শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ৭ জুলাই, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ৬ জুলাই, ২০২১ ২৩:২৮

ছাদবাগানে হাজারি লেবু

রিয়াজুল ইসলাম, দিনাজপুর

ছাদবাগানে হাজারি লেবু
Google News

করোনার এই সময়ে লেবুর চাহিদা বেড়ে গেছে। লেবু চাষ করে ভালো দামও পাওয়া যাচ্ছে। আবার উন্নত জাতের চারা আর সঠিক পরিচর্যা করলে ব্যাপক ফলনও হচ্ছে। নগরায়ণের কারণে যখন চাষযোগ্য জমি সংকট, তখন বিকল্প হিসেবে বাড়ির ছাদকে বেছে নিচ্ছেন অনেকে। দিনাজপুরের বীরগঞ্জের কলেজ শিক্ষক অধ্যাপক নীল রতন সাহা নিপু তার বাড়ির ছাদেই হাজারি লেবুর বাগান গড়ে তুলেছেন। গাছের পাতা আর লেবু সমানে সমানে একাকার। লেবুর বাম্পার ফলন এলাকাবাসীর দৃষ্টি কেড়েছে এবং ছাদ বাগানে অনেকে উৎসাহী হয়েছেন।

আগে চাষাবাদ এবং বিভিন্ন ফল ও ফুলের বাগান হতো মাটিতে। কিন্তু দিন দিন নগরায়ণের কারণে সংকুচিত হচ্ছে চাষযোগ্য জমি। এরপরেও এখন মানুষের চাহিদা ও শখ পূরণে ফল-ফুলের চাষ করতে বিকল্প পথ খুঁজছে। কেউ কেউ ছাদকেই বেছে নিয়েছেন। অধ্যাপক নীল রতন ছাদ বাগানের ফুল ও লেবু চাষে আর্থিকভাবে লাভবান হচ্ছেন। এই লেবু বেশি ধরে বর্ষা মৌসুমে এবং কম ধরে শীত মৌসুমে।

তিনি জানান, ছোট বেলা থেকে ফুলের বাগানের প্রতি দুর্বলতা ছিল। সেই আগ্রহ থেকেই বিভিন্ন ফুল ও ফলের বাগান করি। সেই অভিজ্ঞতা থেকেই ছাদে শ্রীমঙ্গল এলাকার লেবুর চারা লাগিয়েছি। প্রথমে তিনটি সিমেন্টের বড় রিং কিনে, তাতে গোবর সারের মাটি দেই। এরপর সাধারণ মাটি দিয়ে ভরাট করে তাতে হালকা পানি দিয়ে রেখে দেই। এর কয়েক দিন পর লেবুর চারা লাগাই। এক বছর পর থেকে গাছে কিছু কিছু লেবু ধরে। প্রথমবারের ফলগুলো ফেলে দিয়েছি। পরের বছর থেকে প্রতিটি ডালে লেবু ধরেছে। এবার এত বেশি লেবু ধরেছে যে, পাতা আর লেবু সমান সমান। তাই এলাকাবাসীই নাম দিয়েছে হাজারি লেবু। নিজের প্রয়োজন মিটিয়ে কিছু লেবু স্থানীয়দের মাঝে দেই এবং কিছু লেবু বিক্রি করে অর্থ আয় হয়েছে। শখের লেবু বাগানটি অবসর সময় কাটানোর নিত্য সঙ্গী ছাড়াও আর্থিকভাবে লাভবানও হচ্ছি। যে কেউ বাড়ির ছাদকে ফেলে না রেখে যে কোনো ফুল-ফলের চাষ করলে পরিবেশ ঠিক থাকবে, আর্থিকভাবে লাভবানও হবেন।

বীরগঞ্জ উপজেলা উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা সঞ্জিত রায় জানান, বীরগঞ্জ এলাকায় ছাদ বাগান বেশ জনপ্রিয় হচ্ছে। উন্নত চারা রোপণ এবং সঠিক পরিচর্যা করলে ছাদেও এখন সব ধরনের ফল-মূলের চাষ সম্ভব এবং নিজেদের প্রয়োজন মিটিয়ে আর্থিকভাবেও লাভবান হওয়া যায়।

এই বিভাগের আরও খবর