শিরোনাম
প্রকাশ : ১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ২০:১৪

ঋত্বিক ঘটকের বাড়ি সংরক্ষণে উদ্যোগ নেওয়া হবে : সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী:

ঋত্বিক ঘটকের বাড়ি সংরক্ষণে উদ্যোগ নেওয়া হবে : সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী
‘ঋত্বিক ঘটকের স্মৃতির ও সংস্কৃতি বিকাশের এই জায়গাটি ধরে রাখা উচিত ছিল। আমি যতটুকু দেখছি, যতটুকু জায়গা আছে, সেটুকু কীভাবে সংরক্ষণ করা যায়, তার ব্যাপারে আমরা অবশ্যই চেষ্টা করবো। বাড়ি সংরক্ষণে উদ্যোগ নেওয়া হবে।’ সোমবার বিকালে রাজশাহী মহানগরীর মিয়াপাড়ায় চলচ্চিত্রকার ঋত্বিক ঘটকের পৈত্রিক ভিটা পরিদর্শনকালে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী কেএম খালিদ সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।
 
পরিদর্শনের সময় উপস্থিত ছিলেন রাজশাহী ঋত্বিক ঘটক ফিল্ম সোসাইটির সভাপতি ডা. এফএমএ জাহিদ, সাধারণ সম্পাদক মাহমুদ হোসেন মাসুদ, রাজশাহী ফিল্ম সোসাইটির সভাপতি আহসান কবির লিটন, রাজশাহী জেলা সংস্কৃতি বিষয়ক কর্মকর্তা আসাদুজ্জামান সরকার, হোমিও প্যাথিক কলেজ অধ্যক্ষ আনিসুর রহমান প্রমুখ।
 
প্রতিমন্ত্রী বলেন, ঋত্বিক ঘটকের এই বাড়ি ঘুরে দেখলাম। এটির আদলটি অনেক পরিবর্তন করা হয়েছে। এদেশের সামরিক শাসকরা সংস্কৃতির অঙ্গনগুলোকে সবসময়ই ক্ষতিগ্রস্ত করেছে। বিভিন্ন কালা-কানুন দিয়ে তারা সংস্কৃতির বিকাশকে রুদ্ধ করেছে। সেটিরই একটি লক্ষণ হলো ঋত্বিক ঘটকের বাড়ি ১৯৮৪ সালে একটি প্রতিষ্ঠানের কাছে হস্তান্তর করে দেওয়া। অনেক জায়গা ছিল কলেজ করার। 
 
তিনি আরও বলেন, ঋত্বিক ঘটকের স্মৃতিটুকু নষ্ট না করে আপনারা কলেজের কার্যক্রম করতে থাকেন। তারপরে সরকার যেভাবে সিদ্ধান্ত নিবে, আইন যেভাবে চলে, সেভাবেই আপনাদেরকে চলতে হবে। 
 
কিছুদিন আগে প্রতিমন্ত্রীর ভাই অভিনেতা ও বাংলাদেশ টেলিভিশনের সাবেক পরিচালক ম. হামিদ ঋত্বিক ঘটকের বাড়ি পরিদর্শনে এসে ভিতরে ঢুকতে পারেননি। সে বিষয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নে মন্ত্রী বলেন, অনুমতি না পাওয়াটা দুঃখজনক। ঋত্বিক ঘটক একজন ব্যক্তি না, একটি প্রতিষ্ঠান হিসেবে দাঁড়িয়ে গেছেন। তার পৈত্রিক নিবাসের এই জায়গায় একজন সাংস্কৃতিককর্মী প্রবেশের অনুমতি না পেয়ে ফিরে যাওয়াটা দুঃখজনক। ঋত্বিক ঘটকরা তো আর যুগে যুগে জন্মায় না, শত বছরেও একজন পাওয়া যায়। তার জন্মভিটায় একজন সাংস্কৃতিক কর্মী না আসতে পারাটা অবশ্যই বেদনার সৃষ্টি করে।
 

বিডি প্রতিদিন/মজুমদার


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর