শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ১০ আগস্ট, ২০১৬ ০০:০০ টা
আপলোড : ৯ আগস্ট, ২০১৬ ২৩:৫৬

ঐতিহ্য

শত বছরের মুসাফিরখানা

বাবুল আখতার রানা, নওগাঁ

শত বছরের মুসাফিরখানা
Google News

দূর-দূরান্তের পথিকের রাত কাটানোর জন্য একসময় প্রচলন ছিল মুসাফিরখানার। সেখানে পথিকের জন্য থাকত থাকা আর খাওয়ার সুব্যবস্থা। ১৯০৮ সালে প্রতিষ্ঠিত এমনই একটি মুসাফিরখানা এখনো টিকে আছে নওগাঁর পোরশায়। সেখানে রয়েছে বিনামূল্যে থাকা-খাওয়ার সুব্যবস্থা।

শত বছরের আগের কথা। হেঁটে চলেন পথিক। মেঠো পথ। উঁচু-নিচু বরেন্দ্র ভূমি। বন-জঙ্গলে ঘেরা। চলতে চলতে দুপুর হয়। নামে সন্ধ্যা। পথে বাঘের ভয়, চোর-ডাকাতের উপদ্রব। শ্রান্ত মানুষ আশ্রয়ের সন্ধানে লোকালয় খোঁজে। কারও ভাগ্যে নিরাপদ আশ্রয় মেলে। কেউ আবার পড়ে ভোগান্তিতে। মানুষের এই দুর্ভোগের কথা ভেবে তৎকালীন পোরশার জমিদার খাদেম মোহাম্মদ শাহ তৈরি করলেন একটি মাটির ঘর। সেই ঘরের নাম দিলেন ‘মুসাফিরখানা’। এই মুসাফিরখানায় পথিকরা শুধু নিরাপদে রাত যাপন করবেন তা নয়, খাওয়া-দাওয়া করতে পারবেন কোনো ধরনের খরচাপাতি ছাড়া। মুসাফিরখানার সব খরচ চালানোর জন্য তিনি লিখে দিলেন সেই সময় ৮০ বিঘা জমি। এতে কাজ হলো। সুন্দর রাস্তাঘাট আর দ্রুতগামী যানবাহনের এ যুগেও টিকে আছে জেলার একমাত্র এই মুসাফিরখানা। আগের মতোই এখনো এটি স্বাগত জানায় দূর-দূরান্তের পথিকদের। খাদেম মোহাম্মদ শাহর নাতির ছেলে নাজিব চৌধুরী বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, এখানকার মাটি ও মানুষের সঙ্গে তাদের সখ্য গড়ে ওঠে বহু আগে। তারা আর এ গ্রাম ছেড়ে যেতে পারেননি। ভালোবেসে গ্রামের নাম দেন ‘পোরশা’। গ্রামের নামে উপজেলার নাম হলেও উপজেলা সদর এ গ্রাম থেকে পাঁচ কিলোমিটার দূরে নিতপুরে। পোরশা উপজেলা সদর থেকে প্রায় ১০ কিলোমিটার দূরে বেজোড়া নামক স্থান। আঁকাবাঁকা অনেক পথ পার হলে একটি বাজার। নাম তার মিনা বাজার। বাজারের পাশেই মসজিদের ওপারে মুসাফিরখানা। মসজিদ পার হয়েই মুসাফিরখানার লম্বা দোতলা ভবন। সেই