শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১১ মে, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১০ মে, ২০২১ ২২:৫৮

অবশেষে ঈদে খুলছে সিনেমা হল

দুই ছবিতেই ভরসা

আলাউদ্দীন মাজিদ

অবশেষে ঈদে খুলছে সিনেমা হল
Google News

অল্প করে হলেও আশার আলো দেখছেন সিনেমা হল মালিকরা। নানা অনিশ্চয়তার মধ্যেও ঈদে দুটি ছবি মুক্তির জন্য রাজি হয়েছেন সংশ্লিষ্ট প্রযোজকরা। ছবি দুটি হলো ডিপজল প্রযোজিত ‘সৌভাগ্য’ এবং সিমি ইসলাম কলি প্রযোজিত ‘নারীর শক্তি’। চলতি বছর দেশে করোনার প্রকোপ বেড়ে যাওয়ায় মানুষের জীবন রক্ষায় সরকার লকডাউন ঘোষণা করে। সিনেমা হল বন্ধ এবারের লকডাউনের আওতায় না থাকলেও ছবি ও দর্শক অনিশ্চয়তায় হল মালিকরা লোকসানের ভার না বাড়াতে সিনেমা হল বন্ধ রাখেন। শেষবারের মতো লকডাউনের সময় বেড়েছে ১৬ মে পর্যন্ত। ঈদ হতে পারে ১৩ অথবা ১৪ মে। তাই সিনেমা হল মালিকদের অনুরোধ সত্ত্বেও এই লকডাউনে লোকসানের ভয়ে নির্মাতারা ঈদে ছবি মুক্তি দিতে কোনোভাবেই রাজি হননি। এতে সিনেমা হল মালিকরা পড়েন চরম বিপাকে। কারণ এমনিতেই প্রায় ২০০৮ সাল থেকে চলচ্চিত্রের ব্যবসা মন্দা। একাধিক নেতিবাচক কারণে দর্শক সিনেমা হলে যাওয়া প্রায় বন্ধ করেই দিয়েছে। এতে প্রযোজকরা ছবি নির্মাণে আগ্রহ হারিয়েছেন আর পর্যাপ্ত ও মানসম্মত ছবির অভাবে প্রদর্শকরা আর্থিক লোকসান গুনে সিনেমা হল বন্ধ করে দিতে শুরু করেছেন। এর ওপর গত বছর থেকে বৈশ্বিক মহামারীর কারণে সিনেমা হল প্রায় ৭ মাস বন্ধ থাকায় প্রযোজক ও প্রদর্শকদের পিঠ একেবারেই দেয়ালে ঠেকে যায়। লকডাউনের পর গত বছরের অক্টোবরে সিনেমা হল খুললেও গত মার্চ পর্যন্ত মাত্র ১৪টি ছবি মুক্তি পায়। এর মধ্যে কোনোরকমে মাত্র একটি ছবি চয়নিকা চৌধুরীর ‘বিশ্বসুন্দরী’ ব্যবসা করে। এ তথ্য জানিয়ে চলচ্চিত্র প্রযোজক সমিতির সাবেক কর্মকর্তা খোরশেদ আলম খসরু বলেন, ব্যবসায়িক লোকসানের ভয়ে এই করোনায় প্রযোজকরা ঈদে তাঁদের ছবি মুক্তি দিতে নারাজ। প্রযোজকদের এই সিদ্ধান্তে চলচ্চিত্র ও সিনেমা হল ব্যবসার প্রধান মৌসুম ঈদে ছবি চালাতে পারছেন না বলে চরম হতাশ হয়ে পড়েন। কারণ ছবি না চললে টাকা আসবে কোথায় থেকে। টাকা না পেলে সিনেমা হলের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা ও অন্যান্য খরচ কীভাবে বহন করা যাবে। এ কারণে প্রদর্শকরা ছবি দেওয়ার জন্য অনুরোধ জানাতে থাকেন প্রযোজকদের। অবশেষে প্রযোজক ডিপজল এবং প্রযোজক সিমি ইসলাম তাঁদের দুটি ছবি মুক্তি দিতে রাজি হন। এ অবস্থায় কিছুটা হলেও স্বস্তি ফিরেছে সিনেমা হল মালিকদের মধ্যে। ছবি দুটি হলো ডিপজল প্রযোজিত ও এফ আই মানিক পরিচালিত ‘সৌভাগ্য’। এতে অভিনয় করেছেন ডিপজল, মৌসুমী, কাজী মারুফ, তমা মির্জা ও হাসান মাসুদ। অন্যটি হলো সিমি ইসলাম প্রযোজিত ও অভিনীত ‘নারীর শক্তি’। এদিকে ঈদে সিনেমা হলে ছবি দিতে রাজি হওয়ায় অনেক প্রদর্শকই ডিপজলকে সাধুবাদ জানান। একই সঙ্গে সিমি ইসলামকেও ধন্যবাদ জানান। প্রদর্শকদের ধন্যবাদের জবাবে ডিপজল বলেন, আমি সিনেমার মানুষ। ছবির অভাবে হল বন্ধের বিষয়টি আমি মেনে নিতে পারছি না। ব্যবসায়িক ঝুঁকির কথা জেনেও চলচ্চিত্র শিল্পকে ভালোবাসি বলে আমার এই বিগ বাজেটের ছবিটি মুক্তি দিতে রাজি হলাম। এদিকে প্রদর্শক সমিতির সভাপতি কাজী শোয়েব রশিদ বলেন, সরকার হল বন্ধ রাখার বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত দেয়নি এখনো। তা ছাড়া হলে বরাবরই  রোজা ও কোরবানির ঈদে ব্যবসা হয়। তাই আমরা প্রযোজক ও নির্মাতাদের কাছে ছবি চেয়েছিলাম। ‘সৌভাগ্য’ ছবির প্রযোজক ডিপজল তাঁর ছবি মুক্তি দিতে রাজি হয়েছেন। এতে তিনি বেশকিছু সিনেমা হল বন্ধের হাত থেকে রক্ষা করলেন। প্রদর্শক সমিতির পক্ষ  থেকে তাঁকে ধন্যবাদ জানাই। প্রদর্শক সমিতির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে এ পর্যন্ত প্রায় তিন ডজন সিনেমা হলে ‘সৌভাগ্য’ মুক্তির বিষয়টি চূড়ান্ত হয়েছে। ঈদের আগের দু-এক দিন সময়ে সৌভাগ্য দিয়ে সিনেমা হল খোলার সংখ্যা আরও বাড়বে। পাশাপাশি বেশ কটি হলে ‘নারীর শক্তি’ ছবিটিও মুক্তি পাবে। সবমিলিয়ে ঈদ উৎসবে ছবি মুক্তি নিশ্চিত হওয়ায় প্রদর্শকরা এখন খুশি। দর্শকরা যদি করোনা স্বাস্থ্যবিধি মেনে সিনেমা হলে আসেন তাহলে প্রদর্শক ও প্রযোজক উভয়ে বেঁচে যাবে।