শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ২৪ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৩ এপ্রিল, ২০২১ ২৩:২২

উপেক্ষিত স্বাস্থ্যবিধি

কাঁঠালবাড়ী দৌলতদিয়া ঘাটে যাত্রী ও যানবাহনের ভিড়

মাদারীপুর ও রাজবাড়ী প্রতিনিধি

কাঁঠালবাড়ী দৌলতদিয়া ঘাটে যাত্রী ও যানবাহনের ভিড়
দোকান-শপিং মল খোলার ঘোষণায় ভিড় বাড়ে ঢাকামুখী যাত্রী ও গণপরিবহনের। গতকাল দৌলতদিয়া থেকে তোলা ছবি -বাংলাদেশ প্রতিদিন

দোকানপাট ও শপিং মল খোলার ঘোষণায় মাদারীপুরের কাঁঠালবাড়ী ও রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া ফেরিঘাটে গতকাল যাত্রী এবং যানবাহনের ভিড় বেড়েছে। অতিরিক্ত চাপে এই দুই ঘাটে ফেরিতে সামাজিক দূরত্ব না মেনে পারাপার হয়েছেন যাত্রীরা। অতিরিক্ত যাত্রীর চাপে উপেক্ষিত ছিল স্বাস্থ্যবিধি।

মাদারীপুর প্রতিনিধি জানান, বাংলাবাজার-শিমুলিয়া নৌরুটে রাজধানীমুখী যাত্রীদের উপচেপড়া ভিড় দেখা গেছে। ঘাট কর্তৃপক্ষ জানায়, বাংলাবাজার-শিমুলিয়া নৌরুটে সাধারণত ১৮টি ফেরি চলাচল করলেও লকডাউনে চলাচল করছে মাত্র পাঁচটি। সকাল থেকেই ব্যক্তিগত গাড়ির এবং যাত্রীদের চাপ বাড়তে থাকে ফেরিঘাটে। লঞ্চ ও স্পিডবোট বন্ধ থাকায় যাত্রীরা ফেরিতে করে পারাপার হচ্ছেন। বাংলাবাজার ফেরিঘাটের ব্যবস্থাপক সালাউদ্দিন জানান, সীমিত পরিসরে ফেরি দিয়ে জরুরি সেবা প্রদানকারী যানবাহন পারাপার করা হচ্ছে। এর মধ্যে অ্যাম্বুলেন্স, পণ্যবাহী ট্রাক, কুরিয়ার সার্ভিসের গাড়ি অগ্রাধিকার দেওয়া হচ্ছে।  রাজবাড়ী প্রতিনিধি জানান, দুপুর থেকে ঢাকামুখী যাত্রী ও যানবাহনের ভিড় লক্ষ্য করা যায়। দৌলতদিয়া ফেরিঘাট এলাকায় বিআইডব্লিউটিসির টিকিট কাউন্টারে ব্যক্তিগত গাড়ি ও অ্যাম্বুলেন্সচালকদের অনেক সময় অপেক্ষা করে টিকিট কিনতে হয়েছে। কাউন্টার থেকে ফেরিঘাটের র‌্যাম হয়ে সংযোগ সড়ক পর্যন্ত লাইনে থেকে ফেরিতে উঠেছে যানবাহন। দক্ষিণাঞ্চলের ২১ জেলার মানুষ এই নৌরুট ব্যবহার করেন। করোনাভাইরাসের সংক্রমণকালে তিনটি ফেরি চলাচলের সিদ্ধান্ত ভুল ছিল। এতে গাদাগাদি করে নৌ-রুট পার হতে হচ্ছে। ফরিদপুর অঞ্চলের হাইওয়ে পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, পুলিশ সাধ্যমতো চেষ্টা করছে সরকারি সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের জন্য। বিআইডব্লিউটিসির পাটুরিয়াঘাট উপ-মহাব্যবস্থাপক জিল্লুর রহমান বলেন, তিনটি ফেরি চলাচল করছে। এতে ঘাট এলাকায় ভিড় সৃষ্টি হয়েছে।

এই বিভাগের আরও খবর