Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : শনিবার, ২০ আগস্ট, ২০১৬ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ১৯ আগস্ট, ২০১৬ ২৩:২২
বিএনপি কমিটি-‘কাঁচা’ হাত-‘পাকা’ হাত
আবু হেনা
বিএনপি কমিটি-‘কাঁচা’ হাত-‘পাকা’ হাত

‘নিজ হাতে তৈরি করা কর্মী এখন স্থায়ী কমিটির সদস্য’— কথাগুলো বলেছেন এমন একজন যিনি বাংলাদেশের রাজনৈতিক অঙ্গনে দীর্ঘ ৪৫ বছর জেল-জুলুম মাথায় নিয়ে আন্দোলন-সংগ্রাম করেছেন, জনসেবায় আত্মনিয়োগ করেছেন। দীর্ঘকাল বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন এদেশের অন্যতম প্রবীণ রাজনীতিবিদ আবদুল্লাহ আল নোমান। একই সঙ্গে দীর্ঘ ১১ বছর মন্ত্রী হিসেবে সুনামের সঙ্গে রাষ্ট্রীয় দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি। জীবনের অধিকাংশ সময়ই যার আন্দোলন-সংগ্রামে কেটেছে, এ দেশের গণমানুষের সেবা করেই যিনি স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেছেন, সেই আত্মত্যাগী মানুষটি গত ৬ আগস্ট এক চরম আঘাত পেয়েছেন।

ওই দিন, মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের হাতে বিএনপির নতুন কমিটির তালিকাটি দেশের মিডিয়ার সামনে পাঠ করার জন্য তুলে দেওয়া হলো। গত ১৯ মার্চ বিএনপির তথাকথিত কাউন্সিল অধিবেশনের ১৪০ দিন পর প্রস্তুতকৃত এই তালিকায় প্রথমেই জাতীয় স্থায়ী কমিটির ১৭ জন সদস্যের নাম রয়েছে। এ কমিটিতে সদস্যদের দুটি নাম অপ্রকাশিত রয়েছে। কিন্তু দেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার নিজস্ব সূত্রে জানতে পেরেছেন এ পদ দুটি বেগম জিয়া তার দুই পুত্রবধূর জন্য সংরক্ষিত রেখেছেন। স্থায়ী কমিটির সদস্যদের তালিকার পর যে তালিকাটি প্রকাশিত হয়েছে তাতে রয়েছে চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের ৭৩ জন উপদেষ্টার নাম। তারপরের তালিকাটি নির্বাহী কমিটির কর্মকর্তাদের। এ তালিকায় ষষ্ঠ নামটি আবদুল্লাহ আল নোমানের।

এ তালিকায় পঞ্চম নামটি হারুন আল রশিদের। একসময়ে নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী ছিলেন তিনি। জাতীয় স্থায়ী কমিটিতে ১৯ নম্বর নামটি সালাহউদ্দিন আহমেদের যিনি ১৯৯৬ অবধি বেগম জিয়ার অফিসে এপিএস-২ ছিলেন। ২০০১ এর নির্বাচনের পর তাকে প্রতিমন্ত্রী করা হয় এবং পরবর্তীতে দলের যুগ্ম মহাসচিব হিসেবে অবরোধ চলাকালীন গোপন অবস্থান থেকে দলের কর্মসূচি ঘোষণা করে বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ রাজনৈতিক দলটিকে একটি ‘নিষিদ্ধ আন্ডার গ্রাউন্ড’ সংগঠনে রূপান্তরিত করেন। এ সময় দলের সব সিনিয়র নেতা বেগম জিয়ার সঙ্গ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে আন্দোলন বিষয়ে সব সিদ্ধান্ত থেকে দূরে সরে যান। দল পুরোপুরি কয়েকজন যুগ্ম মহাসচিবের কর্তৃত্বাধীন হয়ে পড়ে এবং অবশেষে ৯৩ দিনের অবরোধ কর্মসূচি একটি দলীয় বিপর্যয়ে পর্যবসিত হয়। আজও লাখ লাখ মামলা মাথায় নিয়ে বিএনপি দলীয় নেতা-কর্মীরা হয় জেলে অথবা ঘরবাড়ি ছেড়ে কোনো অজানা স্থানে প্রাণ নিয়ে বেঁচে আছেন।

