শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ৩১ জুলাই, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ৩০ জুলাই, ২০২০ ২৩:৫৭

তবু ঝুঁকি নিয়ে বাড়ি ফেরা

শিমুলিয়ায় ফেরির অপেক্ষায় হাজার হাজার গাড়ি, শেষ মুহূর্তে পরিবহনের নানামুখী হাল

গোলাম রাব্বানী ও আরাফাত মুন্না

তবু ঝুঁকি নিয়ে বাড়ি ফেরা
পিকআপে গাদাগাদি করে গতকাল ঢাকা ছাড়তে দেখা যায় মানুষকে -বাংলাদেশ প্রতিদিন

দেশে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস সংক্রমণের হার কমছে না। থামছে না মৃত্যুর মিছিল। ঈদযাত্রায় করোনা সংক্রমণের অধিক ঝুঁকির কথা জানিয়েছেন জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা। তবু ঝুঁকি নিয়ে নাড়ির টানে বাড়ি ফিরছে মানুষ। সদরঘাটসহ বিভিন্ন লঞ্চ ও ফেরিঘাটে ঈদে ঘরমুখো মানুষের ভিড় বাড়লেও বন্যার হানায় ব্যাহত হচ্ছে ফেরি চলাচল। শিমুলিয়ায় ফেরিঘাটে গতকাল পারাপারের অপেক্ষায় ছিল হাজার হাজার গাড়ি। একই চিত্র ছিল দৌলতদিয়া ঘাটে। তবে অন্য বছরের মতো রেলের প্ল্যাটফরমে ছিল না অতিরিক্ত যাত্রী। স্টেশনে প্রবেশে ছিল না ভিড়। বাসস্টেশনে যাত্রী কিছুটা কম হলেও সায়েদাবাদ, মহাখালী ও গাবতলীতে ঈদে ঘরমুখো যাত্রীদের তীব্র যানজটে পড়তে হয়। টিকিট সংকটে চরম ভোগান্তিতে পড়ছে অনেকেই। ঈদে গণপরিবহন চলাচলে নিষেধাজ্ঞা না থাকলেও বাস, লঞ্চ, ট্রেনের পাশাপাশি মানুষ ব্যক্তিগত গাড়ি ও আকাশপথে বাড়ি যাচ্ছে। এ ছাড়া গরুবাহী  ট্রাক ও পিকআপে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে গাদাগাদি করে বাড়ি যাচ্ছে তারা। এবার অতিরিক্ত সরকারি ছুটি না থাকায় শনিবার ঈদ উদ্্যাপনের পরপরই আবারও শুরু হবে ঢাকা ফেরার প্রস্তুতি। তবে পশু কোরবানির পাশাপাশি ঘরমুখো মানুষের স্বাস্থ্যবিধি না মানা নিয়ে সংশয়ে রয়েছেন জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা। তারা বলছেন, ঈদ ঘিরে করোনা সংক্রমণ অনেক বাড়তে পারে। তবে সবাই স্বাস্থ্যবিধি মেনে চললে তা কিছুটা নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব হবে।

শিমুলিয়ায় ফেরির জন্য অপেক্ষা : দক্ষিণাঞ্চলের ২১ জেলার প্রবেশদ্বার শিমুলিয়ায় ঈদে ঘরমুখো মানুষের ভিড় বেড়ে যাওয়ায় সহস্রাধিক গাড়ির জট লেগেছে। বিআইডব্লিউটিসির শিমুলিয়া ঘাটের এজিএম শফিকুল ইসলাম জানান, বর্তমানে তিনটি ঘাট দিয়ে ১০টি ফেরি চলতে পারছে। গত কয়েক দিনের তুলনায় আজ (গতকাল) সকাল থেকে বেশি গাড়ি পার করা সম্ভব হচ্ছে। তিনি বলেন, অন্যবারের তুলনায় এবার ঘাটে গাড়ির চাপ অনেক কম। তবু সহস্রাধিক গাড়ি এখনো পার হওয়ার অপেক্ষায় রয়েছে। বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় সব ফেরি বন্ধ হয়ে যাওয়ায় এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। পদ্মায় পানি বেড়ে যাওয়ায় তীব্র স্রোতে প্রায় দুই সপ্তাহ ধরে রাতে ফেরি চলাচল বন্ধ থাকছে। এর চাপ পড়ছে দিনের বেলায়। এ ছাড়া শিমুলিয়ার চারটি ফেরিঘাটের মধ্যে একটি মঙ্গলবার পদ্মায় বিলীন হয়ে যাওয়ায় অন্য তিনটি ঘাটের ওপর চাপ বেড়েছে। এজিএম শফিকুল বলেন, তাদের বহরে ১৭টি ফেরি রয়েছে। কিন্তু স্রোতের কারণে সব ফেরি চলতে পারছে না। তবে ৮৭টি লঞ্চ ও ৪০০ স্পিডবোট ঠিকমতো চলছে। স্পিডবোটে ভিড় বেশি হচ্ছে।

দৌলতদিয়া ফেরিঘাটে ঘরমুখো মানুষের চাপ : আমাদের রাজবাড়ী প্রতিনিধি জানান, ঈদ সামনে রেখে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটের দৌলতদিয়ায় ফেরি ও লঞ্চঘাটে ঘরমুখো মানুষের চাপ বেড়েছে। পদ্মায় প্রবল ¯্রান্ডেত থাকায় ফেরি চলাচল ব্যাহত হওয়া ঘাটের দুই পাশে পারাপারের অপেক্ষায় রয়েছে ৫ শতাধিক যানবাহন। দৌলতদিয়া ফেরিঘাট সূত্রে জানা যায়, ঈদ সামনে রেখে গতকাল সকাল থেকে যাত্রীর চাপ বৃদ্ধি পেয়েছে দৌলতদিয়া ফেরিঘাটে। দুপুরের পর থেকে শুক্রবার রাত পর্যন্ত যাত্রীর চাপ আরও বৃদ্ধি পাবে। তবে পদ্মায় প্রবল স্রোত থাকায় ফেরি চলাচল চরমভাবে ব্যাহত হচ্ছে, যে কারণে ঝুঁকি এড়াতে অধিকাংশ যাত্রী ফেরিতে পারাপার হচ্ছে। দৌলতদিয়া লঞ্চঘাটের ট্রাফিক ইন্সপেক্টর আফতাব হোসেন জানান, যাত্রীর চাপ বৃদ্ধি পাওয়ায় বুধবার দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে ১৬টি লঞ্চ চলাচল করলেও আজ (বৃহস্পতিবার) ২২টি লঞ্চ চলাচল করছে। স্বাস্থ্যবিধি মানার ব্যাপারে তিনি বলেন, যতটুকু সম্ভব চেষ্টা করা হচ্ছে যাত্রীদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার পরামর্শ প্রদানের।

স্বাস্থ্যবিধি মেনে স্বস্তির রেলযাত্রা : অন্য বছরের মতো প্ল্যাটফরমে নেই অতিরিক্ত যাত্রী। স্টেশনে প্রবেশে নেই দীর্ঘ সারি। নেই নিয়ম ভাঙার প্রবণতাও। আগের মতো ব্যস্ততা নেই রেলকর্মী কিংবা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের। সবই যেন বদলে দিয়েছে করোনা! মানুষ সুশৃঙ্খলভাবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ট্রেনে যাত্রা করছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, অল্প অল্প যাত্রী প্রবেশ করছে স্টেশনে। সবাই নিয়ম মেনেই প্ল্যাটফরমে প্রবেশ করছে। অন্য বছরের মতো কারও তাড়াহুড়ো নেই। স্বাস্থ্যবিধি মেনে সব যাত্রী আসছে নিজ নিজ গন্তব্যে যেতে। জানা গেছে, করোনাভাইরাসের কারণে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ১ জুন থেকে ৫০ শতাংশ আসনে যাত্রী নিয়ে চলছে আন্তনগর ট্রেন। এখন পর্যন্ত সেভাবেই চলছে। এমনকি ঈদেও নেই বাড়তি ট্রেন। ফলে ঈদযাত্রায় নেই অতিরিক্ত যাত্রী। নির্ধারিত যাত্রীর বাইরে কেউই প্ল্যাটফরমে প্রবেশ করতে পারছে না। কমলাপুর রেলস্টেশনের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, গতকাল বেলা ৩টা পর্যন্ত ১২টি আন্তনগর ট্রেনের মধ্যে ৫টি নির্ধারিত গন্তব্যের উদ্দেশে কমলাপুর ছেড়ে গেছে। এবার যাত্রীর অতিরিক্ত চাপ না থাকায় শিডিউল টাইম অনুযায়ী ট্রেনগুলো ছেড়ে যাচ্ছে। জয়ন্তিকা এক্সপ্রেসের যাত্রী সাব্বির আহমেদ বলেন, ‘করোনাভাইরাসের কারণে পরিবারের সবাইকে ঢাকায় রেখে গ্রামে যাচ্ছি। মা-বাবাকে দেখতেই মূলত বাড়ি যাওয়া। ঈদের পরদিনই আবার ঢাকা ফিরব। এবার ঈদে স্টেশনের চিত্র অনেক ভিন্ন দেখছি।’

