শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ২৬ এপ্রিল, ২০১৬ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৫ এপ্রিল, ২০১৬ ২৩:৫৩

তনুর বাবা-ভাইকে এবার পিবিআইর জিজ্ঞাসাবাদ

কুমিল্লা প্রতিনিধি

তনুর বাবা-ভাইকে এবার পিবিআইর জিজ্ঞাসাবাদ

ভিক্টোরিয়া কলেজছাত্রী ও নাট্যকর্মী সোহাগী জাহান তনুর বাবা ইয়ার হোসেন ও ছোট ভাই আনোয়ার হোসেনকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন—পিবিআিই। গতকাল বেলা ১১টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত তাদের পিবিআইর কুমিল্লা নগরীর হাউজিং এস্টেট কার্যালয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। এ বিষয়ে পিবিআই কুমিল্লার কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে তনুর বাবা ইয়ার হোসেন জিজ্ঞাসাবাদের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, সিআইডি, ডিবি যেসব বিষয়ে জানতে চেয়েছে পিবিআইও একই বিষয় জানতে চেয়েছে। তিনি দ্রুত মেয়ে হত্যার বিচার চেয়েছেন। এদিকে প্রগতিশীল ছাত্র জোটের ডাকা অর্ধদিবস হরতাল কুমিল্লা নগরীতে ঢিলেঢালাভাবে পালিত হয়েছে। সকালে নগরীতে বিভিন্ন সংগঠন হরতালের সমর্থনে র‌্যালি ও মানববন্ধন করেছে। পরে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে তারা বলেন, মানুষ এখন মগের মুলুকে বসবাস করছে। তনু হত্যাকাণ্ডের ৩৬ দিন পার হলেও মানুষ বিচারের মুখ দেখেনি। একজন খুনিকেও গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। এটা জাতির জন্য এক কলঙ্কজনক ঘটনা। তারা বলেন, দ্বিতীয় ময়নাতদন্তের প্রতিবেদনও দেওয়া হচ্ছে না। এটাও একটা চক্রান্তের অপচেষ্টা বলে দাবি করেন তারা। অবিলম্বে তনুর খুনিদের নাম প্রকাশ করে তাদের বিচারের জোর দাবি জানান হরতালকারীরা। তারা বলেন, তনুসহ অব্যাহত গুম, খুন, ধর্ষণ ও বিচারহীনতার বিরুদ্ধে সবাইকে সোচ্চার হতে হবে। প্রগতিশীল ছাত্র জোট কুমিল্লা জেলা সংসদ, বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন কুমিল্লা জেলা শাখা, প্রতিবাদী ছাত্র শিক্ষক জনতার ব্যানারে আয়োজিত এ হরতাল পালিত হয়। হরতালে নেতৃত্ব দেন ছাত্র ইউনিয়নের যুগ্ম সম্পাদক আবু সাঈদ, প্রগতিশীল ছাত্র জোটের সমন্বয়ক সুজন চক্রবর্তী, রাজপথের প্রতিবাদী কণ্ঠের যুগ্ম সম্পাদক এস বি জুয়েল, ছাত্র ইউনিয়নের সাবেক সাধারণ সম্পাদক কিংকর চন্দ, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্টের নেত্রী ফারজানা ফারিয়া প্রমুখ। উল্লেখ্য, ২০ মার্চ রাত সাড়ে ১০টার দিকে কুমিল্লা সেনানিবাসের বাসার কাছ থেকে তনুর লাশ উদ্ধার করেন তার বাবা ইয়ার হোসেন। পরদিন দুপুরে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে লাশের প্রথম ময়নাতদন্ত হয়। প্রথম ময়নাতদন্তে তনুকে হত্যার আগে ধর্ষণের আলামত পাওয়া যায়নি এবং মৃত্যুর সুনির্দিষ্ট কারণও পাওয়া যায়নি বলে জানিয়েছিলেন চিকিৎসকরা। দ্বিতীয় ময়নাতদন্তের জন্য ৩০ মার্চ তনুর লাশ কবর থেকে তোলা হয়। এখনো দ্বিতীয় ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পাওয়া যায়নি। মামলাটি বর্তমানে সিআইডি তদন্ত করছে। ঘটনার ৩৬ দিনেও পুলিশ হত্যাকারীকে শনাক্ত করতে পারেনি।

হরতালে শাহবাগ ও মহাসড়ক অবরোধ : কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজের ছাত্রী সোহাগী জাহান তনু হত্যার প্রতিবাদে গতকাল সারা দেশে অর্ধদিবস হরতাল কর্মসূচির সময় রাজধানীর শাহবাগে সড়ক অবরোধ করা হয়। বন্ধ করে দেওয়া হয় ঢাকা-আরিচা মহাসড়ক। কুমিল্লা ও বরিশালেও রাস্তা অবরোধ করা হয়। প্রগতিশীল ছাত্র জোট ও সাম্রাজ্যবাদ বিরোধী ছাত্র ঐক্যের ব্যানারে এ হরতাল কর্মসূচি পালিত হয়।

কর্মসূচি চলার সময় অন্তত ৩০ জনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। এ ছাড়া পুলিশের লাঠিচার্জে হরতাল সমর্থক শতাধিক শিক্ষার্থী আহত হয়েছেন। এর প্রতিবাদে আজ মঙ্গলবার সারা দেশে বিক্ষোভ কর্মসূচির ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। বলা হয়েছে, আজ দুপুর ১২টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিন থেকে বিক্ষোভ মিছিল শুরু হবে।

গতকালের কর্মসূচি অনুযায়ী, সকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) টিএসসি মোড় থেকে মিছিল নিয়ে শাহবাগ মোড়ে আসেন হরতাল সমর্থকরা। তারা শাহবাগ মোড়ে অবস্থান নিলে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এতে রূপসী বাংলার মোড়, মত্স্য ভবন, টিএসসি, কাঁটাবন ?ও এর আশপাশের এলাকায় তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়। দুপুরে সংগঠন দুটির নেতা-কর্মীরা শাহবাগ মোড়ের রাস্তা থেকে সরে গেলে যান চলাচল স্বাভাবিক হতে শুরু করে। হরতাল সমর্থকরা কর্মসূচি শেষে শাহবাগ মোড় থেকে মিছিল নিয়ে ঢাবির টিএসসি মোড়ের দিকে চলে যান। এ ছাড়া কলাবাগানে নিউ মডেল বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের সামনে, পল্টন ও মতিঝিল এলাকায় মিছিল ও সমাবেশ হয়েছে। হরতালে ঢাকায় কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। ছাত্রগণমঞ্চের সভাপতি সাইফ বিলাস বলেন, দেশে ফ্যাসিবাদী শাসন চলছে। ছাত্রফ্রন্টের সভাপতি মনিকা বলেন, নারীর প্রতি সহিংসতার জন্য এ হরতাল। বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশনের সভাপতি সৈকত মল্লিক বলেন, ক্ষমতাসীন দল আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে জনগণের বিরুদ্ধে লাগিয়ে বিচারহীনতার সংস্কৃতি চালু করেছে। সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্টের সভাপতি ইমরান বলেন, দেশে এখন কেউ নিরাপদ নয়। ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি লাকী আক্তার বলেন, বিচারহীনতার অপসংস্কৃতি চলছে। প্রতিটি হত্যাকাণ্ডের বিচার না করায় হত্যাকাণ্ড বেড়েই চলেছে।

পুলিশের রমনা বিভাগের এডিসি ইব্রাহিম খান বলেন, তনু হত্যার প্রতিবাদে সকাল থেকেই শাহবাগ মোড়ে অবস্থান নেয় হরতাল সমর্থকরা। পরে সকাল ১০টার দিকে সংগঠনটির নেতা-কর্মীরা রাস্তা অবরোধ করেন। তারা পিকেটিং শুরু করলে রাস্তা থেকে সরে যাওয়ার অনুরোধ করা হয়। কিন্তু তারা রাস্তায় শুয়ে পড়ে অবরোধ অব্যাহত রাখেন। বেলা ১২টার দিকে হরতাল সমর্থকরা শাহবাগ মোড় থেকে সরে গেলে যান চলাচল স্বাভাবিক হতে শুরু করে।

সংগঠন দুটির সমন্বয়ক ও বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল আলম সোহেল জানান, তনুসহ অব্যাহত গুম-খুন-ধর্ষণ ও বিচারহীনতার প্রতিবাদে অর্ধ দিবস হরতাল পালিত হয়েছে। এ সময় সারা দেশ থেকে পুলিশ ৩০ জনকে গ্রেফতার করে। এ ছাড়া পুলিশের হামলায় হরতাল সমর্থক শতাধিক শিক্ষার্থী আহত হয়েছেন।