অনেকেই ‘সর্বস্ব’ হারিয়ে নিঃস্ব হয়েছেন। বিএনপি দলীয় সব নির্বাচিত সিটি মেয়র জেল-জুলুম মাথায় নিয়ে আজ পথে বসেছেন। হাজার হাজার ইউপি চেয়ারম্যান, পৌর মেয়র, উপজেলা চেয়ারম্যান একইভাবে নিগৃহীত হয়ে পথেঘাটে ঘুরছেন। এসবের একটিই কারণ— দলে একটি দুষ্টচক্রের নেতৃত্ব কায়েম হয়েছে। আজ দলের নেতা-কর্মীরা জানতে চায় দলের কর্মসূচি ঘোষণায় এবং গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার সময় স্থায়ী কমিটির সদস্যদের মতামত নেওয়া হয়েছিল কিনা। আজ একই কারণে প্রশ্ন— যদি সিদ্ধান্ত গ্রহণে স্থায়ী কমিটির প্রয়োজন না হয়, তাহলে আজ এই কমিটি নামের প্রহসনের প্রয়োজন কি? প্রশ্ন : ২০০৯ থেকে ২০১৫ পর্যন্ত সময়ে ক’বার স্থায়ী কমিটি, নির্বাহী কমিটির সভা হয়েছে? বিগত ৯ আগস্ট ২০১৬ দলের যুগ্ম মহাসচিব মোহাম্মদ শাহজাহানের স্বাক্ষরে, দলের মহাসচিবের পক্ষে এবং চেয়ারপারসনের আদেশবলে যে নির্দেশনামা জারি করা হয়েছিল তাতে ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০১৫ এর মধ্যে সব উপজেলা, জেলা, পৌর এবং নগর কমিটি নির্বাচিত করে কেন্দ্রে প্রেরণ করতে আদেশ দেওয়া হয়েছিল। একই পত্রে একথা স্বীকার করা হয়েছিল যে, এ সময়ে বিএনপির ৭৫টি সাংগঠনিক জেলা এবং উপজেলা কমিটির সবই সময়োত্তীর্ণ হয়ে অবৈধ হয়ে গিয়েছিল। এই চিঠি ইস্যু হওয়ার পর আজ অবধি মাত্র চারটি সাংগঠনিক জেলায় নতুন কমিটি গঠিত হয়েছে। অতএব প্রশ্ন : ১৯ মার্চের কাউন্সিলের বৈধতা কি? দ্বিতীয়ত, ৯ আগস্টের চিঠি অনুযায়ী কমিটি গঠনে কারা বাধা সৃষ্টি করেছিল? ২০০৮ সালের পর বিএনপি এখন নির্বাচন কমিশনে একটি নিবন্ধিত দল।

 

গঠনতন্ত্র অনুযায়ী প্রতি তিন বছর অন্তর চেয়ারপারসনসহ বিএনপির সব কর্মকর্তাকে জাতীয় কাউন্সিলের মাধ্যমে সংখ্যাগরিষ্ঠ ভোটে নির্বাচিত হতে হবে। কমিটি গঠনে সব অসংখ্য অনিয়মের কারণে বিএনপির নিবন্ধন নিয়ে আজ প্রশ্ন উঠতে পারে। সে ক্ষেত্রে এসব অনিয়মের দায়-দায়িত্ব কার ওপর বর্তাবে? কারা এ দলটিকে এরূপ দুর্গত অবস্থানে নিয়ে গেছে? গঠনতন্ত্র অনুযায়ী দলের বৈধ কমিটি গঠন না হওয়ায় যদি নির্বাচন কমিশন দলের নিবন্ধন বাতিল করে তাহলে তার জন্য দায়ী ব্যক্তিদের কী শাস্তি হবে?

দলের গঠনতন্ত্র ২০১০ সালে তৎকালীন মহাসচিব খোন্দকার দেলোয়ার হোসেন নির্বাচন কমিশনে জমা দিয়েছেন। অতএব, এরপর গঠনতন্ত্রের ব্যত্যয় ঘটিয়ে কোনো সাংগঠনিক কার্যক্রম আরপিও অনুযায়ী সম্পূর্ণ বিধিবিরুদ্ধ এবং শাস্তিযোগ্য। দলের গঠনতন্ত্র, কাউন্সিল, সংগঠন এবং নির্বাচন কমিশনের আরপিও সম্পর্কিত বিষয়গুলোর অবতারণা করে মূল প্রসঙ্গে ফিরে আসছি।

