শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ২৮ এপ্রিল, ২০১৭ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৮ এপ্রিল, ২০১৭ ০০:১৯

প্রকৃতি

পাখির গ্রাম ভাটিনা

রিয়াজুল ইসলাম, দিনাজপুর

পাখির গ্রাম ভাটিনা

গাছে গাছে পাখি, কোনোটি উড়ছে, কোনোটি ডাকছে। পুকুরগুলোতেও পাখি, সেগুলো মাছ শিকারে ব্যস্ত। এভাবে গ্রামজুড়ে শুধু পাখি আর পাখি। ছোট্ট এ গ্রামের নাম ভাটিনা। দিনাজপুর সদরের উত্তর শেখপুরা ইউপির ভিতর এ গ্রাম। হরেক রকম পাখির মধ্যে প্রধানত রয়েছে বক, রাত চোরা, পানকৌড়ি আর শালিক। এসব পাখি উড়ে চলে যায় না। ঘুরে ফিরে এখানেই চলে আসে। পাখির অভয়াশ্রম গড়ে ওঠার কারণ সম্পর্কে জানা গেছে, এই গ্রামের কেউ কোনো পাখিকে বিরক্ত করে না, তাড়িয়ে দেওয়া বা মেরে ফেলা তো দূরে থাক। ফলে পাখির জন্য এ গ্রাম অনুকূল পরিবেশ তৈরি করেছে। যে কারণে এটি পাখির অভয়াশ্রম হয়েছে। স্থানীয়রা জানান, বর্ষা মৌসুমে প্রায় ২৫-৩০ হাজার বর্ষালী পাখি আস্তানা গড়ে। তখন গোটা গ্রাম পাখির কলকাকলিতে মুখরিত থাকে। বৈশাখ মাসে পাখিরা বাচ্চা দেয়। এ সময় কিছু অতিথি পাখিও আসে। এখানে অনবরত শোনা যায় ডাহুকের ডাক। গ্রামের বাসিন্দা বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল হাসেম জানান, পরিবেশ উন্নয়নে পাখিরক্ষা, শিয়াল, বিড়াল, গুইসাপ, বেজি প্রভৃতি প্রাণীর সংরক্ষণে এলাকার লোকজনকে অনুপ্রাণিত করে আসছি। এ কারণে পুরো গ্রাম প্রাণী ও বর্ষালী পাখির নিরাপদ আবাসস্থলে পরিণত হয়েছে।

 


আপনার মন্তব্য