শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ৩১ মার্চ, ২০২১ ২৩:৪১

মিয়ানমারে ‘আবর্জনা ধর্মঘট’

কারেন রাজ্যে বিমান হামলা দলে দলে পালাচ্ছে মানুষ

মিয়ানমারের নিরস্ত্র বিক্ষোভকারীরা প্রতিবাদ জানাতে এবার নতুন পন্থা নিয়েছেন। গত মঙ্গলবার থেকে তারা রাস্তাজুড়ে আবর্জনা ফেলে ধর্মঘট পালন করছেন। ফলে শহরের রাস্তাগুলোতে ময়লার পাহাড় জমে গেছে। একে বলা হচ্ছে, ‘আবর্জনা ধর্মঘট’। এদিকে দেশটির দক্ষিণ-পূর্বের কারেন রাজ্যে সশস্ত্র গোষ্ঠীর নিয়ন্ত্রণে থাকা এলাকায় সামরিক বাহিনী বিমান হামলা শুরু করেছে। এতে ৩ হাজারের বেশি গ্রামবাসী ঘরবাড়ি ছেড়ে পালিয়েছে। জানা গেছে, গতকাল মিয়ানমার সেনাবাহিনী থাইল্যান্ড সীমান্তবর্তী মুতরাউ  জেলার পাঁচটি এলাকায় বিমান হামলা চালায়। গৃহহীনদের একটি আশ্রয়  কেন্দ্রেও হামলা চালানো হয়। কারেন উইম্যান্স অর্গানাইজেশন এ খবর নিশ্চিত করে জানায়, এই মুহূর্তে ৩ হাজারের বেশি মানুষ বাড়িঘর ছেড়ে পালিয়ে জঙ্গলে লুকিয়ে আছে। তারা সীমান্ত অতিক্রম করে শরণার্থী হিসেবে থাইল্যান্ডে আশ্রয় নিতে চায়। আবর্জনা ধর্মঘট : মিয়ানমারে শুরু করা আবর্জনা ধর্মঘট সম্পর্কে আন্দোলনকারীরা বলছেন, এটা ‘সভ্য অবাধ্যতা’ ক্যাম্পেইন। তারা আহ্বান জানাচ্ছেন সব বড় রাস্তার মোড়ে আবর্জনা ফেলে রাখতে। সামাজিক  যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশিত পোস্টারে লেখা রয়েছে, ‘এই আবর্জনা ধর্মঘটের উদ্দেশ্য সেনা শাসনের বিরোধিতা করা। এতে সবাই অংশ নিতে পারবেন।’

গত সোমবার লাউড স্পিকারে ঘোষণা দিয়ে স্থানীয়দের শহরের প্রধান সড়কগুলোতে আবর্জনা  ফেলার আহ্বান জানানো হয়। এরপর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ছবিতে দেখা যায়, ইয়াঙ্গুনের রাস্তায় স্তরে স্তরে আবর্জনা জমা করা হচ্ছে।  দেশের সবচেয়ে বড় শহর ইয়াঙ্গুনের বেশ কিছু জায়গায় সরকারের পক্ষ থেকে লাউড স্পিকারের মাধ্যমে বাসিন্দাদের অনুরোধ করা হয় সঠিকভাবে আবর্জনা  ফেলতে। কিন্তু সবাই এই নির্দেশ অমান্য করছেন।

অন্যদিকে মিয়ানমারের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনের প্রতিবেদনে বিক্ষোভকারীদের ‘সহিংস সন্ত্রাসী’ হিসেবে উল্লেখ করে বলা হয়েছে, তাদের ছত্রভঙ্গ করতে ‘দাঙ্গাবিরোধী অস্ত্র’ ব্যবহার করেছে নিরাপত্তা বাহিনী।


আপনার মন্তব্য