মুসাফিরখানায় পাচক হিসেবে ছিলেন আনুমানিক ৬১ বছর বয়সী এক বৃদ্ধ। নাম তার মিছির উল্লাহ। সেখানকার ম্যানেজার হিসেবে দায়িত্বে রয়েছেন সিরাজুল ইসলাম। তিনি ১৮ বছর ধরে মুসাফিরখানার ম্যানেজারের দায়িত্ব পালন করে আসছেন। সেই মুসাফিরখানার একটি কক্ষে তার অফিস। সেখানকার তাকিয়ার ওপর একগাদা রেজিস্টার খাতা রয়েছে। তিনি বলেন, ‘এই মুসাফিরখানায় থাকা ও খাওয়ার কোনো অসুবিধা নাই। তবে এখানে সন্ধ্যার পর এলে থাকা যাবে কিন্তু খাওয়ার ব্যবস্থা করা যাবে না। কারণ বিকালেই খাওয়ার মিল দেওয়া হয়ে যায়। তবে মিনা বাজারে খাওয়ার হোটেল রয়েছে। সেখানে রাত ১২টা পর্যন্ত হোটেল খোলা থাকে। কোনো সমস্যা হয় না।’ এলাকার বেশ কয়েকজন বৃদ্ধের সঙ্গে কথা বলে জানা গেল, নওগাঁ জেলা শহর থেকে ৬৫ কিলোমিটার পশ্চিমে পোরশা উপজেলা। ‘পোরশা’ ফারসি শব্দ। এর অর্থ পবিত্র ভূমি। খাদেম মোহাম্মদ শাহর পূর্বপুরুষরা ইরান থেকে ধর্ম প্রচারের জন্য বহু বছর আগে এ গ্রামে এসেছিলেন। সপ্তদশ শতকের কোনো একসময় তৎকালীন বাদশাহ আলমগীরের (আওরঙ্গজেব) আমলে ইরান থেকে হিজরত করে বাংলাদেশের বরিশালে আসেন শাহ বংশের কয়েকজন মুরব্বি। এদের মধ্যে ফাজেল শাহ, দ্বীন মোহাম্মদ শাহ, ভাদু শাহ, মুহিদ শাহ, জন মোহাম্মদ শাহ, খান মোহাম্মদ শাহ অন্যতম। পরবর্তী সময়ে বরিশাল থেকে তারা আসেন বর্তমান পোরশা সদরে। যদিও তখন এখানে কোনো বসতবাড়ি ছিল না। ছিল শুধু বন আর গভীর জঙ্গল। সে সময় তাদের এ এলাকাটি ভালো লাগায় তারা এখানে ঘরবাড়ি নির্মাণ করে বসবাস শুরু করেন। এদের মধ্যে কয়েকজনের সঙ্গে স্ত্রী-সন্তানও ছিল। পরে তাদের এক পরিবারের ছেলের সঙ্গে অন্য পরিবারের মেয়ের বিয়ে দিয়ে বংশ বিস্তার করান। এ প্রথাটি, অর্থাৎ নিজেদের বংশের মধ্যে ছেলে-মেয়ের বিয়ে দেওয়ার প্রথাটি এখনো চালু রয়েছে সেখানে। এখানে বসবাস করার পর থেকে এ এলাকার অনেক জমাজমি পেয়ে তাদের পরবর্তী প্রজন্ম বংশ পরম্পরায় জমিদারি করেন। এখনো সেখানে রয়েছে তাদের প্রজন্ম। তাদেরই বংশধর খাদেম মোহাম্মদ শাহ, যিনি মুসাফিরখানাটি নির্মাণ করান।

মুসাফিরখানার ইতিহাস সম্পর্কে জানতে চাইলে ম্যানেজার সিরাজুল ইসলাম জানালেন, এ সম্পর্কে ভালো বলতে পারবেন মুসাফিরখানা পরিচালনা কমিটির কোষাধ্যক্ষ জ্ঞানা হুজুর। জ্ঞানা হুজুরের ভালো নাম আলহাজ শরিফ উদ্দিন শাহ। জ্ঞানী লোক বলে এলাকায় তিনি জ্ঞানা হুজুর নামেই পরিচিত। তিনি পাশের আল-জামিয়া আল-আরাবিয়া দারুল হেদায়া মাদ্রাসার অধ্যক্ষ। মাদ্রাসার ভিতর প্রবেশ করলেই মনে হবে, যেন বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রবেশ করেছি। এ সম্পর্কে জানতে চাইলে জ্ঞানা হুজুর বলেন, ‘এটা তো বিশ্ববিদ্যালয়ই। আল-জামিয়া মানেই বিশ্ববিদ্যালয়। এটি পরিচালনার জন্য বছরে দুই কোটি টাকার দরকার পড়ে। মাদ্রাসার এক হাজার বিঘা জমি রয়েছে। তাতেও হয় না। এলাকার লোকের সহযোগিতায় এটি পরিচালিত হয়। এখানে আবাসিক ছাত্রই রয়েছে ১ হাজার ১৫০ জন।’ মুসাফিরখানা সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘১৯০৮ সালে প্রতিষ্ঠার পর দীর্ঘ ৮০ বছর মুসাফিরখানাটি মাটির ঘরই ছিল। ১৯৮৮ সালে প্রতিষ্ঠানটির আয় দিয়েই এখনকার ভবনটি পাকা করা হয়। এর নিচতলার একাংশে মার্কেট। দোতলার একাংশ সম্প্রসারণ করে ওপরে কমিউনিটি সেন্টারের ব্যবস্থা করা হয়েছে। সেখানে রাখা হয়েছে গাড়ি পার্কিংয়ের ব্যবস্থা। বিদেশিরা এলেও সেখানেই গাড়ি রাখেন। বিভিন্ন সামাজিক অনুষ্ঠানে কমিউনিটি সেন্টার ভাড়া দেওয়া হয়। কিন্তু রাজনৈতিক অনুষ্ঠানের জন্য এটি ভাড়া দেওয়া হয় না। একসঙ্গে ৫০ থেকে ৬০ জন থাকতে পারে এই মুসাফিরখানায়। সারা বছরই কমবেশি অতিথি থাকেন এখানে। সারা দেশের বিভিন্ন মাদ্রাসার লোক পোরশায় জাকাত আদায় করতে আসেন। অতিথি হিসেবে তাদের থাকা-খাওয়ার সব দায়িত্ব মুসাফিরখানা থেকে পালন করা হয়। এ ছাড়া প্রতি বুধবার দুপুরে স্থানীয় দুস্থ লোকদের জন্য বিশেষ খানার আয়োজন করা হয়।’ তিনি বলেন, ‘পাশেই মুসাফিরখানার প্রতিষ্ঠাতা খাদেম মোহাম্মদ শাহর বাড়ি অবস্থিত। তার উত্তরপুরুষদের বেশির ভাগই বাইরে থাকেন। কেউ লন্ডন, কেউ ঢাকায়, কেউবা রাজশাহীতে। জমিদারবাড়ির একাংশ ছাড়া সবই ধ্বংসস্তূপ। খাদেম মোহাম্মদ শাহর ছেলে মেহেদী শাহর নাতি মাহবুবুর রহমান শাহ চৌধুরী। জমিদারবাড়ির একটি ঘর তারা স্মৃতি হিসেবে বাসযোগ্য করে রেখেছেন। বাকি সব ভেঙে নতুন করে করা হয়েছে। মেহেদী শাহর অন্য নাতি নাজিব শাহ চৌধুরী তার অংশে নতুন করে বাড়ি তৈরি করেছেন। বর্তমানে তিনি রাজশাহীতে থাকেন।’ মুসাফিরখানার প্রতিষ্ঠাতা খাদেম মোহাম্মদ শাহর উত্তরপুরুষ নাজিব শাহ চৌধুরী বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘আমার বয়স ৬১ চলছে। আমি দেখেছি একসময় মুসাফিরখানার পাশে গরুর গাড়ি কাদায় ডুবে যেত। এ এলাকায় রাস্তাঘাট বলে কিছু ছিল না। রাজশাহী যেতে হলে ভোরে গরুর গাড়ি নিয়ে বের হয়ে বিকালে চাঁপাইনবাবগঞ্জের রহনপুরে গিয়ে ট্রেনে উঠতে হতো। রাজশাহী পৌঁছতে পৌঁছতে রাত হয়ে যেত। বর্ষার সময় রহনপুরে যেতে হতো পুনর্ভবা নদী হয়ে। ১০০ বছর আগে এ এলাকার যোগাযোগব্যবস্থা কেমন ছিল এ থেকেই অনুমান করা যায়। সেই সময় পথচারীদের দুর্ভোগের কথা ভেবেই তৈরি করা হয়েছিল এই মুসাফিরখানা।’ পোরশা সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান তৌফিকুর রহমান শাহ চৌধুরী বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘এটি আমাদেরই প্রতিষ্ঠান। অনেক আগে যখন গাড়িঘোড়া ছিল না, রাস্তাঘাট ভালো ছিল না, বেশির ভাগ মানুষ হেঁটে চলাফেরা করত। তখন এ প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলা হয়েছিল। এখনো বেশ সুনামের সঙ্গে প্রতিষ্ঠানটি সেবার উদ্দেশ্যেই পরিচালিত হচ্ছে।

এই বিভাগের আরও খবর