শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ১০ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ৯ এপ্রিল, ২০২১ ২৩:৪৪

ব্রিটেনের রানীর ৭৩ বছরের জীবনসঙ্গী প্রিন্স ফিলিপ

ব্রিটেনের রানীর ৭৩ বছরের জীবনসঙ্গী প্রিন্স ফিলিপ
১৯৪৭ সালের ২৫ নভেম্বর রানী এলিজাবেথ ও প্রিন্স ফিলিপ হ্যামশায়ারের ব্রডল্যান্ডে হানিমুন কাটানোর সময় -এএফপি

ব্রিটেনের রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথ ও প্রিন্স ফিলিপ বা ডিউক অব এডিনবরার দাম্পত্য জীবন ৭৩ বছরের। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর ব্রিটিশ রাজপরিবারের গুরুত্বপূর্ণ একজন ব্যক্তিতে পরিণত হন তিনি। রানীর জীবনসঙ্গী হলেও ফিলিপের কোনো সাংবিধানিক দায়িত্ব ছিল না। কিন্তু রাজপরিবারের এত ঘনিষ্ঠ ও গুরুত্বপূর্ণ তিনি ছাড়া আর কেউ ছিলেন না। রানীর আদেশেই ব্রিটিশ রাজতন্ত্রে এক সময় তিনি হয়ে ওঠেন দ্বিতীয় গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি।

জন্ম ও লেখাপড়া : ডিউক অব এডিনবরার জন্ম গ্রিসের রাজপরিবারে ১৯২১ সালের ১০ জুন। তাঁর পিতা ছিলেন গ্রিসের প্রিন্স অ্যান্ড্রু আর মা ব্যাটেনবার্গের প্রিন্সেস অ্যালিস। বাবা মায়ের সন্তানদের মধ্যে তিনিই ছিলেন একমাত্র ছেলে। খুবই আদরে কেটেছে তাঁর শিশুকাল। তাঁর জন্মের এক বছর পর ১৯২২ সালে এক অভ্যুত্থানের পর বিপ্লবী এক আদালতের রায়ে প্রিন্স ফিলিপের পিতার পরিবারকে গ্রিসের ওই দ্বীপ থেকে নির্বাসনে পাঠানো হয়। তাঁর কাজিন রাজা পঞ্চম জর্জ তাদের উদ্ধার করে আনতে একটি ব্রিটিশ যুদ্ধজাহাজ পাঠান, যে জাহাজে করে সেখান থেকে তাদের নিয়ে যাওয়া হয় ফ্রান্সে। ফ্রান্সে লেখাপড়া শুরু করার পর সাত বছর বয়সে তিনি ইংল্যান্ডে মাউন্টব্যাটেন পরিবারে তাঁর আত্মীয়স্বজনদের কাছে চলে আসেন এবং এরপর তাঁর স্কুলজীবন কাটে ইংল্যান্ডে।

এলিজাবেথের সঙ্গে সাক্ষাৎ : প্রিন্স ফিলিপ যখন ডার্টমাথে ব্রিটানিয়া রয়্যাল নেভাল কলেজের ক্যাডেট, তখন ওই কলেজ পরিদর্শন করেন রাজা ষষ্ঠ জর্জ এবং রানী এলিজাবেথ, সঙ্গে ছিলেন তাঁদের দুই কিশোরী কন্যা প্রিন্সেস এলিজাবেথ ও প্রিন্সেস মার্গারেট।

