২৮ জুলাই, ২০২১ ১৬:২৩

“মহামারী নিয়ন্ত্রণে আনতে ভ্যাকসিনের বিকল্প নেই”

অনলাইন ডেস্ক

“মহামারী নিয়ন্ত্রণে আনতে ভ্যাকসিনের বিকল্প নেই”

ডা. ভিসওয়াসভারান বালাসুব্রামানিয়ান

প্রতিবেশী দেশ ভারতে প্রতি বছরই আমাদের দেশ থেকে অসংখ্য মানুষ উন্নত চিকিৎসার উদ্দেশ্যে ভীড় জমান। যদিও মহামারীর প্রকোপে গত দেড় বছর যাবৎ সেই সংখ্যা অনেকাংশেই কমে এসেছে। তবে এখনও অনেকেই পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসার অপেক্ষায় আছেন শুধুমাত্র চিকিৎসার জন্য ভারত যাবেন বলে।

সম্প্রতি ভারতের অন্যতম চিকিৎসালয় ইয়াশোদা হাসপাতাল, হায়দ্রাবাদ-এর ইন্টারভেনশনাল পালমোনোলজী এবং স্লিপ মেডিসিন-এর কনসালটেন্ট ডা. ভিসওয়াসভারান বালাসুব্রামানিয়ান চিকিৎসা খাত বিশেষ করে করোনা প্রেক্ষাপট নিয়ে গণমাধ্যমের সঙ্গে একটি সাক্ষাৎকারে বিশদ আলোচনা তুলে ধরেন।

বর্তমানে কোভিড চিকিৎসায় প্লাজমা-এর গুরুত্ব কতটুকু? এই প্রশ্নের উত্তরে ডা. ভিসওয়াসভারান বলেন “প্রাথমিকভাবে রোগীদের অক্সিজেন সাপোর্ট প্রদানের জন্য প্লাজমা ব্যবহার করা হয়েছে। তবে বেশ কিছু গবেষণা থেকে দেখা গেছে যে রোগীদের জীবন বাঁচাতে প্লাজমা লক্ষ্যনীয় কোন ভূমিকা রাখছে না বরং কিছু কিছু ক্ষেত্রে বিপরীত প্রতিক্রিয়াও লক্ষ্য করা গিয়েছে। এসকল বিষয় বিবেচনায় রেখে বৈশ্বিকভাবে বর্তমানে কোভিড চিকিৎসায় প্লাজমা ব্যবহার বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।”

রিমডেসিভির-এর মতো পরীক্ষামূলক ঔষধ কি কোভিড-১৯ মোকাবেলায় সক্ষম? উত্তরে বালাসুব্রামানিয়ান জানান “বেশ কিছু সফল পরীক্ষার মাধ্যমে এই ঔষধগুলোর কার্যকারিতা সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া গেছে। তবে এফডিএ অনুমোদিত ঔষধ রিমডেসিভির ছাড়া অন্যান্য পরীক্ষামূলক ঔষধ কোভিড চিকিৎসায় ব্যবহৃত হচ্ছে না। বর্তমান পরীক্ষা এবং বিকাশের ফলে আমরা কোভিড মোকাবেলায় নতুন কিছু দেখতে চলেছি।”

ভারতের অন্যতম প্রধান একটি হাসপাতালের কনসালটেন্ট হিসেবে, কোভিড রোগীদের চিকিৎসার বিষয়ে অন্যান্য ডাক্তারদের পরামর্শ প্রদানের বিষয়ে বলা হলে তিনি বলেন “যেহেতু কোভিড-১৯ রোগটি সকলের কাছেই নতুন তাই বেশিরভাগ পরীক্ষামূলক ঔষধের কার্যকারিতায় কমতি থাকা স্বাভাবিক এবং রয়েছেও। এখন পর্যন্ত কার্যকর ঔষধ হিসেবে একমাত্র স্টেরয়েড-এরই সাফল্যের প্রমাণ রয়েছে। যদিও রেমেডেসিভির, ব্যারিসিটিনিব এবং মনোক্লোনাল অ্যান্টিবডিস সহ অন্যান্য ওষুধগুলো কয়েকটি চিকিত্সা নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষ দ্বারা অনুমোদন পেয়েছে তবে চিকিৎসার জন্য এখনও ক্লিনিকাল গাইডলাইনে রেকোমেন্ড করা হয়নি। এই ঔষধগুলোর কার্যকারিতার অনিশ্চয়তা এবং প্রয়োজনীয় তথ্যাদি না থাকার কারণে কোভিড আক্রান্তদের চিকিৎসার জন্য এগুলো ব্যবহার করা যাচ্ছে না। জাতীয় কোভিড গাইডলাইন মেনে এবং ঔষধের সকল দিক বিবেচনার পরই ঔষধ ব্যবহার ও সরবরাহ করা হচ্ছে।”

