শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ২৩:৫২

আতিয়া মহলে চার জঙ্গি নিহত

তিনজনকে অভিযুক্ত করে চার্জশিট

নিজস্ব প্রতিবেদক, সিলেট

তিনজনকে অভিযুক্ত করে চার্জশিট

সিলেটের দক্ষিণ সুরমার শিববাড়ির আতিয়া মহলে জঙ্গিবিরোধী অভিযান চলাকালে ঘরের মধ্যে বোমা বিস্ফোরণে চার জঙ্গি নিহতের ঘটনার মামলায় চার্জশিট (অভিযোগপত্র) দিয়েছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। গতকাল সিলেট মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে এই চার্জশিট জমা দেন তদন্ত কর্মকর্তা পিবিআইর ইন্সপেক্টর আবুল হোসেন। বিষয়টি নিশ্চিত করে আবুল হোসেন জানান, চার্জশিটে তিনজনকে অভিযুক্ত করা হয়েছে। এরা হলেন- বিস্ফোরণে নিহত জঙ্গি মর্জিনার ভাবী আর্জিনা (১৯), মর্জিনার ভাই জহুরুল হক ওরফে জসিম (২৫) এবং হাসান (২৬) নামের আরেক জঙ্গি। জানা গেছে, চট্টগ্রামের সীতাকুন্ডে জঙ্গি হামলার ঘটনায় ২০১৭ সালের ১৫ মার্চ আর্জিনা ও জসিমকে গ্রেফতার করা হয়। এ ছাড়া হাসানকে কুমিল্লার চান্দিনা থেকে ওই বছরের ৭ মার্চ গ্রেফতার করা হয়েছিল। পরে তাকে নিয়ে চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ে অভিযান চালিয়ে বোমা ও বোমা তৈরির সরঞ্জাম উদ্ধার করে পুলিশ। পিবিআই ইন্সপেক্টর আবুল হোসেন জানান, ওই তিনজন চট্টগ্রামের কারাগারে ছিল। সিলেটের আতিয়া মহলে ঘটনায় তাদের চলতি বছর ১৭ জানুয়ারি শ্যোন অ্যারেস্ট দেখানো হয়। পরে রিমান্ডেও নেওয়া হয়েছিল তাদের। বর্তমানে এ তিনজনই কারাগারে আছেন। আবুল হোসেন জানান, চার্জশিটে অভিযুক্তরা জঙ্গিবাদে উদ্বুদ্ধ। আতিয়া মহলের চার জঙ্গিকে জঙ্গিবাদে উদ্বুদ্ধ করেছিলেন তারা। এতে মোশাররফ নামের আরেক জঙ্গির সম্পৃক্ততা পাওয়া গেছে। তবে এরই মধ্যে তিনি মৌলভীবাজারের নাসিরনগরে জঙ্গিবিরোধী অভিযানে নিহত হয়েছেন। প্রসঙ্গত, আতিয়া মহলে ২০১৭ সালের ২৩ মার্চ জঙ্গিবিরোধী অভিযান শুরু হয়। ‘অপারেশন টোয়াইলাইট’ নামের ওই অভিযান চলাকালে ২৫ মার্চ সন্ধ্যায় আতিয়া মহলের পাশেই বোমা বিস্ফোরণ ঘটায় জঙ্গিরা। এতে র‌্যাবের গোয়েন্দা বিভাগের তৎকালীন প্রধান লে. কর্নেল আবুল কালাম আজাদ ও দুই পুলিশ পরিদর্শকসহ সাতজন নিহত হন। এ ঘটনায় এসএমপির মোগলাবাজার থানার তৎকালীন এসআই শিপলু দাস বাদী হয়ে হত্যা মামলা করেন। এ ছাড়া আতিয়া মহল থেকে বিস্ফোরক উদ্ধারের ঘটনায় থানার তৎকালীন এসআই সুহেল আহমদ বাদী হয়ে আরেকটি মামলা করেন। অন্যদিকে আতিয়া মহলে বিস্ফোরণ ঘটিয়ে চার জঙ্গি নিহতের ঘটনায় আরেকটি মামলা করা হয়। বোমা বিস্ফোরণে হত্যার ঘটনার মামলায় ১৪ জুলাই চূড়ান্ত প্রতিবেদন (ফাইনাল রিপোর্ট) জমা দেয় পিবিআই। এতে উল্লেখ করা হয়, বোমা হামলায় নেতৃত্বদানকারী জঙ্গি মোশাররফ ও নাজিম মৌলভীবাজারের দুটি জঙ্গি আস্তানায় অভিযানে নিহত হন। আতিয়া মহলে পাঁচ দিন অভিযান চালিয়েছিলেন সেনাবাহিনীর কমান্ডোরা।

এই জঙ্গিবিরোধী অভিযানের মামলাগুলো প্রথমে পুলিশ তদন্ত করে, পরে দায়িত্বভার যায় পিবিআইর কাছে।


আপনার মন্তব্য