Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৫ জুলাই, ২০১৯ ২৩:৫৭

কংগ্রেস নারীদের বিরুদ্ধে বর্ণবাদী ট্রাম্প

কংগ্রেস নারীদের বিরুদ্ধে বর্ণবাদী ট্রাম্প
ডোনাল্ড ট্রাম্প

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প আবারও প্রমাণ করেছেন তিনি প্রকৃত অর্থেই একজন বর্ণবাদী। রবিবার একাধিক টুইটে তিনি প্রগতিশীল হিসেবে পরিচিত চার নারী কংগ্রেস সদস্যকে নিজ দেশে ফিরে যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন। ট্রাম্প দাবি করেন, ওই নারীরা ‘এমন দেশ থেকে এসেছেন যেখানকার সরকার সম্পূর্ণ বিপর্যস্ত।’ এরপরই তিনি ওই নারীদের উদ্দেশ্যে লেখেন, ‘ফিরে যাও।’ কংগ্রেসের স্পিকার ন্যান্সি  পেলোসির সঙ্গে চারজন ভিন্ন বর্ণের কংগ্রেস সদস্যের কিছুটা বচসা হওয়ার ঘটনার পরের সপ্তাহে এমন টুইট করলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট।

এ চারজন কংগ্রেস সদস্য হলেন আলেকজান্দ্রিয়া ওকাসিও-করতেস, রাশিদা তালিব, আইয়ানা প্রেসলি ও ইলহান ওমর। এদের মধ্যে প্রথম তিনজনের জন্ম যুক্তরাষ্ট্রে, একমাত্র ওমরই সোমালিয়া থেকে এসেছেন।

ট্রাম্প কী বলেছেন : এক সঙ্গে করা তিনটি টুইটের মাধ্যমে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প কংগ্রেসের তিন নারীর বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্র ও প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে ‘ভয়ঙ্করভাবে’ সমালোচনা করার অভিযোগ তুলেছেন।

তিনি লেখেছেন : ‘খুবই অবাক লাগে দেখতে যখন ‘প্রগতিশীল’ ডেমোক্র্যাট কংগ্রেসের নারী সদস্যরা, যারা এমন দেশ থেকে এসেছেন যেখানে তাদের সরকার বিপর্যস্ত, বিশ্বের মধ্যে সবচেয়ে দুর্নীতিগ্রস্ত এবং সবচেয়ে অদক্ষ, বিশ্বের শ্রেষ্ঠ এবং সবচেয়ে ক্ষমতাশালী দেশ যুক্তরাষ্ট্রে এসে এখানকার মানুষকে বলছে কীভাবে আমাদের সরকার পরিচালনা করতে হবে।’ তিনি আরও বলেন, ‘তারা কেন তাদের নিজেদের অপরাধপ্রবণ দেশে ফিরে গিয়ে তাদের পরিস্থিতির উন্নয়ন করে না! তারপর ফিরে এসে আমাদের জানালেই পারে যে কীভাবে সে কাজ করল তারা।’ গত এক সপ্তাহব্যাপী ন্যান্সি পেলোসির সঙ্গে ওকাসিও-করতেসের কিছুটা দ্বন্দ্ব তৈরি হয়েছে।

করতেস স্পিকার ন্যান্সি পেলোসির বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছিলেন, সীমান্ত নিরাপত্তা বিল নিয়ে ডেমোক্র্যাটদের সঙ্গে দ্বন্দ্বের সময় ভিন্ন বর্ণের নারী কংগ্রেস সদস্যদের প্রতি বৈষম্যমূলক আচরণ করেছেন তিনি।

এর কী প্রতিক্রিয়া  হয়েছে : মার্কিন প্রেসিডেন্টের এমন মন্তব্যের অবশ্য নেতিবাচক সমালোচনাই বেশি হয়েছে। ডেমোক্র্যাটরা তো বটেই, রিপাবলিকান রাজনীতিবিদদেরও অনেককেই সমালোচনা করতে দেখা গেছে। স্পিকার পেলোসি প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের টুইট সম্পর্কে লিখেছেন মন্তব্যটি ‘জেনোফোবিক’ ‘(বিদেশিদের সম্পর্কে অহেতুক আতঙ্ক তৈরি করার প্রবণতা)। নিজের টুইটে পেলোসি লেখেন, ‘আমাদের বৈচিত্র্যই আমাদের শক্তি এবং একতাই আমাদের ক্ষমতা।’ সাবেক রিপাবলিকান শীর্ষ নেতা জন ম্যাককেইনের মেয়ে মেগ্যান ম্যাককেইন, যিনি নিজেও রিপাবলিকান সমর্থক কলামিস্ট, বলেন : ‘এই মন্তব্য বর্ণবাদী।’ যাদের নিয়ে ট্রাম্পের ক্ষোভ তাদের একজন তালিব এক টুইটে ট্রাম্পকে ক্ষমতাচ্যুত করার দাবি জানিয়ে লিখেছেন, একজন আইনবিরোধী ও সম্পূর্ণ ব্যর্থ  প্রেসিডেন্ট নিয়ে শুনতে চান? তিনি নিজেই একটা সংকট। আরেক কংগ্রেস সদস্য করতেস লিখেছেন, তিনি এটা মানতে চান না যে, আমেরিকা আমাদের নির্বাচিত করেছে। তার ওপর তিনি এটাও মানতে পারেন না যে, আমরা তাকে ভয় পাই না। এদিকে, প্রেজলি ট্রাম্পের প্রথম টুইটের একটি স্ক্রিনশট শেয়ার করে লিখেছেন, বর্ণবাদ দেখতে এরকম দেখায়। আর গণতন্ত্র দেখতে আমাদের মতো দেখায়।

 


আপনার মন্তব্য