ইন্টারভেনশনাল পালমোনোলজী এবং বৈশ্বিক বাজারে এর অবস্থান কোথায়? সেই বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি উত্তরে বলেন “তুলনামূলক সাধারণ রোগের কমপ্লেক্স সার্জারীগুলোর ক্ষেত্রে মিনিমালী ইনভেসিভ প্রক্রিয়াগুলো সম্প্রতি বেশি প্রাধান্য পাচ্ছে। ইন্টারভেনশনাল পালমোনোলজী হলো পালমোনারি মেডিসিন-এর একটি দিক যা সার্জারীর প্রয়োজনীয়তা কমিয়ে ডায়াগনোসিস এবং রেসপিরেটোরি চিকিৎসাকে বেশি প্রাধান্য দেয়। শেষ দশকে ইন্টারভেনশনাল পালমোনোলজী লক্ষ্যনীয়ভাবে উন্নতি করছে।”

ব্ল্যাক ফাংগাস-এর মোকাবেলায় স্টেরয়েড-এর ভূমিকা কতটুকু জানতে চাওয়া হলে তিনি জানান “স্টেরয়েড-এর অস্বাভাবিক বা নিয়ন্ত্রণহীন ব্যবহার ব্ল্যাক ফাংগাস-এর প্রকোপ বৃদ্ধির অন্যতম কারণ। স্টেরয়েড ব্যবহারের ফলে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা দুর্বল হয়ে পড়ে এবং এর ফলে শরীরে ব্ল্যাক ফাংগাস আক্রমণের ঝুঁকি বৃদ্ধি পায়। এছাড়া স্টেরয়েড রক্তে শর্করার পরিমাণ বৃদ্ধির মাধ্যমে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা দুর্বল করে তোলে যা ব্ল্যাক ফাংগাস দ্বারা সংক্রমিত হওয়ার অন্যতম কারণ হয়ে উঠতে পারে। তবে যেসকল কোভিড রোগীদের অক্সিজেনের প্রয়োজন তাদের সুস্থ হয়ে ওঠার জন্য স্টেরয়েড ভূমিকা পালন করে। এছাড়া পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া থাকলেও, ব্ল্যাক ফাংগাসে আক্রান্ত রোগী ছাড়া অন্যান্য রোগীদেরও স্টেরয়েড ব্যবহারে মাধ্যমে উপকার হতে পারে তবে তা অবশ্যই বিশেষজ্ঞদের তত্ত্বাবধায়নে ব্যবহার করতে হবে।”  

সাক্ষাৎকারে ভারতের অন্যান্য হাসপাতাল এবং ইয়াশোদা’র মধ্যে পার্থক্য সম্পর্কে তার কাছে প্রশ্ন উপস্থাপন করা হয়। যার উত্তরে তিনি জানান “ইয়াশোদা গ্রুপ-এর হাসপাতালগুলো দীর্ঘ ৩ দশক ধরে জনগণকে উন্নতমানের স্বাস্থ্যসেবা প্রদান করে আসছে। ভারতের হায়দ্রাবাদ-এ অবস্থিত আমাদের হাসপাতালে প্রায় ২৪০০ রোগীর ধারণক্ষমতা রয়েছে এবং আমরা এই পর্যন্ত প্রায় ৭০ হাজার কোভিড আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা সেবা দিয়েছি। আমাদের হাসপাতালকে আমরা একটু ভিন্ন ধাঁচের হাসপাতাল হিসেবেই গড়ে তুলেছি এবং আমাদের হাসপাতাল স্টেট-অব-দ্য-আর্ট প্রযুক্তি দ্বারা স্বয়ংসম্পূর্ণ।”

ফুসফুস ক্যান্সার ও ডায়াগনোসিস নিয়েও তিনি বেশ কিছু কথা বলেছেন। ডা. ভিসওয়াসভারান বালাসুব্রামানিয়ান বলেন, “ডায়াগনোসিস এবং ফুসফুস ক্যান্সারে মিডিয়াস্টিনাল লিম্ফডেনোপ্যাথি নির্ণয় ও বেনিং এটিওলজীর লিম্ফডেনোপ্যাথি নির্ণয়ে নূন্যতম ইনভেসিভ ডে-কেয়ার পদ্ধতির ক্ষেত্রে এন্ডোব্রোঞ্চিয়াল আল্ট্রাসাউন্ড-গাইডেড ট্রান্সব্রোঞ্চিয়াল নিডেল অ্যাসপিরেশন (ইবিইউএস টিবিএনএস) অন্যতম পছন্দের ডায়াগনস্টিক মোডালিটি হয়ে উঠেছে। পেরিফেরাল পালমোনারি ক্ষত নির্ণয়ের ক্ষেত্রে নেভিগেশন ব্রোঙ্কোস্কোপি এবং রেডিয়াল ইবিইউএস পদ্ধতিতে বিপ্লব ঘটেছে। রিগিড ব্রোঙ্কোস্কোপি টিউমার বায়োপসি, এয়ারওয়ে রিক্যানালাইজেশন এবং স্টেন্টিংয়ের মতো অনেক জটিল পদ্ধতি সম্পন্নে সাহায্য করে। অন্যদিকে, আনডায়াগনসড প্লিউরাল এফিউশনের ক্ষেত্রে তুলনামূলক জটিল চিকিৎসা পদ্ধতি অবলম্বনের প্রয়োজনীয়তা দেখা দেয়। যা মেডিকেল থোরাকোস্কোপি দ্বারা নির্ণয় এবং পরিচালনা করা যায়। গুরুতর এবং অনিয়ন্ত্রিত শ্বাস-কষ্টের জন্য ব্রোঙ্কিয়াল থার্মোপ্লাস্টির মতো উন্নত পন্থা এবং সিওপিডি’র জন্য ব্রোঙ্কিয়াল থার্মো-ভেইপর অ্যাবলেশন পদ্ধতির মাধ্যমে শ্বাস-প্রশ্বাসে তীব্র বাধাজনিত সমস্যার চিকিত্সার পদ্ধতিতে বিপ্লব ঘটেছে।”

যেসকল রোগীরা সমস্যা নিয়ে আসে তাদের মধ্যে কোন কমন সমস্যা লক্ষ্য করা যায় কিনা সেই প্রসজ্ঞে প্রশ্ন করা হলে ডা. ভিসওয়াসভারান বালাসুব্রামানিয়ান জানান “কোভিড ছাড়াও যেসকল রোগীরা চিকিৎসা বা পরামর্শের জন্য আসে তাদের অনেকের মধ্যেই শ্বাস-প্রশ্বাস জনিত সমস্যা যেমন; সিওপিডি, অ্যাজমা, ফুসফুসের রোগ, ফুসফুস ক্যান্সার, টিউবারকুলোসিস ইত্যাদি রোগ লক্ষ্য করা যাচ্ছে। যেহেতু ইয়াশোদা হাসপাতাল একটি মাল্টি-স্পেশালিটি হেলথকেয়ার গ্রুপ, তাই জটিল নিদ্রাজনিত সমস্যাগ্রস্থ অনের রোগীই আমাদের হাসপাতালে ভীড় করছেন। আবার অনেক হাসপাতালই যেসব রোগীদের অ্যাডভান্সড ইন্টারভেনশনাল পালমোনোলজী এবং ইসিএমও সেবা প্রয়োজন হয় তাদের আমাদের কাছে আসার জন্য পরামর্শ দেয়। এছাড়া ফুসফুস, হার্ট-ফুসফুস ট্রান্সপ্ল্যান্টের জন্য আমাদের প্রতিষ্ঠানই রোগীদের প্রথম পছন্দ।”     

 

বিডি প্রতিদিন/ ওয়াসিফ

এই বিভাগের আরও খবর