শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ২৬ আগস্ট, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৫ আগস্ট, ২০২১ ২৩:২৬

এখন আরেক এএফসি কাপের অপেক্ষা

রাশেদুর রহমান, মালদ্বীপ থেকে

এখন আরেক এএফসি কাপের অপেক্ষা
Google News

অপরাজেয় দলটারই মন ভালো নেই। মোহনবাগানের বিপক্ষে দুর্দান্ত খেলেও ড্র করতে হলো ১০ জনের দল নিয়ে। সকালে ঘুম থেকে উঠে টিম হোটেলের রুফটপে মাহবুবুর রহমান সুফিল বললেন, আমরা ভালো খেলেছি, এটাই সান্ত্বনার। অধিনায়ক তপু বর্মণ বললেন, ‘গত কয়েকটা দিন বেশ চাপ গেছে। ম্যাচটা জিতে পরের রাউন্ডে যেতে পারলে আমাদের পরিশ্রম স্বার্থক হতো। ভালো খেলেও জিততে পারিনি। সবারই মন খুব খারাপ।’ বসুন্ধরা কিংসের কোচিং স্টাফ আর ফুটবলার সবার মনের একই অবস্থা। তবে বাস্তবতাকে তো মেনে নিতেই হবে! অস্কার ব্রুজোন তাই বলছেন, ‘আমাদের এখনো লিগের তিনটা ম্যাচ আছে। এবার সেদিকেই মনোযোগী হব।’ তা ছাড়া পেশাদার লিগে চ্যাম্পিয়ন বলে সামনে এএফসি কাপেও বসুন্ধরা বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করবে। এবার হয়নি আগামীর জন্যই অপেক্ষায় থাকবে কিংস।

মালদ্বীপে এক পক্ষকালের সফর ছিল তপুদের। এখানকার প্রবাসী বাংলাদেশি মানুষদের মনের গভীরে স্থান করে নিয়েছেন তারা। বসুন্ধরা কিংসের খেলার প্রশংসা সবার মুখে মুখে। এর আগে কখনোই মালদ্বীপে বাংলাদেশের কোনো ক্লাব এতটা ভালো ফুটবল উপহার দিতে পারেনি। তাই তারা কিংসকে নিয়ে আশাবাদী। আবারও মালদ্বীপে ফুটবলের আসর বসবে। সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ খেলতে অক্টোবরেই এখানে আসবে বাংলাদেশ জাতীয় দল। সেই দলে থাকবেন বসুন্ধরা কিংসের বেশ কয়েকজন ফুটবলার। প্রবাসীদের আশা, পরেরবার আরও ভালো খেলবেন তপু বর্মণরা।

গত রাতেই মালদ্বীপ ছেড়ে বাংলাদেশের উদ্দেশে যাত্রা করেছে বসুন্ধরা কিংস। আজ সকালে দেশে পৌঁছার কথা। আপাতত সবাই ক্লাবেই ফিরছেন। এরপরই আছে জাতীয় দলের অনুশীলন ক্যাম্প। সেখানে ডাক পেয়েছেন তপু বর্মণরা। ফিফা উইন্ডোতে কিরগিজস্তানে তিনটি ম্যাচ খেলে প্রস্তুতি নিবেন সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের জন্য। সেখানে খেলবেন ফিলিস্তিন, কিরগিজস্তান ও কিরগিজস্তান অনূর্ধ্ব-২৩ দলের সঙ্গে।

এএফসি কাপ ডি গ্রুপের ম্যাচগুলো জোড়াতালি দিয়ে কোনোরকমে শেষ করল মালদ্বীপ। তবে সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের আয়োজন এখানে কেমন হবে বলা কঠিন। মালদ্বীপ ন্যাশনাল স্টেডিয়ামে অনেক সুবিধাই নেই। আন্তর্জাতিক মানের ম্যাচ আয়োজনের সব সুবিধা এত অল্প সময়ে ব্যবস্থা করা সম্ভব হবে? এই মাঠের পরিচর্যাকারী হিসেবে কাজ করেন কয়েকজন বাংলাদেশি। তারা অবশ্য সাফ আয়োজন নিয়েও রোমাঞ্চিত। আশা করছেন, সবকিছু ঠিকভাবেই আয়োজন করতে পারবে মালদ্বীপ। তবে অল্প সময়ে ভালো মানের আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্ট আয়োজনের চ্যালেঞ্জটা থেকেই যাচ্ছে মালদ্বীপের জন্য।