শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১৫ জুন, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৫ জুন, ২০২১ ০০:০১

কুমিল্লায় ড্রাগন চাষ

মহিউদ্দিন মোল্লা, কুমিল্লা

কুমিল্লায় ড্রাগন চাষ
Google News

কুমিল্লায় জনপ্রিয় হচ্ছে বিদেশি ফল ড্রাগন চাষ। কয়েকটি উপজেলার মধ্যে দেবিদ্বারের পাঁচটি গ্রামে ড্রাগন চাষ হচ্ছে। তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য গ্রাম ছেপাড়া। সেখানে দুই বিঘা জমিতে ড্রাগন চাষ করেন তরুণ উদ্যোক্তা আবুল ফয়েজ মুন্সী। ওই এলাকায় তিনিই প্রথম ড্রাগন ফলের চাষ করেন। তার বাগান দেখতে প্রতিদিনই ভিড় করছে মানুষ। সরেজমিন ছেপাড়া গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, দুই ভাগে ড্রাগন চাষ করেছেন ফয়েজ মুন্সী। এর একটি সড়কের পাশে উঁচু জমিতে, অন্যটি মাঠের মাঝে। অনেকটা ক্যাকটাসের মতো এই গাছ। সিমেন্টের পিলার ও রড-টায়ারের মাছায় ঝুলানো হয়েছে গাছ। হালকা বাতাসে দুলছে ড্রাগনের ফুল ও ফল। আবুল ফয়েজ মুন্সী জানান, তিনি ভিক্টোরিয়া কলেজ থেকে ম্যানেজমেন্টে মাস্টার্স করেছেন। চাকরি তাকে টানে না। তাই পৈতৃক জমিতে কৃষিকাজ শুরু করেন। তিনি ড্রাগন, কলা, কুল ও ত্বীন ফল চাষ করছেন। ইউটিউব দেখে তিনি ড্রাগন চাষে উদ্বুদ্ধ হন। দুই বিঘা জমিতে ড্রাগনের গাছ লাগিয়েছেন। খরচ হয়েছে সাড়ে ৬ লাখ টাকা। এই মাচা ও গাছ থেকে ৩০ বছর পর্যন্ত ফল আসবে। দুই বছরে তার পুঁজি উঠে যাবে বলে আশা করেন।

দেবিদ্বার উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা সাইদুজ্জামান বলেন,  দেবিদ্বারের ওয়াহেদপুর, মোহাম্মদপুর, ইউসুফপুর মধ্যপাড়া, সাইতলা,  ছেপাড়াসহ বিভিন্ন গ্রামে ড্রাগনের চাষ হচ্ছে। কয়েকটিতে ভালো ফলন হয়েছে। আমরা তাদের পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছি।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা মো. মিজানুর রহমান বলেন, ড্রাগন অনেক পুষ্টিকর ফল। এটাকে নিউট্রাল ফলও বলা হয়। সব শারীরিক সমস্যায় এই ফল খাওয়া যায়। কুমিল্লার মাটি এই ফল চাষের উপযোগী। বিশেষ করে যেখানে পানি জমে না সেখানে ড্রাগন চাষ করা যায়। দেবিদ্বার ছাড়া বড় পরিসরে চান্দিনা, বরুড়া, লালমাই ও সদর দক্ষিণে ড্রাগন চাষ হচ্ছে। বিভিন্ন উপজেলায়ও অল্প পরিসরে চাষ হচ্ছে।