শিরোনাম
প্রকাশ : ৪ এপ্রিল, ২০২১ ১০:৪৩
আপডেট : ৪ এপ্রিল, ২০২১ ১১:০০
প্রিন্ট করুন printer

চুল-দাড়ি কাটায় চাকরি চলে যাওয়ার অভিযোগ

অনলাইন ডেস্ক

চুল-দাড়ি কাটায় চাকরি চলে যাওয়ার অভিযোগ
শ্রীকান্ত

চুল-দাড়ি কেটে ফেলার কারণে নিজের চাকরি চলে গেছে বলে অভিযোগ করলেন এক উবার চালক। দীর্ঘ এক মাসেরও বেশি সময় ধরে তিনি কর্মহীন হয়ে পড়েছেন বলে দাবি তার। 

ঘটনা ভারতের হায়দরাবাদের। কিন্তু ঠিক কী ঘটেছে? ভারতীয় গণমাধ্যমের প্রতিবেদন অনুযায়ী, হায়দরাবাদের বাসিন্দা শ্রীকান্ত নামে ওই ব্যক্তি দীর্ঘদিন ধরে অ্যাপ ক্যাব সংস্থার সঙ্গে যুক্ত। ২০১৯ সাল থেকে উবারের হয়ে গাড়ি চালাচ্ছিলেন। ইতোমধ্যে ১৪২৮টি ট্রিপও সম্পূর্ণ করে ফেলেছিলেন। তাকে দেওয়া যাত্রীদের রেটিংও অনেক ভালো। তবে সম্প্রতি তিরুপতি গিয়ে নিজের চুল-দাড়ি কেটে ফেলেন তিনি। এর ফলে তার চেহারা বদলে যায়। এরপরই শুরু হয় বিপত্তি।

পরবর্তীতে নিজের উবার অ্যাকাউন্টে লগ ইন করার সময় ব্যর্থ হন তিনি। কারণ, অ্যাকাউন্টটি ফেশিয়াল রিকগনিশনের মাধ্যমে খোলে। আর চুল-দাড়ি কেটে ফেলায় শ্রীকান্তকে চিনতেই পারেনি অ্যাপটি। এরপর চারবার চেষ্টা করেও সফল হননি ওই উবার চালক। শেষপর্যন্ত তাকে ব্যান করে দেওয়া হয়। এরপর উবারের অফিসে গিয়েও বিষয়টির সুরাহা করতে পারেননি শ্রীকান্ত। 

তিনি জানান, এই কারণেই গত একমাস ধরেই কর্মহীন হয়ে পড়েছেন তিনি। এদিকে, ইতোমধ্যে শ্রীকান্তের এই খবরটি সোশ্যাল মিডিয়াতেও ভাইরাল হয়েছে।

তবে সংস্থার পক্ষ থেকে বিষয়টি অস্বীকার করা হয়েছে। এ প্রসঙ্গে উবার ইন্ডিয়ার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, লগ ইন করতে না পেরে শ্রীকান্ত উবার পার্টনার সেবা কেন্দ্রে গিয়েছিলেন। তবে যেহেতু তিনি সংস্থার নিয়মকানুন লঙ্ঘন করেছেন, তাই উবার অ্যাপ থেকে তাকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। নিরাপত্তার কারণেই এ কাজ করা হয়েছে। 

সংস্থা আরও জানিয়েছে, ফেসিয়াল রিকগনিশন-এ সাধারণত কোনো ব্যক্তির মুখের সামান্য পরিবর্তনে কোনো সমস্যা হয় না। যেমন লম্বা চুল থেকে ছোট চুল। কিন্তু একেবারে মাথা মুড়িয়ে ফেলায় মুখের পুরো চেহারা বদলে যায়। ফলে প্রযুক্তিগত সমস্যা তৈরি হয়। শ্রীকান্তের ক্ষেত্রেও তেমনটাই ঘটেছে।

সূত্র: সংবাদ প্রতিদিন, ইন্ডিয়া টুডে   

বিডি প্রতিদিন/জুনাইদ আহমেদ


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর