শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ২৩:৫২

ডলারের দাম বাড়ছেই অসহায় ব্যবসায়ীরা

খোলাবাজারে দাম ছাড়িয়েছে ৮৭-৮৮ টাকা

রুহুল আমিন রাসেল

ডলারের দাম বাড়ছেই অসহায় ব্যবসায়ীরা

দেশের আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্যের প্রধান মুদ্রা মার্কিন ডলারের দাম বাড়ছেই। এতে অসহায় হয়ে পড়েছেন ব্যবসায়ীরা।

খোলাবাজারে ডলারের দাম ৮৭ থেকে ৮৮ টাকা ছাড়িয়েছে। এতে প্রবাসী ও কিছু রপ্তানিকারক খুশি হলেও ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন অধিকাংশ ব্যবসায়ী। ফলে বাড়ছে পণ্যের দাম। জীবনযাত্রার খরচও বাড়ছে। ক্ষতি পুষিয়ে নিতে সরকারের কাছে প্রণোদনা চেয়েছেন ব্যবসায়ীরা।

এ প্রসঙ্গে ব্যবসায়ী-শিল্পপতিদের শীর্ষ সংগঠন বাংলাদেশ শিল্প ও বণিক সমিতি ফেডারেশনের (এফবিসিসিআই) সাবেক সভাপতি মীর নাসির হোসেন বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘ডলারের বেশি দাম রপ্তানিকারকদের জন্য সহায়ক হলেও আমদানিকারকদের জন্য বড় কষ্টের। প্রতি ডলার ৮৭ টাকা হলেও এটা সঠিক দাম নয়। এটা ক্রমান্বয়ে সমন্বয় দরকার। কারণ আমাদের দেশ রপ্তানির চেয়ে আমদানি বেশি করছে। ফলে দ্রব্যমূল্যে প্রভাব পড়ে বেশি যা মূল্যস্ফীতিতেও প্রভাব ফেলতে পারে। তাই পর্যায়ক্রমে ডলার সঠিক দামে আনা উচিত।’ জানা গেছে, দেশের বাজারে গতকাল প্রতি ডলার কেনা হয় ৮৬ টাকা ৫০ পয়সা। আর বিক্রি হয়েছে ৮৭ টাকা ৫০ পয়সায়। বাংলাদেশ ব্যাংকের ওয়েবসাইটে পাওয়া তথ্যমতে, আন্তব্যাংক মুদ্রাবাজারে টাকার বিপরীতে ডলারের দাম বেড়েই চলেছে। এক বছরের ব্যবধানে প্রতি ডলারের দাম বেড়েছে ১ টাকা। গতকাল ১৭ ফেব্রুয়ারি প্রতি ডলারের দাম নির্ধারিত ছিল ৮৪ টাকা ৯৫ পয়সা, যা এক বছর আগে ২০১৯ সালের একই দিনে ছিল ৮৪ টাকা ১৫ পয়সা, ২০১৮ সালে ৮২ টাকা ৯৬ পয়সা, ২০১৭ সালে ৭৯ টাকা ৩৭ পয়সা, ২০১৬ সালে ৭৮ টাকা ৪৫ পয়সা এবং ২০১৫ সালে প্রতি ডলারের দাম ছিল ৭৭ টাকা ৮০ পয়সা। তবে বাংলাদেশ ব্যাংকের মুদ্রা বিনিময় হারের তথ্যে ডলারের দামে এই চিত্র দেখা গেলেও খোলাবাজারে দাম আরও আড়াই থেকে তিন টাকা বেশি। জানা গেছে, খোলাবাজারে কেউ ডলার কিনতে গেলে তাকে প্রতি ডলারের বিনিময়ে গুনতে হচ্ছে ৮৭ থেকে ৮৮ টকা। চলতি বছরের শুরুতে খোলাবাজারে ডলারের দাম ছিল ৮৫ থেকে ৮৬ টাকা। অর্থনীতি বিশ্লেষকদের মতে, ডলারের দাম বাড়লে রপ্তানিকারক ও রেমিট্যান্স প্রেরণকারীরা লাভবান হন। অন্যদিকে আমদানিকারকরা ক্ষতিগ্রস্ত হন। কারণ পণ্যের আমদানি ব্যয় বেড়ে যায়। ফলে স্থানীয় বাজারে পণ্যমূল্য বেড়ে যায়। এ কারণে মূল্যস্ফীতি দেখা দেয়। এতে সাধারণ মানুষের জীবনযাত্রার ব্যয় বেড়ে যায়। তাই ডলারের দাম বাড়লে রপ্তানিকারকরা যদি তা কাজে লাগাতে না পারেন তাহলে এতে ভালো না হয়ে ক্ষতি হয় বেশি। এ প্রসঙ্গে সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অর্থ উপদেষ্টা এ বি মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম বলেন, ‘ডলারের দাম বাড়লেও পোশাকশিল্পের ক্রেতারা রপ্তানিমূল্য কম দিলে তাতে কোনো লাভ নেই। কিন্তু ডলারের দাম বাড়লে আমদানিব্যয় বেড়ে যাবে। যেমন তৈরি পোশাকের ক্ষেত্রে অধিকাংশ বোতাম, সুতা ইত্যাদি। এ ছাড়া মূলধনি যন্ত্রপাতি তো পুরোটাই আমদানি করতে হয়। সে ক্ষেত্রে ডলারের দাম বাড়লে আমদানি ব্যয় বেড়ে যাবে। এতে জীবনযাত্রার ব্যয় বাড়বে। মূল্যস্ফীতি দেখা দেবে। তাই ডলারের দামে বাংলাদেশ ব্যাংকের কোনো হস্তক্ষেপ থাকা উচিত নয়। বরং এটা মুক্তবাজারের ওপর ছেড়ে দেওয়াই ভালো।’ পোশাকশিল্প মালিকদের সংগঠন বাংলাদেশ পোশাক প্রস্তুত ও রপ্তানিকারক সমিতির (বিজিএমইএ) সভাপতি ড. রুবানা হক বলেন, ‘বাংলাদেশি মুদ্রার অবস্থান অত্যন্ত শক্তিশালী হওয়ায় ডলারের দাম বেশি। আমরা মুদ্রার অবমূল্যায়ন দাবি করছি। এর সঙ্গে প্রণোদনাও চাই। কারণ মূল্যভিত্তিক প্রতিযোগিতায় অন্য প্রতিযোগীদের সঙ্গে টিকে থাকতে না পারার জটিল পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে।’ নিট পোশাকশিল্প মালিকদের সংগঠন বাংলাদেশ নিটওয়্যার প্রস্তুত ও রপ্তানিকারক সমিতির (বিকেএমইএ) সিনিয়র সহসভাপতি মোহাম্মদ হাতেম বলেন, ‘ডলারের দাম বাংলাদেশ ব্যাংকের নিয়ন্ত্রণ করা সঠিক হচ্ছে না। এটা বাজারের ওপর ছেড়ে দেওয়া উচিত। প্রয়োজনে অন্য দেশগুলোর সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে মুদ্রার অবমূল্যায়ন দরকার।’ চলতি ২০১৯-২০ অর্থবছরের রপ্তানি আয়ের চিত্র পর্যালোচনা করে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি গত বছর ২৮ নভেম্বর অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালকে চিঠি দিয়েছেন। পরিস্থিতি মোকাবিলায় প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে ওই চিঠিতে বলা হয়, ‘চলতি অর্থবছর শেষে আয়ের প্রবৃদ্ধি ২০১৮-১৯ অর্থবছরের চেয়েও কমতে পারে। পোশাকশিল্পের এ পরিস্থিতির জন্য ডলারের বিপরীতে বাংলাদেশি মুদ্রার শক্তিশালী অবস্থান দায়ী।’ চিঠিতে বলা হয়, চলতি অর্থবছরের জন্য পোশাক খাতের রপ্তানি লক্ষ্যমাত্রা ৩ হাজার ৮২০ কোটি ডলার। তবে রপ্তানি হবে ৩ হাজার ১৯০ কোটি ডলার। অর্থবছরের শেষে ৭ শতাংশ নেতিবাচক প্রবৃদ্ধি হবে। এ খাতের জন্য ‘আরএমজি ফরেন কারেন্সি রিয়েলাইজেশন প্রোগ্রাম’ নামে একটি কর্মসূচি চালুর পরামর্শ দিয়ে চিঠিতে বলা হয়, ২৫ শতাংশ স্থানীয় মূল্য সংযোজনের পরিমাণ ৭৯৮ কোটি ডলার। এ অঙ্কের ওপর ডলারপ্রতি ৫ টাকা অতিরিক্ত বিনিময় হার নির্ধারণ করা হলে তাতে লাগবে ৩ হাজার ৯৮৮ কোটি টাকা। যদিও চলতি অর্থবছর থেকে পোশাক খাতের জন্য নতুন করে ১ শতাংশ নগদ প্রণোদনা দিতে বাজেটে ২ হাজার ৯০০ কোটি টাকা বরাদ্দ রয়েছে।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর