শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ২২:০৫

প্রেম একবারই এসেছিল নীরবে...

প্রেম একবারই এসেছিল নীরবে...

প্রেম চিরন্তন, প্রেম শাশ্বত,  জীবনে প্রেম আসে নীরবে। প্রেমিকযুগল হাতে হাত রেখে মনের গভীরে প্রেমের আবির মেখে হারিয়ে যায় ভালোবাসার মহাসমুদ্রে। জীবনে প্রেম বারবার আসতে পারে। তবে প্রথম প্রেমের স্মৃতি চিরন্তন। সেই প্রেমের কথা তুলে ধরেছেন- আলাউদ্দীন মাজিদ ও পান্থ আফজাল

 

শাবানা

১৯৭২ সালে মুক্তি পায় শাবানা অভিনীত ‘অবুঝ মন’ ছবিটি। এ ছবি দেখে ব্যবসায়ী ওয়াহিদ সাদিক প্রেমে পড়ে যান বিউটি কুইন শাবানার। তিনি নাকি একটানা ৩০ বার ছবিটি দেখেন। এরপর শাবানার বাবার কাছে বিয়ের প্রস্তাব পাঠান। শাবানাও নাকি সাদিককে দেখে পছন্দ করে ফেলেন। এরপর শুরু তাঁদের প্রেম পর্ব। অবশেষে ১৯৭৪ সালে বিয়ের পিঁড়িতে বসেন তাঁরা। আজও তাঁরা সন্তান নিয়ে সুখে ঘর-সংসার করে যাচ্ছেন। শাবানাকে পেয়ে সাদিক নাকি চিরসুখী, অকপটে আজও বলেন সেই কথা।

 

ববিতা

১৯৭৬ সালে ‘একমুঠো ভাত’ ছবিতে জুটি বাঁধেন ববিতা-জাফর ইকবাল। এই ছবিতে কাজ করতে গিয়ে শুরু হয় তাঁদের মন দেওয়া-নেওয়া। সবার আশা ছিল বাস্তব জীবনেও তাঁরা জুটি বাঁধবেন। না, তা আর হয়নি। এই সম্পর্ক ভাঙার জন্য ববিতাই নাকি দায়ী ছিলেন। চলচ্চিত্র জগতে তাঁদের প্রেম কাহিনির চর্চা এখনো হয়। ববিতাকে হারিয়ে বিরহকাতর জাফর গেয়ে ওঠেন ‘সুখে থাকো ও আমার নন্দিনী, হয়ে কারও ঘরনী, জেনে রেখো প্রেম কভু মরেনি।’

 

শাবনাজ-নাঈম

১৯৯১ সালে ‘চাঁদনী’ ছবিতে নতুন জুটি হয়ে শাবনাজ-নাঈম অভিনয় করেন। পর্দায় প্রেমের ঝড় তুলতে গিয়ে এক সময় তাদের বাস্তব জীবনেও প্রেমের বাঁশি বেজে ওঠে। কমপক্ষে তিন বছর লুকিয়ে প্রেম করার পর ১৯৯৪ সালে বিয়েতে সফল হয় সেই প্রেম। আজও পরস্পরের কানে বেজে চলেছে সেই প্রেমের বাঁশি। বারবার তাঁরা গেয়ে ওঠেন ‘বন্ধুর বাঁশি বাজেরে আমার কানে কানে।’

 

শাকিব-অপু

শাকিব খানের প্রথম প্রেম অপু বিশ্বাস। তাঁদের প্রেমে বিচ্ছেদের সুর বাজলেও দুজনের আবেগ আপ্লুত স্মৃতির কথা সেই প্রথম প্রেমকেই মনে করিয়ে দেয়। ২০০৬ সালে ‘কোটি টাকার কাবিন’ ছবিতে জুটি বাঁধেন শাকিব খান-অপু বিশ্বাস। প্রথম ছবিতেই প্রেমের ঝড় ওঠে দুজনের হৃদয়ে। শাকিব গেয়ে ওঠেন ‘আমি তোমার হতে চাই এটা মিথ্যে কোনো গল্প নয়’। দুজনের প্রেম যখন তুঙ্গে তখনই ২০০৮ সালে গোপনে প্রথমে মিরপুরের একটি মাজারে তারপর শাকিবের গুলশানের বাসায় বিয়ের বাঁধনে বাঁধা পড়েন তাঁরা। একসময় ঘরভাঙা ঝড় এসে তছনছ করে দেয় তাঁদের অনেক সাধের প্রেমের বাগান। ২০১৭ সালে বিচ্ছেদের পথে হাঁটেন দুজন। বিরহ ব্যথায় অপু এখনো গেয়ে চলেছেন- ‘না জানি কোন অপরাধে দিলা এমন জীবন, আমারে পোড়াইতে তোমার এত আয়োজন।’