জাবি প্রতিনিধি জানান, তনু হত্যার বিচার দাবিতে ভোর ৬টা থেকে সকাল ৮টা পর্যন্ত ঢাকা-আরিচা মহাসড়ক অবরোধ করেন প্রগতিশীল ছাত্রজোট ও সাম্রাজ্যবাদ বিরোধী ছাত্র ঐক্যের নেতা-কর্মীরা। এ সময় রাস্তার দুই পাশে শত শত বাস, ট্রাক, মোটরসাইকেল ও ব্যক্তিগত গাড়ি আটকা পড়ে। এ ঘটনায় পুলিশ আন্দোলনরত শিক্ষার্থীকে রাস্তা থেকে সরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করলে বাগিবতণ্ডা হয়। পরে পুলিশ লাঠিচার্জ করে ১১ নেতা-কর্মীকে আটক করে। এতে ১০ জন আহত হয়। আটককৃতরা হলেন, সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট জাবি শাখার ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাসুক হেলাল অনীক, সাধারণ সম্পাদক সুস্মিতা মরিয়ম, প্রচার সম্পাদক আবদুল খালেক উজ্জ্বল, ছাত্র ইউনিয়ন জাবি সংসদের সাধারণ সম্পাদক আবিদ সরকার সোহাগ, দফতর সম্পাদক সিয়াম, কার্যকরী সদস্য রাকিব হাসান এবং বিভিন্ন সংগঠনের জিসান জামিল, তানজিলা হক, মাহাথির মোহাম্মদ, চন্দনদীপ মিত্র ও মিতুল মাহমুদ।

এ ঘটনায় আটককৃতদের মুক্তি ও  প্রক্টরের পদত্যাগ দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবন অবরোধ করেন শিক্ষার্থীরা। ফলে ভিসি অধ্যাপক ড. ফারজানা ইসলাম, প্রোভিসি অধ্যাপক ড. আবুল হোসেন, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. আবুল খায়ের, প্রক্টর অধ্যাপক ড. তপন কুমার সাহাসহ প্রশাসনিক কর্মকর্তা-কর্মচারীরা অবরুদ্ধ হয়ে পড়েন। বেলা সাড়ে ১০টা থেকে দুপুর আড়াইটা পর্যন্ত প্রশাসনিক ভবন বন্ধ করে দিয়ে মিছিল-সমাবেশ করে তারা। একপর্যায়ে ভিসি অধ্যাপক ড. ফারজানা ইসলাম পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের ফোন করে আটককৃতদের মুক্তির ব্যবস্থা করেন।

নারায়ণগঞ্জ : হরতালের পক্ষে নারায়ণগঞ্জ শহরের বঙ্গবন্ধু সড়কে মিছিল করেছেন বিভিন্ন বামপন্থি ছাত্র সংগঠনের নেতা-কর্মীরা। সকাল পৌনে সাতটায় নারায়ণগঞ্জ শহরের ডিআইটি বাণিজ্যিক এলাকা থেকে প্রগতিশীল ছাত্র জোট হরতালের পক্ষে প্রথম মিছিল বের করে। মিছিলটি চাষাঢ়ার দিকে যাওয়ার সময় স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড (সাবেক গ্রিন্ডলেজ ব্যাংক) মোড় এলাকায় পুলিশ লাঠি চার্জ করে। এতে মিছিলটি ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়। এদিকে হরতালের কারণে সকালে যানবাহন চলাচল কম থাকলেও পরে চলাচল স্বাভাবিক হয়।

দিনাজপুর : হরতালের কারণে দিনাজপুর পৌর শহরের দোকান-পাট, ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ছিল। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ব্যাপক টহল ছিল। তবে কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। ফুলবাড়ীতেও অর্ধ দিবস হরতাল পালিত হয়েছে। হরতাল সফল করতে সকাল থেকে ফুলবাড়ী শহরের নিমতলা মোড় এবং দিনাজপুর-ঢাকা মহাসড়কের ওপর পথসভা করেন হরতাল আহ্বানকারীরা। এ সময় নেতা-কর্মীরা রাস্তার ওপর বসে পড়ে ব্যারিকেড সৃষ্টি করায় সব প্রকার যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকে। বেলা সাড়ে ১১টায় পথসভা শেষ হলে পুনরায় যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক হয়।

বরিশাল : অর্ধদিবস হরতাল চলার সময় বরিশালে সড়ক অবরোধ করায় হরতালকারীদের ওপর লাঠিচার্জ করেছে পুলিশ। গতকাল সকাল সাড়ে ৯টার দিকে নগরীর অশ্বিনী কুমার হলের সামনে সদর রোড অবরোধ করেন হরতালকারীরা। একপর্যায়ে পুলিশ তাদের ওপর লাঠিচার্জ করে। এতে জেলা ছাত্র ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক এবি সিদ্দিকসহ চারজন আহত হন। এর আগে সকাল ৬টা থেকে নগরীর সদর রোড, জেলখানা মোড়, লাইন রোড ও ডাচ্-বাংলা মোড় এলাকায় মিছিল করেন হরতাল সমর্থকরা।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর