শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ২৩ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ২২ নভেম্বর, ২০১৯ ২৩:২৬

জাদুঘরের অভিজ্ঞতা নিতে ১৪ কর্মকর্তা বিদেশ যাচ্ছেন

মাহবুব মমতাজী

জাদুঘরের অভিজ্ঞতা নিতে ১৪ কর্মকর্তা বিদেশ যাচ্ছেন

জাদুঘরের অভিজ্ঞতা অর্জনের জন্য দুই দলে ভাগ হয়ে ১৪ কর্মকর্তা চার দেশ সফরে যাচ্ছেন। সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের দুই কর্মকর্তার নেতৃত্বে ৩০ নভেম্বরের মধ্যে (অথবা ভিসা জটিলতায় সুবিধাজনক সময়ে) এ সফরের কথা রয়েছে। একটি দল আর্জেন্টিনা ও যুক্তরাজ্য এবং অন্যটি সুইজারল্যান্ড ও যুক্তরাষ্ট্রে যাচ্ছে। সূত্রে জানা যায়, জাতীয় জাদুঘরে টাকার অভাবে গ্যালারির আধুনিকায়ন হচ্ছে না। সরকারের বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তিতে (এপিএ) থাকা চারটি গ্যালারিসহ নানা উন্নয়নমূলক কাজ ফেলে আধুনিক জাদুঘর গড়ার জন্য এক্সপোজার ভিজিটের নামে ওই কর্মকর্তারা বিদেশ ভ্রমণ করতে যাচ্ছেন। এ নিয়ে নানা মহলে প্রশ্ন উঠেছে। খোদ জাদুঘরেই চলছে গুঞ্জন। গত ৪ নভেম্বর সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের উপসচিব নাদিরা সুলতানার স্বাক্ষরিত প্রধান হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা বরাবর দুই চিঠিতে ওই ভ্রমণের কথা জানানো হয়েছে। সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. মো. আবু হেনা মোস্তফা কামালের নেতৃত্বে একটি দল যাবে যুক্তরাজ্য ও আর্জেন্টিনায়। অন্য দলটি অতিরিক্ত সচিব মো. নিজামউদ্দিনের নেতৃত্বে যুক্তরাষ্ট্র ও সুইজারল্যান্ডে যাবে। এদিকে, বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘরের বোর্ড অব ট্রাস্টিজের অনুমোদন থাকা সত্ত্বেও অর্থের অভাবে বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তিতে (এপিএ) থাকা চারটি গ্যালারির আধুনিকায়ন দীর্ঘদিন আটকে আছে। জাদুঘর সূত্রে জানা গেছে, প্রতি মাসে জাদুঘরের মাসিক সমন্বয় সভায় ১, ২, ২৪ ও ৩৬ নম্বর গ্যালারি চারটি আধুনিকায়নের কথা আলোচনা হলেও অর্থের কারণে কোনো কাজই হচ্ছে না। জানা গেছে, মাসিক সমন্বয় সভায় গ্যালারি উন্নয়ন প্রসঙ্গ উঠলে জনশিক্ষা বিভাগের কিপার ড. শিহাব শাহরিয়ার ১২ নম্বর নৌকা গ্যালারি উন্নয়নের জন্য স্পন্সর সংগ্রহের সিদ্ধান্ত জানান। বিদেশ ভ্রমণের বিষয়ে জনশিক্ষা বিভাগের কিপার ড. শিহাব শাহরিয়ার জানান, এ ভ্রমণে তাদের কর্মকর্তারা প্রশিক্ষণের জন্য দুটি দেশে যাবেন। সে সময় জাদুঘরগুলো ভিজিটের পাশাপাশি কয়েকটি চুক্তি হবে। জাদুঘরসূত্রে জানা যায়, ২০১৯-২০ অর্থবছরে জাদুঘরের বাজেটে প্রশিক্ষণ খাতে বরাদ্দের পরিমাণ ৩ লাখ এবং ভ্রমণ খাতে বরাদ্দ ২০ লাখ টাকা। ভ্রমণ খাতের আওতায় দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে নিদর্শন সংগ্রহের ভ্রমণ ব্যয়ও অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।

অথচ মন্ত্রণালয়ের অনুমোদনপত্র মোতাবেক জাদুঘরের ১২ কর্মকর্তার ব্যয় জাদুঘর নিজস্ব তহবিল থেকে করবে। এ ভ্রমণে বিমান ভাড়া, ট্রানজিট-টার্মিনাল চার্জ, পকেট ভাতা, হোটেল ভাড়া ইত্যাদি বাবদ জাদুঘরের জন্য বরাদ্দকৃত বাজেটের কয়েক গুণ প্রায় ১ কোটি টাকা ব্যয় হবে।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর