১৯ এপ্রিল, ২০২৪ ০৬:৩২

জলকেলি উৎসবে মেতেছে রাখাইন তরুণ-তরুণীরা

কলাপাড়া (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি

জলকেলি উৎসবে মেতেছে রাখাইন তরুণ-তরুণীরা

বর্ষবরণ উপলক্ষে পর্যটন কেন্দ্র কুয়াকাটায় শুরু হয়েছে রাখাইনদের জলকেলি অথবা ‘সাংগ্রাই’ উৎসব। বৃহস্পতিবার বিকাল সাড়ে ৫ টার দিকে কুয়াকাটা রাখাইন মহিলা মার্কেট মাঠে তিন দিনব্যাপী এ অনুষ্ঠন শুরু হয়। আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধনের মধ্যে দিয়ে রাখাইন সম্প্রদায়রা মেতে উঠে ঐতিহ্যের জলকেলিতে।  

নৌকায় রাখা পানি থেকে রাখাইন তরুণ তরুণীসহ সবাই মিলে একে অপরের গায়ে পানি ছিটিয়ে দেয়। ফুল দিয়ে একে অপরকে শুভেচ্ছা জানায়। এসময় রাখাইনদের নিজস্ব সংস্কৃতি, নাচ আর গানে মাতিয়ে রাখে পুরো অনুষ্ঠানটি। উৎসবটি দেখতে ভিড় জমিয়েছেন পর্যটকসহ স্থানীয়রা। এ উৎসব চলবে আগামী ২০ এপ্রিল পর্যন্ত।

নতুন বছরকে স্বাগত জানাতে রাখাইনে বাড়িতে বাড়িতে ফুল দিয়ে সাজানো, বিহারে মোমবাতি প্রজ্বলন এবং প্রার্থনা করা, নতুন পোষাক ও  পিঠাপুলির আয়োজন করা হয়।

প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত  ছিলেন কলাপাড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. রবিউল ইসলাম, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মোতালেব তালুকদার, কলাপাড়া পৌর মেয়র বিপুল চন্দ্র হাওলাদার, কুয়াকাটা পৌর মেয়র মো. আনোয়ার হাওলাদার, পৌর আওয়ামী লীগ সভাপতি আব্দুল বারেক মোল্লাসহ বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ।

কেরানীপাড়ার তরুন রাখাইন ওয়োনাইচে বলেন, পূরানো দুঃখকে ভুলে নতুন বছরে ভালো কিছু করার প্রত্যাশায় জলকেলিতে অংশ নিয়েছি। একটি বছর অপেক্ষা করি এমন দিনের জন্য। আমরা অনেক আনন্দ করছি। 

রাখাইন মাচান বলেন,  নববর্ষের শুরুতে আমরা নানান রকমের খাবার তৈরি করেছি। পুরানো দুঃখ কষ্টকে ভুলে নতুন বছরে ভালো কিছুর প্রত্যাশায় জলকেলিতে অংশ নিয়েছি। 

শ্রীমঙ্গল বৌদ্ধ বিহারের পরিচালক ইন্দ্র বংশ ভান্তে বলেন, উৎসবকে ঘিরে সাজ সাজ রব রাখাইন পাড়ায়।  নতুন বছরকে স্বাগত জানাতে ইতিমধ্যে বিভিন্ন পাড়া থেকে যোগ দিয়েছে রাখাইনরা। পুরানো পাপ জলকেলির মাধ্যমে ধুয়ে মুছে নতুন বছরে ভালো ভাবে শুরু করব।

কুয়াকাটা পৌর মেয়র মো. আনোয়ার হাওলাদার বলেন, 'জলকেলি উৎসবটি রাখাইনদের হলেও এটি কালক্রমে এ অঞ্চলের মানুষের ঐতিহ্যবাহী সংস্কৃতির অংশ হয়ে উঠেছে।  ৩ দিনের জলকেলি উৎসব সার্বিক সফল ও শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন করতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সদস্যরা কাজ করছে।

বিডি প্রতিদিন/হিমেল

সর্বশেষ খবর