 

ইমন

তখন আমি ইন্টার সেকেন্ড ইয়ারে পড়ি। ওর সঙ্গে প্রথম পরিচয় হয়েছিল বেইলি রোডে। আমার এক মেয়েবন্ধুর সঙ্গে ও রিকশায় করে যাচ্ছিল। বেইলি রোডে খুব আড্ডা দিতাম। সেদিনও আড্ডা দিচ্ছি। জোরে চিৎকার করে বন্ধুটির নাম ধরে ডেকেছিলাম। সেদিনই প্রথম কথা হয়। এরপর পয়লা বৈশাখে দেখা করার জন্য কথা দিই দুজন দুজনকে। আমি একটা ফুলের স্টিক নিয়ে গিয়েছিলাম। এরপর আমাদের আর কোনোরকম যোগাযোগ হয়নি। কথা বা দেখা কোনোটাই হয়নি আর। এরপর আয়েশা ইসলাম নামের একটি মেয়ের প্রেমে পড়ি। প্রথম পরিচয় ২০০৭ সালের দিকে। প্রথম পরিচয়ে সে আমাকে ফোন দেয়। এভাবেই এগিয়ে যায় আমাদের প্রেম ভালোবাসা। এক পর্যায়ে তাকে জীবনসঙ্গী করলাম।

 

ববি

আমার প্রকৃত ভালোবাসার মানুষ আমার বাবা। তার ওপরে আর কিছুই নেই। তিনিই ভালোবাসার সবচেয়ে বড় উৎস। আর আমার মনে হয়, দুজন মানুষ যখন খুব সহজেই একসঙ্গে থাকতে পারে তখন প্রকৃত ভালোবাসাটা নষ্ট হয়ে যায়। প্রকৃত ভালোবাসাটা তখনই থাকে যখন দুজন মানুষ একসঙ্গে থাকতে পারে না।

 

মম

স্কুলজীবনে স্কুলে আসা-যাওয়ার পথে অনেকের কাছ থেকে প্রেমের প্রস্তাব পেয়েছি। অনেকে আবার চিঠিও দিয়েছে। চিঠিগুলোর উত্তর দেওয়ার মতো সাহস আমার ছিল না। স্কুলে যাওয়া-আসার সময় ছেলেদের সঙ্গে আমার কথা হতো। তবে খুব কম। রাস্তায় হেঁটে যাচ্ছি পাড়ার এক ছেলে আমার পাশাপাশি হেঁটে যেত আর কথা বলত। আমি বড় করে ওড়না জড়িয়ে নিজেকে আড়াল করার চেষ্টা করতাম। এসএসসির পর আমি ঢাকায় চলে আসি। ভর্তি হই ঢাকা সিটি কলেজে। স্কুলে কিংবা কলেজে পড়ার সময় প্রেম শব্দটির সঙ্গে যুক্ত ছিলাম না। তবে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার পর প্রথম প্রেমে পড়ি। ছেলেটি কে? পরিচয়টা গোপনই থাক।

 

নুসরাত ফারিয়া

২০০৭ সালের ঘটনা। আমি তখন শহীদ আনোয়ারা গার্লস স্কুলে পড়ি। সেই সময় একটি ছেলের সঙ্গে আমার পরিচয় হয়। আমার বারান্দা থেকে তাঁর ঘরের বারান্দা দেখা যেত। চোখাচোখি হতো বারান্দা থেকে বারান্দা। টিঅ্যান্ডটি টেলিফোন থেকে তাঁর সঙ্গে কথা বলতাম। ছেলেটি আমাকে খুবই ভালোবাসত। এক দিন দুজনের মুখোমুখি দেখা করার সিদ্ধান্ত হলো। তারপর থেকে প্রায়ই আমাদের দেখা হতো। এক বছরের মাথায় আমাদের ভালোবাসার কথা মা জেনে গেলেন। আর তখনই বারান্দা কিংবা ছাদে যাওয়ার ওপর কড়াকড়ি আরোপ করা হলো। এ অবস্থার মধ্যে ফোনে কথা বলা, বারান্দা কিংবা ছাদে গিয়ে দেখাদেখি কমে আসে। এক দিন ছেলেটি হারিয়ে যায়।

 

ফাহমিদা নবী

১৯৭৫ সালে আমি ক্লাস ফাইভে পড়তাম। তখন আমার এক বন্ধু ছিল। ওর নাম শাহেদ। শাহেদ আর আমি একসঙ্গেই পড়তাম। খেলাধুলা করতাম। ও এত নিষ্পাপ ছিল দেখতে, যা বোঝানো যাবে না। এলিফ্যান্ট রোডে আমাদের বাসা কাছাকাছি ছিল। তাই স্কুলের পরও আমরা একসঙ্গে মিশতে পারতাম। ওর সঙ্গে কথা বলতে ভীষণ ভালো লাগত। শেয়ারিং ব্যাপারটা প্রথমে বুঝতে শিখি শাহেদের সঙ্গে মিশে। এটাকে কি প্রেম বলা যায়? ওইটা আসলে একটা ভালো লাগা ছিল। যখন প্রেম কী তা বুঝতে শিখলাম এবং কারও প্রেমে পড়তে চাইলাম একসঙ্গে তিনজনের প্রেমে পড়লাম-সক্রেটিস, রাজা অশোক এবং স্পার্টাকাস। এর বাইরেও আরও দুজন প্রেমিক আছেন আমার- রবীন্দ্রনাথ এবং জীবনানন্দ। এই তিন প্রেমিকের জ্বালায় আমি এত মগ্ন, অন্য প্রেম কোথায় রাখি?

 

ফেরদৌস ওয়াহিদ

আমাদের বয়সটা খুবই কম ছিল। একটি মেয়ে আমাদের বাসায় বেড়াতে আসত। আমরা একই পাড়ায় থাকতাম। আমার সামনে যখন আসত তখন আমি বোধকরি অন্ধ হয়ে যেতাম। তাকে আমি আমার প্রস্তাব দিতে পারিনি। ভাবতাম যদি সে আমাকে খারাপ কিছু ভাবে। তাকে আর ভালোলাগার কথা বলার সাহস পাইনি। 

 

মেহজাবিন

আমার শৈশব-কৈশোর কেটেছে ওমানে। সেখানকার মাসকটের ইন্ডিয়ান স্কুলে আমার প্রথম শিক্ষাজীবন শুরু। আমি একটু টমবয় টাইপের। তাই মেয়েদের পাশাপাশি আমার অনেক ছেলেবন্ধুও ছিল। খেলাধুলা, হইহুল্লোড় করতে বেশ পছন্দ করতাম। আমার এক সহপাঠী বন্ধু আমাকে প্রথম প্রেমের প্রস্তাব দেয়। তাও বেশ অন্যরকম এক স্টাইলে। স্কুলে আমি প্রতিদিন একটি নির্দিষ্ট চেয়ারে বসতাম। এক দিন এসে দেখি, আমার চেয়ারে ভালোবাসার একটি সিম্বল আঁকা।

 

মাহিয়া মাহী

আমাদের পাশের বাড়ির একটা ছেলে সব সময় আমার সঙ্গেই থাকত। তখন আমি স্কুলেও যাওয়া শুরু করিনি। ছেলেটা খুব কালো ছিল। ভালোবাসা কী সেটা বোঝার আগেই ছেলেটার প্রেমে পড়েছিলাম। কিন্তু সেটা তখন বুঝিনি। ক্লাস সেভেনে উঠে যখন দ্বিতীয়বার প্রেমে পড়লাম, তখন বুঝলাম আসলে কালো সেই ছেলেটাই ছিল আমার প্রথম প্রেম। কিন্তু তারপর আর ছেলেটার সঙ্গে দেখা হয়নি। দ্বিতীয় প্রেমটা করতে টানা সাত মাস ছেলেটার পেছনে পেছনে ঘুরেছি। কতভাবে যে বোঝাতে চেয়েছি, আমি তাকে পছন্দ করি কিন্তু সে বুঝলই না! পরে আরেকজনকে মনে ধরল। তাকেও প্রপোজ করে রিফিউজ হয়েছি।

বিদ্যা সিনহা মিম

ক্লাস এইটে পড়ি। সে ছিল ক্লাসমেট। কোচিং সেন্টারের সিঁড়িতে সে প্রতিদিনই দাঁড়িয়ে থাকত। শুরুতে অপলক তাকিয়ে থাকার মধ্যেই সবকিছু সীমাবদ্ধ ছিল। এর কিছুদিন পর সে চিঠি দেওয়া শুরু করল। চিঠি নিতে না চাইলে সিঁড়ি থেকে সে এক চুলও নড়ত না। কী আর করা, বাধ্য হয়ে তার চিঠি নিতাম। কিন্তু তা নিজের কাছে রাখতাম না। আমার এক বান্ধবী সেই ছেলেটিকে পছন্দ করত। তাকেই সব চিঠি দিয়ে দিতাম। এরপর এক দিন অন্যরকম এক চিঠি দিল। সে চিঠি ছিল রক্ত দিয়ে লেখা! এটা দেখে চমকে গিয়েছিলাম।


আপনার মন্তব্য