Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ২১ নভেম্বর, ২০১৬ ০০:০০ টা
আপলোড : ২১ নভেম্বর, ২০১৬ ০০:২৩

ধর্মতত্ত্ব

রোহিঙ্গাদের কান্নায় কাঁদছে প্রকৃতি

মাওলানা সেলিম হোসাইন আজাদী

রোহিঙ্গাদের কান্নায় কাঁদছে প্রকৃতি

পশ্চিম মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের উল্লেখযোগ্য জনগোষ্ঠীর নাম ‘রোহিঙ্গা’। এরা ইসলাম ধর্মের অনুসারী। রসুল (সা.)-এর বেঁচে থাকার সময় বিশিষ্ট সাহাবি আবু ওয়াক্কাস ইবনে ওয়াইব (রা.)-এর হাত ধরে ইসলামের আলো জ্বালে আজকের আরাকানে। ওমর ইবনে আবদুল আজিজ (রা.)-এর শাসনামলে আরাকানের শাসকদের সঙ্গে আরবীয় মুসলমানদের যোগাযোগের বিষয়টিও ইতিহাস থেকে প্রমাণিত। বর্তমান মিয়ানমারের রোহিং (আরাকানের পুরনো নাম) এলাকায় বসবাসকারীরা রোহিঙ্গা নামে পরিচিত। ‘রোহিঙ্গা’ শব্দের অর্থ হচ্ছে নৌকার মানুষ। যারা সমুদ্রজলে নৌকা ভাসিয়ে মৎস্য সম্পদ আহরণ করে জীবিকা অর্জন করেন। ইতিহাসবিদদের মতে, আরবি শব্দ ‘রহম’ (দয়া করা) থেকে রোহিঙ্গা শব্দের উদ্ভব। খ্রিস্টীয় অষ্টম শতাব্দীতে আরবের বাণিজ্য জাহাজ রামব্রি দ্বীপের তীরে এক সংঘর্ষে ভেঙে পড়ে। তখন তারা ‘রহম! রহম’ বলে আল্লাহর কাছে দয়া ভিক্ষা করে। আল্লাহতায়ালা তাদের বাঁচিয়ে দেন। সে থেকেই তারা রোহিঙ্গা নামে পরিচিতি লাভ করে। জাতিসংঘের তথ্যমতে, বর্তমান বিশ্বে সবচেয়ে নির্যাতিত জনগোষ্ঠীর নাম ‘রোহিঙ্গা’। বিবিসির এক খবরে বলা হয়েছে, গত ৯ অক্টোবর থেকে ১৬ অক্টোবর পর্যন্ত এক সপ্তাহে মিয়ানমারে ৬৯ জন রোহিঙ্গা মুসলিমকে হত্যা করেছে দেশটির সেনাবাহিনী। নিরীহ রোহিঙ্গাদের ওপর তারা হেলিকপ্টার থেকেও নির্বিচারে গুলি ছুড়েছে।  রাখাইন প্রদেশে সম্প্রতি শুরু হওয়া বিদ্রোহ দমনের অংশ হিসেবেই এই হামলা চালানো হয়েছে বলে সেনাবাহিনী স্বীকার করেছে। আর রোহিঙ্গা সূত্রগুলো বলছে, সেনাবাহিনী সেখানে অধিবাসীদের হত্যার পাশাপাশি ধর্ষণও করছে, গ্রামের পর গ্রাম জ্বালিয়ে দিয়েছে। বার্মা সরকারের নির্যাতনের কারণে দেশ ত্যাগে বাধ্য হয়ে ৫ লাখের বেশি রোহিঙ্গা বাংলাদেশ এবং প্রায় ৫ লাখ সৌদি আরবে চলে যাওয়ার একটি পরিসংখ্যান উইকিপিডিয়া তুলে ধরেছে। মূলত ধর্মীয় কারণেই তাদের ওপর নির্যাতন শুরু হয়েছে। সালাত আদায়ে বাধা দেওয়াসহ নির্বিচারে হত্যা ও নারীদের ধর্ষণের শিকার হতে হচ্ছে। তাদের সম্পত্তি জোর করে কেড়ে নেওয়া হচ্ছে এবং  শিক্ষা ও স্বাস্থ্যসেবার সুযোগ দেওয়া হচ্ছে না। তাদের সংখ্যা যাতে বাড়তে না পারে সে জন্য বিয়ে করার অনুমতিও নেই তাদের। বৌদ্ধ রাখাইনদের টার্গেট হলো নিরস্ত্র রোহিঙ্গা মুসলিম জনগোষ্ঠীকে নির্যাতনের মাধ্যমে নির্মূল করে দেওয়া। সেই লক্ষ্যে স্থানীয় সরকার, কেন্দ্রীয় সরকার ও সেনাবাহিনী পরিকল্পিতভাবে রোহিঙ্গাদের দেশ থেকে বের করে দিতেই হত্যাযজ্ঞ চালাচ্ছে। সম্প্রতি রোহিঙ্গাদের শহরটি যেন গণহত্যার কূপে পরিণত হয়েছে। বার্মিজ সরকারপন্থি পত্রিকা ‘দ্য নিউ লাইট অব মায়ানমার’ সূত্রে জানা গেছে ৮টি মসজিদসহ ২০০০ রোহিঙ্গার ঘরবাড়ি পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। (২৬ অক্টোবর)। ধারণা করা হচ্ছে, ইতিমধ্যে রোহিঙ্গাদের আনুমানিক ১০ হাজার বসতি পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। অনেক রোহিঙ্গা প্রাণভয়ে পালাচ্ছে সাগরে কিংবা জঙ্গলে, তবুও বাঁচতে পারছে না তারা।

মুসলিমদের নির্বিচারে হত্যা করা হবে আর প্রতিবেশী মুসলিমরা শুধু তাকিয়ে দেখবে! এ হতে পারে না। মুসলিম ক্ষমতাধর রাষ্ট্রপ্রধানরা চুপ না থেকে নির্যাতিত মুসলিমদের পাশে কি দাঁড়াতে পারে না। বিশ্বের শক্তিধর রাষ্ট্রগুলোর পক্ষ থেকে যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করলে নির্যাতন থেকে তাদের মুক্তি পাওয়া সম্ভব। তারা যাতে নাগরিকত্ব ফিরে পায় সেই লক্ষ্যে সার্বিক ব্যবস্থা নিতে মিয়ানমার সরকারের ওপর মুসলমানদের কার্যকর চাপ সৃষ্টি করা জরুরি হয়ে পড়েছে। রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর নির্যাতন ও হামলার ঘটনা খুব বেশি প্রকাশিত হচ্ছে না। অবস্থাটা এমন যে, মুসলিমদের হত্যার বেলায় মিডিয়া প্রচারবিমুখ। অথচ মুসলিম সম্প্রদায় ছাড়া অন্য কোনো সম্প্রদায়ের ওপর যখন কোনো হামলা হয় তখন সে বিষয়টি খুব গুরুত্বের সঙ্গে প্রচার করা হয়। ‘পৃথিবীর প্রতিটি মুসলমান একটি শরীরের মতো। শরীরের এক স্থানে যখন আঘাত লাগে তখন অন্য স্থানেও ব্যথা অনুভব হয়। তেমনি বিশ্বের এক প্রান্তে কোনো মুসলমান বিপদগ্রস্ত হলে অন্য প্রান্তে তার ভাইয়েরও পেরেশান হয়ে পড়ার কথা।’ রসুল (সা.)-এর পবিত্র বাণীটি জানে না এমন মুসলমানের সংখ্যা নেই বললেই চলে। ইসলাম সম্পর্কে জানাশোনা আছে- এমন প্রত্যেক ব্যক্তিই এ হাদিসটি শুনে থাকবেন। মসজিদের মিম্বরে, ওয়াজের মাঠে আর হাদিসের দরসে এটি একটি পরিচিত হাদিস। প্রায় সব মাওলানাই এ হাদিসটির উদ্ধৃতি দিয়ে থাকেন। আফসোস! আমরা হাদিস চর্চা করছি মুখে মুখে। কিন্তু আত্মায় নবীজীর বাণীর মর্ম ধারণ করতে পারিনি। যেমন আমরা কোরআন পড়ছি ঠোঁটে ঠোঁটে। অন্তরে কোরআন গেঁথে নিতে পারিনি। আমাদের অন্তরে যদি কোরআন থাকত আর আত্মায় যদি হাদিসের আলো থাকত তবে নির্যাতিত রোহিঙ্গাদের আর্তনাদে কান্নায় ভারী হওয়া আকাশে আমাদের হৃদয়ের কান্নাও জমা হতো। 

প্রতিবেশীর কষ্টকে নিজের কষ্ট মনে করার শিক্ষা দিয়েছে ইসলাম। অথচ আজকের মুসলমান রোহিঙ্গা মুসলিম হত্যার বিষয়ে নিশ্চুপ। মুসলমানদের তো এ বিষয়ে সবচেয়ে বেশি কাঁদার কথা ছিল। কোথায়? কাউকে তো দেখলাম না একটা বিবৃতি পর্যন্ত জানাতে। কোনো দরবার থেকে তো এ বিষয়ে কিছু বলা হচ্ছে না। গত জুমায় এ বিষয়ে খুতবা দিয়েছে- কজন ইমাম? তাহলে কি আমরা ন্যূনতম দায়িত্ববোধও হারিয়ে ফেলেছি? রোহিঙ্গাদের জন্য একটি শব্দ, এক ফোঁটা অশ্রু আর একটু প্রতিবাদও কী করতে পারি না আমরা? হে আল্লাহ একদিন যারা ‘রহম! রহম’ বলে আপনার দয়া পেয়েছিল, আজ তারা সবচেয়ে বেশি নির্যাতনের স্বীকার। হে রহমান দয়াময় আল্লাহ!

রোহিঙ্গা মুসলমানদের রক্ষা করুন। তারা তো আপনারই বান্দা। আপনি ছাড়া তাদের সব দরজা আজ বন্ধ। ভাইয়ের বিপদকে নিজেদের বিপদ ভাবতে না পাড়ার অপরাধে আমাদের ওপর নতুন কোনো আজাব দিয়েন না আল্লাহ। আমাদেরও ক্ষমা করুন।

লেখক : বিশিষ্ট মুফাসিসরে কোরআন ও গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব

www.selimazadi.com


আপনার মন্তব্য