Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ১৯:১৪
আপডেট : ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ১৯:২৫

বিআরটিএ’র সহকারী পরিচালকের বাসা থেকে ৩৩ লাখ টাকা উদ্ধারের ঘটনায় তোলপাড়

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি

বিআরটিএ’র সহকারী পরিচালকের বাসা থেকে ৩৩ লাখ টাকা উদ্ধারের ঘটনায় তোলপাড়
বিলাস চন্দ্র সরকার

ঝিনাইদহ বিআরটিএ’র সহকারী পরিচালক বিলাস চন্দ্র সরকারের বাসা থেকে ৩৩ লাখ টাকা উদ্ধারের ঘটনায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেসহ ঝিনাইদহের সবখানে সমালোচনার ঝড় বইছে। স্থানীয়রা বলছেন, ঝিনাইদহ বিআরটিএ ঘুষ বাণিজ্য ও দুর্নীতির যে আখড়া ছিল তা এর মধ্য দিয়ে প্রমাণিত হল।

ফেসবুকে ভুক্তভোগীরা ড্রাইভিং লাইসেন্স ও যানবাহনের রেজিস্ট্রেশন করতে কত টাকা কার হাতে দিয়েছেন তাও উল্লেখ করে নেতিবাচক সব মন্তব্য করছেন।

উল্লে­খ্য, ১০ সেপ্টম্বর ঝিনাইদহ বিআরটিএর সহকারী পরিচালক বিলাস সরকার হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন। গতকাল বুধবার সন্ধ্যার দিকে ঝিনাইদহ জেলা প্রশাসক সরোজ কুমার নাথ শহরের কলাবাগান পাড়ার ভাড়া বাড়িতে অভিযান চালিয়ে ৩৩ লাখ ২০ হাজার টাকা উদ্ধারের পর এই খবর ফেসবুক ও বিভিন্ন অনলাইন পত্রিকায় ছড়িয়ে ভাইরাল হয়।

জানা গেছে, দাম্পত্য কলহের কারণে স্ত্রী সন্তানরা বিলাস সরকারের সঙ্গে থাকতেন না। জেলা প্রশাসক সরোজ কুমার নাথ গণমাধ্যম কর্মীদের কাছে জানান, ১২ সেপ্টেম্বর ছেলে ও স্ত্রী ঝিনাইদহে আসেন। তাদের উপস্থিতিতে বাসার আলমারি খুলে ৩৩ লাখ ১৮ হাজার নগদ টাকা পাওয়া যায়। ছেলেরা দাবি করেন, তার বাবার ছয়টি ব্যাংকে ঋণ আছে। পরে ওই ব্যাংকগুলোতে যাচাই করে প্রশাসন নিশ্চিত হয় যে বিলাস সরকারের নামে কোনো ঋণ নেই।

এরপর জেলা প্রশাসক খুলনা বিভাগীয় কমিশনার ও ঢাকায় বিষয়টি জানান উল্লে­খ করে বলেন, সবাই ধারণা করছেন এগুলো ঘুষের টাকা। তাই এ টাকা আটকে ট্রেজারিতে জমা রাখা হয়েছে।

উদ্ধারকৃত এই টাকা যানবাহনের রেজিস্ট্রেশন ও ড্রাইভিং লাইসেন্স করার নামে ঘুষ হিসেবে গ্রহণ করা হয়েছিল বলে অনেকে মনে করছেন।

বিডি প্রতিদিন/ফারজানা


আপনার মন্তব্য