বাসে এবারও ভোগান্তি : অন্যবারের তুলনায় যাত্রী কিছুটা কম হলেও ঈদে সায়েদাবাদ, মহাখালী ও গাবতলী হয়ে ঘরমুখো যাত্রীরা তীব্র যানজট আর টিকিট সংকটে চরম ভোগান্তিতে পড়ছে। টার্মিনালে বহু সময় অপেক্ষার পরও টিকিট পাচ্ছে না অনেকে। তবে দিনের বেলা এ চিত্র ভিন্নও দেখা গেছে। মূলত যারা অগ্রিম টিকিট কাটতে পারেনি কিন্তু টার্মিনালে এসেছে বাড়ি যাওয়ার জন্য, তারাই বেশি ভোগান্তিতে পড়ছে। এমন সুযোগে অনেক পরিবহনেই প্রায় দ্বিগুণ ভাড়া আদায় করা হচ্ছে। গতকাল রাজধানীর প্রধান এ তিন বাস টার্মিনালের যাত্রীদের কাছ থেকে এমন অভিযোগই পাওয়া গেছে। এদিকে লোকাল বাসগুলোকে যাত্রী পেতে হাঁকডাক দিতেও দেখা গেছে। পরিবহন-সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ফেরিঘাটে যানজটে আটকা পড়ায় বাসগুলো সময়মতো গাবতলীতে ফিরে আসতে পারছে না। একই সঙ্গে স্বাস্থ্যবিধি মেনে বাসের অর্ধেক সিট ফাঁকা রাখায় সংকটটা আরেকটু বেড়েছে।

গাবতলী বাস টার্মিনালের সোহাগ পরিবহনের ম্যানেজার মঈনউদ্দীন বলেন, বাসের ক্যাপাসিটি কম। সব টিকিট অগ্রিম বিক্রি হয়ে গেছে। ফলে এখন যারা আসছে তারা টিকিট পাচ্ছে না। তাদের অনেকে লোকাল বাসে যাচ্ছে। মহাখালী বাস টার্মিনালে ময়মনসিংহগামী যাত্রী জায়েদুল ইসলাম বলেন, ‘আগে টিকিট কাটিনি। তাই এখন ভালো গাড়িতে টিকিট পাচ্ছি না।’ তিনি বলেন, লোকাল বাসগুলোয় সিট পাওয়া গেলেও ভাড়া অনেক বেশি।

সদরঘাটেও ভিড় : দেশের দক্ষিণাঞ্চলের জেলাগুলোয় যাতায়াতের প্রধান বাহন লঞ্চ। লঞ্চগুলো ছাড়ে সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনাল থেকে। এবারের ঈদেও সদরঘাটে ঘরমুখো মানুষের ভিড় ছিল। গতকাল সদরঘাট টার্মিনালে দেখা যায়, সকাল থেকে দক্ষিণবঙ্গের বরিশাল, ভোলা, হাতিয়া, মনপুরা, চাঁদপুর, বরগুনা, পিরোজপুরসহ জেলা-উপজেলার ঘরমুখো যাত্রীরা লঞ্চঘাটে অপেক্ষা করছে। যাদের লঞ্চ বিকালে বা সন্ধ্যায়, তারাও টার্মিনালে আসতে থাকে দুপুর ১২টা থেকে। টার্মিনাল, পন্টুন, লঞ্চে কিছুটা যাত্রীর ভিড় ছিল।

 


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর