছে যে আমাদের দেশীয় ব্র্যান্ড বিউটি ইন্ডাস্ট্রি এত এগিয়ে যাচ্ছে। তিনি সবাইকে রিবানা পণ্য ব্যবহার করার অনুরোধ জানান ।

২০১৫ সাল থেকে প্রাকৃতিক সব খাটি গুণাগুণ অক্ষুন্ন রেখে শতভাগ বিশুদ্ধ স্কিন কেয়ার কেয়ার সামগ্রী পৌঁছে দিচ্ছে রিবানা । তাদের সর্বাধিক চাহিদাযুক্ত পণ্যগুলোর মধ্যে রয়েছে স্যাফ্রন গোট মিল্ক সোপ, অ্যাক্টিভেটেড কার্বন এবং খাঁটি নারিকেল তেল ।

বিডি-প্রতিদিন/শফিক


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ জানুয়ারি, ২০২১ ০২:২৯
প্রিন্ট করুন printer

চালু হলো মাস্টারকার্ড-হোমসেন্ড রেমিটেন্স সেবা

অনলাইন ডেস্ক

চালু হলো মাস্টারকার্ড-হোমসেন্ড রেমিটেন্স সেবা

বিশ্বের ১৩৬টি দেশে কর্মরত বাংলাদেশিদের রেমিটেন্স সেবা দেবে মাস্টারকার্ড ও হোমসেন্ড। প্রবাসী বাংলাদেশিদের হোমসেন্ডের মাধ্যমে পাঠানো অর্থ জমা হবে ডাচবাংলা ব্যাংক ও বিকাশ গ্রাহকের অ্যাকাউন্টে। 

সোমবার বিকেলে আয়োজিত ভার্চ্যুয়াল অনুষ্ঠানে দেশের আর্থিক সেবা খাতে ক্রস-বর্ডার অর্থ স্থানান্তর প্রক্রিয়া জোরদার করার লক্ষ্যে বিকাশ ও ডাচ-বাংলা ব্যাংক লিমিটেডের (ডিবিবিএল) সহায়তায় রেমিটেন্স বা প্রবাসী আয় সংক্রান্ত সেবা প্রদানকারী প্ল্যাটফর্ম হোমসেন্ডের কার্যক্রম শুরু করার ঘোষণা দিয়েছে মাস্টারকার্ড।  

এর ফলে বিদেশে অবস্থানরত বাংলাদেশিরা ডিবিবিএলের মাধ্যমে চার কোটিরও বেশি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ও মোবাইল ফোনে আর্থিক সেবাদানকারী (এমএফএস) দেশের বৃহত্তম প্রতিষ্ঠান বিকাশের পাঁচ কোটি অ্যাকাউন্টে সরাসরি রেমিটেন্স বা প্রবাসী আয় পাঠাতে পারবেন। এ এমএফএস সেবায় বিকাশের ব্যাংকিং ও সেটেলমেন্ট কার্যক্রমের পার্টনার হচ্ছে ব্যাংক এশিয়া।  

মাস্টারকার্ড ও ওয়ামেজা এর একটি যৌথ উদ্যোগ হলো হোমসেন্ড। যেটি বিজনেস টু বিজনেস ক্রস বর্ডার ও ক্রস নেটওয়ার্কে সহজে লেনদেন করতে সক্ষম। ক্রস বর্ডার পেমেন্টের ক্ষেত্রে গোটা বিশ্বকে সংযুক্ত করার মাধ্যমে স্বল্প খরচে নিরাপদ ও সহজ উপায়ে অর্থ স্থানান্তরই এর লক্ষ্য।  

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, বাংলাদেশের অর্থনীতিতে রেমিটেন্স অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। হোমসেন্ডের কার্যক্রম শুরু হবার ফলে দেশের ডিজিটাল রেমিটেন্স সেবা বাড়বে, যা এখানকার অর্থনৈতিক কার্যক্রমকে গতিশীল করতে ভূমিকা রাখবে। এছাড়া চলমান করোনা মহামারির মধ্যে সশরীরে বাইরে না বের হয়ে ঘরে বসেই সহজ ও স্বচ্ছন্দ উপায়ে প্রাপক যাতে প্রবাসী স্বজনদের পাঠানো অর্থ দ্রুত ডিবিবিএল ও বিকাশ অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে সরাসরি গ্রহণ করতে পারেন, সেটি নিশ্চিত করাও এ সেবা কার্যক্রমের অন্যতম লক্ষ্য। হোমসেন্ড সেবা চালু করার ফলে দেশে টাকা পাঠাতে প্রবাসীদের আর অনানুষ্ঠানিক ও অনিরাপদ মাধ্যমের  ওপর নির্ভর করতে হবে না। এটি মধ্যস্বত্বভোগী ও অনানুষ্ঠানিক মাধ্যমের পরিবর্তে  সহজে ও স্বল্প ব্যয়ে রেমিটেন্স আনতে সাহায্য করবে। ফলে দেশে রেমিটেন্স পাঠানোর হার উল্লেখযোগ্যভাবে বাড়বে।    

হোমসেন্ডের চিফ এক্সিকিউটিভ অফিসার (সিইও) স্টিফেন ডোয়েল বলেন, মাস্টারকার্ড, ডিবিবিএল ও বিকাশের (ব্যাংক এশিয়ার মাধ্যমে) সঙ্গে পার্টনারশিপের ভিত্তিতে মোবাইল ফোনে অর্থ স্থানান্তরের এ আন্তর্জাতিক সেবা চালু করতে পেরে আমরা অত্যন্ত গর্বিত। বাংলাদেশ এখন এমন এক দেশ যেখানে মোবাইল ফোন ব্যবহার এবং ব্যাংক অ্যাকাউন্ট খোলা উচ্চ হারে প্রবৃদ্ধি হচ্ছে। আর আমরাও আজ যে সেবাটির উদ্বোধন করলাম সেটি আর্থিক অন্তর্ভুক্তি জোরদারে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।  

বিকাশের চিফ এক্সিকিউটিভ অফিসার (সিইও) কামাল কাদীর বলেন, সবচেয়ে স্বাচ্ছন্দ্যে স্বজনদের কাছে প্রিয়জনের পাঠানো রেমিটেন্স পৌঁছে দেওয়ার এ সেবার অংশীদার হতে পেরে বিকাশ অত্যন্ত আনন্দিত। আমরা বিশ্বাস করি, বাংলাদেশ ব্যাংকের নীতিমালা মেনে চালু হওয়া এ সেবা দেশের অর্থনীতিতে প্রবাসী আয় বাড়াতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। একইসঙ্গে সবচেয়ে সহজতম উপায়ে ঘরে বসেই বিদেশ থেকে পাঠানো টাকা গ্রহণ করবার সুযোগও সৃষ্টি করেছে এ সেবা।  

মাস্টারকার্ডের সাউথ এশিয়ার চিফ অপারেটিং অফিসার (সিওও) ভিকাস ভার্মা বলেন, বিদায়ী ২০২০ সালে অভিবাসী শ্রমিকরা সর্বাধিক পরিমাণ রেমিটেন্স বা প্রবাসী আয় পাঠিয়েছেন। বর্তমানে বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক অভিবাসী শ্রমিকের সংখ্যা ১০ মিলিয়ন বা এক কোটিরও বেশি, যারা পরিবারের জন্য অর্থ পাঠিয়ে দেশের অর্থনীতিতে বড় অবদান রাখেন। মাস্টারকার্ডের চালু করা হোমসেন্ড সেবা কার্যক্রম বাংলাদেশে রেমিটেন্স বা প্রবাসী আয়ের প্রবাহ জোরদার করার পাশাপাশি দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল পর্যন্ত অধিকসংখ্যক মানুষকে অন্তর্ভুক্তিমূলক আর্থিক ব্যবস্থায় সম্পৃক্ত করবে।  

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। এতে আরও বক্তব্য রাখেন- মাস্টারকার্ডের কান্ট্রি ম্যানেজার সৈয়দ মোহাম্মদ কামাল, ডাচ-বাংলা ব্যাংক লিমিটেডের (ডিবিবিএল) ম্যানেজিং ডিরেক্টর (এমডি) আবুল কাশেম মো. শিরিন, ব্যাংক এশিয়া লিমিটেডের প্রেসিডেন্ট ও ম্যানেজিং ডিরেক্টর মো. আরফান আলী প্রমুখ।

বিডি-প্রতিদিন/শফিক


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ জানুয়ারি, ২০২১ ০১:০৩
প্রিন্ট করুন printer

রিয়েলমির নতুন ফোন কিনলেই পাচ্ছেন ফ্রি ইন্টারনেট

অনলাইন ডেস্ক

রিয়েলমির নতুন ফোন কিনলেই পাচ্ছেন ফ্রি ইন্টারনেট

তরুণদের পছন্দের স্মার্টফোন ব্র্যান্ড রিয়েলমি নিয়ে এসেছে দারুণ এক অফার। নতুন রিয়েলমি স্মার্টফোন কিনলেই রবি-এয়ারটেল গ্রাহকরা পাবেন ফ্রি ইন্টারনেটের বান্ডেল অফার। প্রথম ক্যাম্পেইনের আওতায় রিয়েলমি ৭আই, সি১৭, সি১৫ কোয়ালকম সংস্করণ (৪/৬৪), সি১৫ কোয়ালকম সংস্করণ (৪/১২৮), রিয়েলমি নারজো ২০, সি১২, সি১১ মডেলের স্মার্টফোন কিনলেই পাওয়া যাবে ফ্রি ১০ জিবি ফোরজি ইন্টারনেট প্যাক এবং দ্বিতীয় ক্যাম্পেইনের আওতায় রিয়েলমি ৭প্রো কিনলেই গ্রাহকরা পাবেন ফ্রি ১২ জিবি ফোরজি ইন্টারনেট প্যাক।

প্রথম ক্যাম্পেইনের আওতায় প্রতিটি হ্যান্ডসেট কেনার সঙ্গে সঙ্গে রিয়েলমি ব্যবহারকারীরা প্রতি মাসে (দুই মাস) সাতদিন মেয়াদের ৫ জিবি করে ফোরজি ইন্টারনেট পাবেন। দ্বিতীয় ক্যাম্পেইন অফারের আওতায় রিয়েলমি ৭প্রো’র নতুন ক্রেতারা সাতদিনের মেয়াদ সহকারে তিন মাসের জন্য ৪ জিবি ফোরজি ইন্টারনেট (প্রতি মাসে) উপভোগ করতে পারবেন। এসব প্যাকেজ বিদ্যমান ও নতুন রবি-এয়ারটেল সংযোগের জন্য প্রযোজ্য এবং কেবল নতুন কেনা রিয়েলমি স্মার্টফোনের ক্ষেত্রে পাওয়া যাবে।

রিয়েলমি তরুণ প্রজন্মকে সঙ্গে নিয়ে একটি ‘স্মার্ট ইকোসিস্টেম’ তৈরির জন্য তাদের ‘স্মার্টফোন+এআইওটি’ কৌশলটির ওপর জোর দিচ্ছে। ‘ডেয়ার টু লিপ’ স্পিরিটে বিশ্বাসী রিয়েলমি ২০২১ সালে ফ্যান ও ব্যবহারকারীদের স্মার্ট ডিভাইস ব্যবহারের অভিজ্ঞতাকে আরও বেশি উপভোগ্য করতে কাটিং-এজ প্রযুক্তির বিভিন্ন ডিভাইস নিয়ে আসছে।

বিডি-প্রতিদিন/শফিক


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

এই বিভাগের আরও খবর