ওই সফরে দুই কিশোরী প্রিন্সেসের সাথী হয়ে তাঁদের সঙ্গ দেন প্রিন্স ফিলিপ। তরুণ প্রিন্স ওই সফরে ১৩ বছরের প্রিন্সেস এলিজাবেথের মনে গভীর ছাপ ফেলেছিলেন। সেটা ছিল ১৯৩৯ সাল। ১৯৪২ সালের অক্টোবরের মধ্যে প্রিন্স ফিলিপ হয়ে ওঠেন রয়্যাল নেভির তরুণতম ফার্স্ট লেফটেন্যান্ট। এই সময় তারা দুজন প্রচুর চিঠি চালাচালি করেছেন। বেশ কয়েকবার রাজপরিবারের সঙ্গে থাকার আমন্ত্রণও পেয়েছেন তিনি। তাঁদের সম্পর্ক গভীর হয়ে ওঠে যুদ্ধ পরবর্তী দিনগুলোতে। কিন্তু তাঁদের এই সম্পর্কের বিরোধিতা করেছিলেন রাজপরিবারের কেউ কেউ। কিন্তু প্রিন্সেস এলিজাবেথ বেশ ভালোভাবেই ফিলিপের প্রেমে পড়ে গিয়েছিলেন। ১৯৪৬ সালে ফিলিপ রাজার কাছে গিয়ে তাঁর কন্যাকে বিয়ে করার প্রস্তাব দেন এবং প্রথম সাক্ষাতের আট বছর পর তাঁরা বিয়ে করেন। বিয়ের আগে ব্রিটিশ নাগরিকত্ব নিতে হয় ফিলিপকে। গ্রিক পদবি বাদ দিয়ে তিনি নেন মায়ের ইংরেজ পদবি মাউন্টব্যাটেন। ওয়েস্টমিনস্টার গির্জায় ১৯৪৭ সালের ২০ নভেম্বর তারা বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। সেই সময় উইনস্টন চার্চিল বলেছিলেন যুদ্ধ-পরবর্তী ব্রিটেনের ধূসর দিনগুলোতে ওই বিয়ে ছিল ‘রঙের ঝলকানি।’

বাবা হিসেবে ফিলিপ : বাবা হিসেবে বেশ কড়া ছিলেন ডিউক। অনেকে মনে করতেন তিনি ছেলেমেয়েদের ব্যাপারে স্পর্শকাতর নন। প্রিন্স চার্লসের জীবনীকার জনাথান ডিম্বলবি লিখেছেন- তাঁর অল্প বয়সে সবার সামনে বাবা তাঁকে এমনভাবে তিরস্কার করতেন যে তাঁর চোখে জল এসে যেত। বাবা ও বড় ছেলের সম্পর্ক কোনো সময়ই সহজ ছিল না।

স্পষ্ট বক্তা ফিলিপ : সোজাসাপ্টা কথা বলতে অভ্যস্ত ছিলেন প্রিন্স ফিলিপ যা ভাবতেন তাই বলতেন, যা অনেকের জন্য অনেক সময় শুধু মনোকষ্টের কারণই যে হতো তা নয়, তাঁকে অনেক সময় ফেলত সমালোচনার মুখে। তাঁর সমালোচকদের অভিযোগ ছিল যে, কোথায় কী বলতে হয় সে কৌশল তিনি জানেন না। রানীর সঙ্গে ১৯৮৬ সালে চীন সফরের সময় তাঁর এক মন্তব্য তীব্র বিতর্কের জন্ম দিয়েছিল। চীনে ব্রিটিশ শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে তিনি বলেছিলেন, ‘তোমরা যদি এখানে খুব বেশি দিন ধরে থাক তাহলে তোমাদের চোখও চীনাদের মতো ছোট ছোট হয়ে যাবে।’

চীনারা এই মন্তব্য নিয়ে তেমন শোরগোল না করলেও পত্রপত্রিকাগুলো এই খবর নিয়ে দারুণ হৈচৈ করেছিল।

২০০২ সালে অস্ট্রেলিয়া গিয়ে ডিউক অ্যাবোরোজিন আদিবাসী সম্প্রদায়ের এক ব্যবসায়ীকে জিজ্ঞাসা করেছিলেন, ‘তোমরা কি এখনো একে অপরকে তীর ছুড়ে মারো?’ অনেকে মনে করতেন তিনি কথাবার্তার সময় অসতর্ক, অবিবেচক, অনেকে আবার বলতেন তিনি রেখেঢেকে সাজিয়ে গুছিয়ে কথা বলেন না। ফলে তাঁর সহজ সরল কথাবার্তা দিয়ে তিনি মানুষের আরও কাছে পৌঁছতে পারেন।

 

পরিবারের শক্তি : সাংবাদিক জনাথান ডিম্বলবির লেখা চার্লসের জীবনীগ্রন্থটি প্রকাশ পাওয়ার পর তাঁর বড় ছেলে প্রিন্স চার্লসের সঙ্গে তাঁর টানাপড়েনের কথা প্রথম জনসমক্ষে আসে। বলা হয়, ডিউক অব এডিনবরাই প্রিন্স চার্লসকে লেডি ডায়ানা স্পেনসারকে বিয়ে করার জন্য চাপ দিয়েছিলেন। কিন্তু সন্তানদের বিয়ে নিয়ে সমস্যার সময় আবার তিনিই সবচেয়ে বেশি তাদের পাশে দাঁড়িয়েছেন। তাঁর চার সন্তানের মধ্যে তিনজনের বিয়ে ভেঙে যাওয়ার বিষয়টি তাঁকে পীড়া দিয়েছিল অনেক, কিন্তু এমনকি তাঁর সন্তানদেরও ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে সংবাদমাধ্যমে কথা বলতে তিনি অস্বীকার করেছেন সব সময়। তবে বলা হয়, ডায়ানার প্রতি রাজপরিবারের ভিতর সবচেয়ে বেশি সমর্থন ছিল তাঁর শ্বশুর ডিউক অব এডিনবরার। ডায়ানার তাঁকে লেখা চিঠির উষ্ণ ভাষা ও ‘ডিয়ার পা’ সম্বোধন থেকে তা স্পষ্ট বলে অনেক রাজপরিবার বিষয়ক বিশেষজ্ঞ মন্তব্য করেছেন।

শেষ জীবন : ২০১১ সালের জুন মাসে, নব্বইতম জন্মদিনের সময় তিনি খুব খোলামেলাভাবেই তাঁর বয়স বেড়ে যাওয়ার বাস্তবতার কথা স্বীকার করেছিলেন। বিবিসিকে তিনি বলেন যে, তিনি তাঁর কাজের চাপ কমিয়ে আনছেন। ‘আমি মনে করি আমার কাজটা আমি করেছি। এখন নিজের জীবন কিছুটা উপভোগ করতে চাই। কম দায়দায়িত্ব, কম দৌড়াদৌড়ি, তারপর কী বলতে হবে সেটা নিয়েও কম ভাবতে হবে। তার ওপরে স্মৃতিশক্তি তো দুর্বল হয়ে যাচ্ছে। অনেক কিছুই আমি মনে করতে পারি না। আমি তো অনেকটাই নিজেকে গুটিয়ে আনছি।’ রানী বলেছেন, তাঁর শক্তির বড় উৎস ছিলেন প্রিন্স ফিলিপ। ব্রিটিশ ইতিহাসে

  রাজপরিবারে রাজা বা রানীর জীবনসঙ্গীর মধ্যে সবচেয়ে বেশি সময় বেঁচেছিলেন প্রিন্স ফিলিপ। ব্রিটেনের জনজীবনেও তাঁর বিশাল অবদান রয়েছে। ব্রিটেনের রাজতন্ত্রকে পরিবর্তনশীল সমাজের সঙ্গে খাপ খাইয়ে নেওয়ার ব্যাপারে অনেক বছর ধরেই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন ডিউক অব এডিনবরা। ফিলিপ শারীরিক অসুস্থতার কারণে লন্ডনের কিং এডওয়ার্ড হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন ১৬ ফেব্রুয়ারি। পরে লন্ডনের সেন্ট বার্থলোমিউ হাসপাতালে পুরনো হৃদযন্ত্রের সমস্যার কারণে তাঁর সফল অস্ত্রোপচারও হয়েছিল। প্রায় এক মাস চিকিৎসার পর তিনি উইন্ডসর ক্যাসেলে ফিরে যান। সেখানেই আজ তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

এই বিভাগের আরও খবর