শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ৩১ অক্টোবর, ২০১৫ ০০:০০ টা
আপলোড : ৩১ অক্টোবর, ২০১৫ ০১:৩৮

ভাঙচুর, মঞ্চে আগুন রায়পুরায় বিএনপি সম্মেলন পণ্ড

নরসিংদী প্রতিনিধি

রাতের অন্ধকারে হামলা, ভাঙচুর ও মঞ্চে অগ্নিসংযোগের ফলে পণ্ড হয়ে গেছে রায়পুরা উপজেলা বিএনপির সম্মেলন। বিএনপি এ ঘটনার জন্য আওয়ামী লীগ ও পুলিশকে দায়ী করছে। পুলিশ বলছে, বিএনপির কোন্দলের পরিণামেই এটা ঘটেছে। গতকাল বিকালে নরসিংদী প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট নেছার উদ্দিন আহমেদ লিখিত অভিযোগে জানান, শুক্রবার সকালে রায়পুরা উপজেলার দৌলতকান্দি উচ্চবিদ্যালয় মাঠে উপজেলা বিএনপির দ্বিবার্ষিক সম্মেলন হওয়ার কথা ছিল। এ উপলক্ষে স্কুলমাঠে বিশাল মঞ্চ তৈরি হয়েছে। কাউন্সিলর ও অতিথিদের খাবারের জন্য দুটি গরু জবাই করা হয়েছিল। এরই মধ্যে বৃহস্পতিবার রাত ১১টার দিকে ছাত্রলীগ, যুবলীগ ও আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মী-সমর্থকরা মিছিল নিয়ে এসে পুলিশের উপস্থিতিতে প্যান্ডেলে আগুন লাগিয়ে দেন। ভেঙে চুরমার করা হয় মঞ্চ ও সভাস্থলের চেয়ার-টেবিল। লুট করে নিয়ে যান অতিথিদের জন্য রান্না করা গরুর মাংস ও অন্যান্য খাদ্যসামগ্রী। তিনি বলেন, পরে রাত ২টায় পুলিশ তার বাড়িসহ বিএনপি নেতা-কর্মীদের বাড়িতে তল্লাশির নামে তাণ্ডব চালিয়েছে। অথচ আমরা প্রশাসনের অনুমতি নিয়ে সম্মেলনের যাবতীয় আয়োজন করেছিলাম। উপজেলা বিএনপির সদস্যসচিব আবদুর রহমান খোকন বলেন, ভাঙচুরের পর সেখান থেকে পুলিশ ভ্যানে করে লুট করে নেওয়া হয়েছে অতিথিদের জন্য আনা বিভিন্ন খাবার। তা ছাড়া বিএনপি নেতা-কর্মীদের সম্মেলনস্থলে যেতে মোবাইল ফোন করে নিষেধ করে রায়পুরা থানা পুলিশ। তিনি আরও বলেন, সম্মেলনে ২৪টি ইউনিয়নের কয়েক হাজার নেতা-কর্মীর অংশ নেওয়ার কথা ছিল। এ খবরে ভীত হয়ে যায় স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও পুলিশ প্রশাসন। অভিযোগ অস্বীকার করে রায়পুরা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আজহারুল ইসলাম সরকার বলেন, মূলত বিএনপির অন্তঃকোন্দলের কারণেই পণ্ড হয়ে গেছে সম্মেলন। প্রায় প্রতিটি সম্মেলনের বেলায়ই দেখা যায়, এক পক্ষের সম্মতি থাকলে অন্য পক্ষ বাধা দিয়েছে। শুক্রবারও একই ঘটনা ঘটেছে। হামলা, ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, বিএনপির বিবদমান দুটি পক্ষ মুখোমুখি অবস্থান নিয়েছিল। তবে স্থানীয়দের হস্তক্ষেপের কারণে অপ্রীতিকর কোনো ঘটনা ঘটেনি।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জল হোসেন মাস্টার, সিনিয়র সহ-সভাপতি সুলতান উদ্দিন মোল্লা, উপজেলা বিএনপির সদস্যসচিব আবদুর রহমান খোকন, কেন্দ্রীয় যুবদল নেতা ফজলুর রহমান, বিএনপি নেতা কাজী আশরাফুল আজীজ, আলী রেজাউর রহমান রিপন, ফাইজুর রহমান চেয়ারম্যান, শাজাহান মল্লিক, আমিনুল হক বাচ্চু প্রমুখ।


আপনার মন্তব্য