শিরোনাম
১৯ জানুয়ারি, ২০২২ ১৪:১৯

হিমেল হাওয়া আর শৈত্যপ্রবাহে বিপর্যস্ত দিনাজপুর

দিনাজপুর প্রতিনিধি

হিমেল হাওয়া আর শৈত্যপ্রবাহে বিপর্যস্ত দিনাজপুর

শীতের এ মৌসুমের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা দিনাজপুরে। মাঘের শুরুতে ঘন কুয়াশা আর হিমেল বাতাসে জেঁকে বসেছে শীত। বয়ে যাওয়া শৈত্যপ্রবাহে হাড় কাঁপানো শীতে বিপর্যস্ত মানুষ। বেশি দুর্ভোগে পড়েছে নিম্ন আয়ের মানুষ। বুধবার দিনাজপুরে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৯ দশমিক ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

শৈত্যপ্রবাহের কারণে কনকনে শীতে বুধবার ভোর থেকে উত্তরের হিমেল হাওয়া আর কুয়াশায় রাস্তায় যানবাহন হেডলাইট জ্বালিয়ে চলাচল করেছে। দুপুর ২টা পর্যন্ত সূর্যের দেখা মিলেনি। স্কুল-কলেজে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি কিছুটা কমেছে। বেকায়দায় পড়েছেন এ অঞ্চলের খেটে খাওয়া মানুষ। অনেক পাড়া-মহল্লায় এবং রাস্তার ধারে খড়কুটো-আবর্জনা দিয়ে আগুন জ্বালিয়ে শীত নিবারণ করছেন। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া ঘরের বাইরে খুব একটা বের হচ্ছেন না। আবার জরুরি প্রয়োজনে যারা ঘরের বাইরে যাচ্ছেন, শীতের তীব্রতায় বিপাকে পড়ছেন তারা। নিম্ন আয়ের মানুষ পেটের তাগিদে বের হলেও কোনও দিন কাজ হচ্ছে, আবার কোনও দিন হচ্ছে না। শীতের কারণে সন্ধ্যার পর সড়কে মানুষের উপস্থিতি কমে যাচ্ছে। যাত্রী না পাওয়ায় আয় রোজগার কমায় বিপাকে পড়েছেন ভ্যান-রিকশা চালকরা। কৃষক তার জমিতে বীজতলাসহ চাষাবাদেও সমস্যায় পড়েছেন। এদিকে, শীতের তীব্রতায় শিশু-বৃদ্ধসহ অনেক মানুষ শীত জনিত রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন। 

দিনাজপুর আঞ্চলিক আবহাওয়া অফিসের ইনচার্জ তোফাজ্জল হোসেন জানান, বুধবার সকাল ৬টায় দিনাজপুরে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ৯ দশমিক ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এ সময় বাতাসের আর্দ্রতা ৯৬ শতাংশ। বাতাসের গতিবেগ ঘণ্টায় ৪-৫ কিলোমিটার। তবে বেলা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে এটি উত্তর বা উত্তর-পশ্চিম দিক থেকে ঘণ্টায় ৮-১০ কিলোমিটার গতিতে ধাবিত হচ্ছে।

দিনাজপুর, পঞ্চগড়, ঠাকুরগাঁও, কুড়িগ্রামসহ বেশ কয়েকটি জেলার ওপর দিয়ে এই মৃদু শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। এই শীতের প্রকোপ আগামী কয়েক দিন অব্যাহত থাকবে। তবে, অতিরিক্ত কুয়াশা ও উত্তর-পশ্চিম অঞ্চল থেকে আসা হিমালয়ের শীতল বায়ু প্রবাহের কারণে শীত বেশি অনুভূত হচ্ছে। আগামী ২৩ জানুয়ারি এ এলাকায় আবারও বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানান তিনি।


বিডি প্রতিদিন/ ওয়াসিফ

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর