Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ২১ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ২০ মার্চ, ২০১৯ ২২:২৬

মসজিদে হামলা

তসলিমা নাসরিন

মসজিদে হামলা

গত শুক্রবার নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের আল নূর ও লিনউড মসজিদে ব্রেন্টন ট্র্যারান্ট নামে সেনার পোশাক পরা এক মুসলিম-বিদ্বেষী, অভিবাসী-বিরোধী, চরম দক্ষিণপন্থি শ্বেতাঙ্গ সন্ত্রাসী নির্বিচারে গুলি চালিয়ে ৫০ জন মানুষকে হত্যা করেছে। যে দেশে সারা বছরে খুন হয় ৩৫ জন, সে দেশে কয়েক মিনিটের মধ্যে ৫০ জন খুন! মানুষ তো হতবুদ্ধি হবেই। পৃথিবীতে সবচেয়ে শান্তির দেশ, আমরা জানি আইসল্যান্ড, দ্বিতীয় শান্তির দেশ নিউজিল্যান্ড। নিউজিল্যান্ডে অপরাধের সংখ্যা অত্যন্ত কম, তাই তো একসঙ্গে এত খুন নিউজিল্যান্ডের জন্য সম্পূর্ণই নতুন অভিজ্ঞতা।

নিউজিল্যান্ডের মোট জনসংখ্যা ৫০ লাখ, এর এক শতাংশ মুসলমান। এই এক শতাংশের মধ্যে চার ভাগের তিন ভাগই অন্য দেশ থেকে যাওয়া, অর্থাৎ জন্মসূত্রে নিউজিল্যান্ডের নাগরিক নন। হামলার পর তাই নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা আরডেন বলেন, ‘এই হামলায় নিহতরা শরণার্থী হতে পারেন, উদ্বাস্তু হতে পারেন, কিন্তু তারা নিউজিল্যান্ডকে তাদের নিজের দেশ, বা নিজের মাতৃভূমি বলেই মনে করতেন। এই হামলায় সেই মর্যাদা, সেই জাত্যাভিমানে বিন্দুমাত্রও চিড় ধরবে না।’ নাগরিকদের মৃত্যু আর শরণার্থীদের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রী কোনও পার্থক্য করেননি।

নিউজিল্যান্ডে ওই ভয়াবহ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটার পর মসজিদে নামাজের সময় মুসলমানদের এখন খ্রিস্টানরা পাহারা দিচ্ছেন। শুধু নিউজিল্যান্ডেই নয়, আরও অনেক দেশের মসজিদে অমুসলিমরা পাহারা দিচ্ছেন মুসলমানদের। মসজিদের বাইরে লাইন ধরে দাঁড়িয়ে থেকে মুসলমানদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করেন। সমমর্মিতা একেই বলে।

যতবারই ভাবি, মুসলমানদের ঘৃণা করার, ভয় পাওয়ার লোক বাড়ছে পৃথিবীতে। এই ভাবনাটা মলিন হয়ে যায় যখন নিউজিল্যান্ডের মসজিদে হামলার ঘটনায় অমুসলিমদের শোক প্রকাশ দেখি, মুসলমানদের সমর্থনে, সহযোগিতায় ঝাঁপিয়ে পড়তে দেখি সেই মানুষদের, যারা মুসলমান নয়।

মুসলমানরা তো মুসলমানদের জন্য ঝাঁপিয়ে পড়ছেনই, সারা বিশ্বের মুসলমানই। মসজিদের ভিতরই তো ঘটেছে মুসলমানরা যখন মুসলমানদের বাঁচিয়েছিলেন। আল নূর মসজিদে ৪১ জনকে খুন করে লিনউড মসজিদে যখন খুন করতে এসেছিল বন্দুকধারী শ্বেতাঙ্গ জঙ্গি ব্রেন্টন, তার পথ রোধ করে দাঁড়িয়েছিলেন আফগান শরণার্থী আবদুল আজিজ। আবদুল আজিজই মসজিদের বাইরে ব্রেন্টনকে ব্যস্ত রেখেছিলেন, ব্রেন্টনেরই ফেলে রাখা একটি বন্দুক দিয়ে শেষ অবধি ধাওয়া করেছিলেন ব্রেন্টনকে, ব্রেন্টনকে পালাতে হয়েছিল। আবদুল আজিজ জীবনের ঝুঁঁকি নিয়েই ব্রেন্টনের হাত থেকে মসজিদের ভিতরের লোকদের যতটা সম্ভব বাঁচাতে চেয়েছিলেন, ভিতরে তার চার পুত্রও ছিল। পাকিস্তানি নঈম রশিদ আল নূর মসজিদে ব্রেন্টনকে নিরস্ত করতে জাপটে ধরেছিলেন যতক্ষণ পর্যন্ত ব্রেন্টন বন্দুক না নামাচ্ছে। নঈম রশিদের ছেলে তালহাও ছিল সেই মসজিদে। নঈম ওভাবে জাপটে ধরেছিলেন বলে ব্রেন্টন গুলি কিছু কম করতে পেরেছিল, সে কারণে মসজিদের কিছু লোক বেঁচে গেছে। লিনউড মসজিদে মারা গেছে ৭ জন। আবদুল আজিজ না থাকলে মৃতের সংখ্যাটা আরও বেশি হতো। আবদুল আজিজ প্রাণে বেঁচে গেছেন, কিন্তু আরেকজন যিনিও জীবনের ঝুঁঁকি নিয়ে হত্যাযজ্ঞ বন্ধ করতে চেয়েছিলেন, সেই নঈম রশিদ বাঁচেননি। তার পুত্র তালহারও মৃত্যু হয় জঙ্গির হাতে।

সারা বিশ্বের মুসলমানই মুসলমানদের পাশে দাঁড়িয়েছেন। তাদের কেউ কেউ এমনও দাবি করেছেন, মুসলমানরা যেন এক জোট হয়ে অমুসলমানদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেন। কিন্তু যুদ্ধ কি সত্যিই জরুরি? মুসলমানদের শত্রু কি অমুসলমানরা? শত্রু হলে দেশে দেশে ইহুদি, খ্রিস্টান, হিন্দু, বৌদ্ধ, শিখ, জৈন, নাস্তিক কেউই নিউজিল্যান্ডে মসজিদ হামলায় নিহত মুসলমানের জন্য সমবেদনা প্রকাশ করতো না, মুসলমানদের পক্ষে কেউ মানববন্ধন করতো না, কিছু মুসলমান-বিদ্বেষী আছে, যারা কোথাও মুসলমান মরলে খুশির উৎসব করে। এসব বিদ্বেষি সব দেশেই, সব সম্প্রদায়ের মধ্যেই কিছু কিছু আছে। ওরা গোটা সম্প্রদায়কে প্রতিনিধিত্ব করে না।

এর মধ্যে গোটা ঘটনার জন্য মুসলিম অভিবাসী ও শরণার্থীদেরই দায়ী করেন অস্ট্রেলিয়ার কুইন্সল্যান্ডের সিনেটর ফ্রেজার অ্যানিং। যখন তিনি মুসলমানদের সমালোচনা করছিলেন তখন তার মাথায় কাঁচা ডিম মারে উইল কনোলি নামের এক কিশোর। উইল কনোলি ইতিমধ্যে বিখ্যাত হয়ে উঠেছে। সিনেটরকে ডিম মারার কারণে আইনি ঝামেলা পোহাতে হতে পারে বলে তার জন্য ফান্ড জোগাড় করেছে তার পক্ষের লোকেরা। ‘গো ফান্ড মি’ ওয়েবসাইটে ‘মানি ফর এগবয়’ নামের একটি দান তহবিল গড়ে তোলা হয়। একদিনেই তাতে ২৮ লাখ টাকা জমা পড়ে। প্রায় তিন হাজার মানুষ উইলের জন্য মুক্তহস্তে দান করেছেন। ৩০ হাজার টাকার বেশিও জমা দিয়েছেন কেউ কেউ। এত টাকা নিতে রাজি নয় উইল। আইনি খরচ বাদ দিয়ে পুরো টাকাটাই ক্রাইস্টচার্চ হামলায় নিহতদের পরিবারের হাতে তুলে দেবে সে। উইল কনোলি কিন্তু মুসলমান নয়, সে খ্রিস্টান। টাকা দিয়ে যারা সাহায্য করেছেন, তারাও অমুসলমান।

মুসলমানদের ওপর সন্ত্রাসী হামলার ভিডিও সরাসরি সম্প্রচারের পর থেকে এটি রীতিমতো ভাইরাল হয়ে ওঠে। যদিও ফেসবুক, ইউটিউব ও টুইটার কর্তৃপক্ষ ভিডিওটি সরিয়ে ফেলতে চেষ্টা করেন, তারপরও কেন দ্রুত সরানো হয়নি এই অভিযোগ করে ফেসবুক ও গুগল থেকে বিজ্ঞাপন প্রত্যাহার করে নেন নিউজিল্যান্ডের এএসবি ব্যাংক, লোটো এনজে, বার্গার কিং, স্পার্কসহ কয়েকটি কোম্পানি। এই কোম্পানিগুলো কিন্তু অমুসলমানদের। তারা চাননি মুসলিম-বিদ্বেষ ছড়িয়ে পড়ুক চারদিকে, কারণ কেউ কেউ এমন আছে, মুসলমানদের কী পদ্ধতিতে খুন করা যায়, তা ভিডিও দেখে দেখে শিখে নিতে পারে।

খুব বেশিদিন আগে নয়, নিউইয়র্কের মসজিদ থেকে বের হওয়া এক ইমামকে খুন করেছিল এক ল্যাটিনো যুবক। পাগড়ি পরা শিখদের মুসলমান ভেবে খুন করেছে মুসলিম-বিদ্বেষী সন্ত্রাসী। সত্যি কথা বলতে কী, মুসলমানদের ওপর মানুষের অনেক রাগ। তাদের বক্তব্য, মুসলিমরা বিশ্বজুড়ে ভয়ঙ্কর ভয়ঙ্কর সন্ত্রাসী কাণ্ড ঘটায়। আইসিসদের কারণে শত শত মানুষের মৃত্যু ঘটেছে, শত শত মেয়েকে ধর্ষিতা হতে হয়েছে। সে কারণে কিছু মুসলিম-বিদ্বেষী লোক সুযোগ পেলে মুসলিমদের অপমান, নির্যাতন করে। মসজিদে সন্ত্রাসী আক্রমণ মুসলিমদের প্রতি সেই ঘৃণারই বহিঃপ্রকাশ। মুসলিম-বিদ্বেষীরা ভেবে নিয়েছে সব মুসলিমই সন্ত্রাসী, সুতরাং একটি মুসলিমকে হত্যা করা মানে একটি সন্ত্রাসীকে হত্যা করা। ঘৃণা এদের মস্তিষ্ককে এমনভাবে দখল করে আছে যে সামান্য এইটুকু ভাবনা ওতে ঠাঁই পায় না যে অধিকাংশ মুসলমানই সন্ত্রাসী নয়। জগতের কত সহস্র নিরীহ নিরপরাধ মুসলিমকে শাস্তি পেতে হয় অল্পসংখ্যক মুসলিমের সন্ত্রাসী কার্যকলাপের জন্য!

মানবতা ভূলুণ্ঠিত হয়েছে বলে মুসলিমরা একজোট হয়ে হাহাকার করছে। ঠিক এভাবেই কি তারা হাহাকার করে যখন মুসলিম সন্ত্রাসীদের হাতে অমুসলিমরা বা ইসলামে অবিশ্বাসীরা মরে? তাহলে কি এটাই ঠিক যে মুসলিমরা মারা গেলে তারা যতটা দুঃখ পায়, অমুসলিমরা মারা গেলে ততটা পায় না? মুসলিম-বিদ্বেষীদের দেখেছি, মুসলিম মরলে ওরা দুঃখ তো পায়ই না, বরং খুশি হয়। এ অনেকটা আবার তেমনই হয়ে গেল না তো!

শুধু আমার পরিবারের বা আমার সম্প্রদায়ের লোক মরলে আমি কাঁদবো, অন্য কেউ মরলে আমার কিছু যায় আসে না, এ কোনও ভালো মানুষের কথা নয়।

মানুষের শ্রদ্ধা ভালোবাসা দীর্ঘকাল পেতে হলে মুসলিমদের শুধু ‘সন্ত্রাসী নই’Ñ এই ট্যাগই যথেষ্ট নয়, মুসলিমদের প্রতি যেমন, অমুসলিমদের প্রতিও তাদের সহানুভূতি থাকতে হবে।

মুসলিমরা অমুসলিমদের দেশে যতটা স্বাধীনতা, সহযোগিতা, সম্মান পায়, ততটা কোনও মুসলিম দেশে পায় না। তাই যত ধর্মান্ধই হোক, তারা অমুসলিমদের দেশে বাস করার জন্য মরিয়া হয়ে ওঠে। মুসলিম দেশগুলোর কি উচিত নয় গরিব মুসলমানদের ঘৃণা না করা, তাদের নির্যাতন না করা?

সারা পৃথিবীর অমুসলিম লোক যেভাবে নিউজিল্যান্ডের নিরীহ মুসলিমের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করছে, যেভাবে সমব্যথী হচ্ছে, মুসলিমদেরও এ থেকে শেখা উচিত। অমুসলিমদের নৃশংসভাবে হত্যা করা হলে মুসলিমদেরও এভাবে শোক প্রকাশ করা উচিত, এভাবে সমব্যথী হওয়া উচিত।

যারা মুসলমানদের সন্ত্রাসী হওয়ার পেছনে আমেরিকা আর ইসরায়েলের কার্যকলাপকে দোষ দেয়, তারা কি এখন নিউজিল্যান্ডের সন্ত্রাসী লোকটির মসজিদে ঢুকে মুসলানদের হত্যা করার পেছনে আইসিস, আল-কায়দা বা বোকো হারামের কার্যকলাপকে দোষ দিচ্ছে? যদি না দেয় তাহলে নিশ্চয়ই কোথাও কোনও গণ্ডগোল আছে।

মুসলিমদের শুধু শিশু হলে চলবে না, এবার সময় হয়েছে প্রাপ্তবয়স্কের মতো আচরণ করার, দায়িত্ববান হওয়ার। ‘আমার ধর্ম নিয়ে কথা বলা চলবে না, এমনকি আমার ধর্মগ্রন্থ নিয়েও কথা বলা চলবে না, আমার বিশ্বাস নিয়ে কথা বলা চলবে না, আমার শরিয়া আইন নিয়ে কথা বলা চলবে না, আমার হিজাব বোরকা নিয়ে কথা বলা চলবে না, আমার হালাল খাবারের বাণিজ্য নিয়ে কথা বলা চলবে না, আমার পশু জবাই নিয়ে কথা বলা চলবে না, আমার সমাজের নারী-পুরুষ বৈষম্য নিয়ে কথা বলা চলবে না, আমার অনুভূতিতে কারও আঘাত দেওয়া চলবে না, তাহলে মেরে ফেলবো, আগুন জ্বালিয়ে দেবো, দুনিয়া ধ্বংস করে ফেলবো’... শিশুর মতো আবদার আর অসভ্যের মতো আচরণ! সভ্য হতে চাইলে শুধু নিজের নয়, পৃথিবীর সবার, সব ধর্মের, সব বিশ্বাসের, সব বর্ণের, সব লিঙ্গের, সব ভাষার মানুষের মানবাধিকারে, তাদের গণতান্ত্রিক অধিকারে, তাদের মত প্রকাশের অধিকারে বিশ্বাস করতে হবে।

            লেখক : নির্বাসিত লেখিকা।


আপনার মন্তব্য