কমিটির তালিকা প্রস্তুতে ‘কাঁচা’ হাত-‘পাকা’ হাত কী আছে জানি না, তবে দলের মধ্যে যে একটি ‘দুষ্টচক্র’ আছে তা স্পষ্টভাবে বলা যায়। আবদুল্লাহ আল নোমানের পর ১৪ নম্বর নামটি চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফের। বেগম জিয়ার তিনবারের মন্ত্রিসভায় পূর্ণমন্ত্রী ছিলেন তিনি। জাতীয় সংসদে বেগম জিয়ার সারিতেই তার আসন ছিল। আজ তারও স্থান এক সময়ের প্রতিমন্ত্রী হারুন আল রশিদের ১১ ধাপ নিচে নেমে গেছে। যেভাবে এক সময়কার রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকের চেয়ারম্যান বিএনপি দলীয় একমাত্র ডাকসু ভিপি আমানুল্লাহ আমানকে ছাড়িয়ে সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব হয়ে গেছেন। আজ আমানের স্থান ৭৩ জন উপদেষ্টার তালিকায় ১৩ নম্বর ক্রমিকে। একই তালিকায় ২২ নম্বরে নেমে এসেছেন জয়নাল আবেদীন ফারুক যার ওপরে সংসদ ভবনের ভিতরে নির্যাতন চালানো হয়েছিল। সে দিন তিনি নির্ঘাত মৃত্যুর হাত থেকে বেঁচে এসেছিলেন। সেই একই পুলিশ বাহিনী বিএনপি নেতা রুহুল কবীর রিজভীকে অবরোধ কর্মসূচি চলাকালে নয়াপল্টন অফিস থেকে হাসপাতালে আনা-নেওয়া করেছিল। আমানের পর ২৪ নম্বরে আছেন দেশের বরেণ্য আইনজীবী, সুপ্রিমকোর্ট বার এসোসিয়েশনের বারবার নির্বাচিত সভাপতি অবরোধ, হরতাল কর্মসূচি চলাকালে তারই নেতৃত্বে সুপ্রিমকোর্ট চত্বর বিএনপির দুর্গে পরিণত হয়েছিল।

আন্দোলনের সময় পুলিশের গাড়িতে চড়ে যখন রুহুল কবির রিজভী ঘোরাফেরা করছিলেন তখন সাংবাদিক নেতা শওকত মাহমুদের নেতৃত্বে জাতীয় প্রেসক্লাব চত্বর বিএনপির দ্বিতীয় দুর্গে রূপান্তরিত হয়েছিল। আজও শওকত মাহমুদ কারাগারে। তার নামটি এ তালিকার সর্বশেষ নাম। অথচ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বাণিজ্য করে যারা ৫০-৫৫ লাখ টাকা মুনাফা করে বিদেশ ভ্রমণ করে এসেছেন তাদের স্থানও শওকত মাহমুদের অনেক উপরে। ১৯৮১ সালে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা প্রেসিডেন্ট জিয়ার শাহাদাতের পর বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার পাশে ছায়ার মতো থেকেছেন, হাসিমুখে যিনি দলের নেতা-কর্মীদের সাহায্যে এগিয়ে এসেছেন, অবরোধকালে কারাগারে নিক্ষিপ্ত হয়ে যিনি নির্যাতিত হয়েছেন সেই মোসাদ্দেক আলী ফালুর স্থানটি এ তালিকায় ২৫ নম্বরে। ব্যক্তিগত কারণ দেখিয়ে তিনি পদত্যাগ করেছেন।

রাজশাহীতে পুলিশ হত্যা মামলায় অভিযুক্ত মিজানুর রহমান মিনু, মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল, নাজিম মোস্তফা শফিকুল হক মিলনসহ জেলা ও উপজেলা নেতাদের কোনো মূল্যায়ন নেই এ কমিটিতে। এক সময় শহীদ জিয়ার আমলে প্রফেসর একরামুল হক, এমরান আলী সরকারের মতো ব্যক্তিরা স্থায়ী কমিটির সদস্য ছিলেন। ১৯৯৬-এর জুন এবং ২০০১ নির্বাচনে বৃহত্তর রাজশাহীর ১৮টি আসনের মধ্যে ১৭টিই বিএনপি পেয়েছে। অর্থাৎ সপ্তম সংসদে বিএনপির ১১৬টি আসনের সাত ভাগের এক ভাগ সংসদীয় আসন বৃহত্তর রাজশাহী থেকে এসেছে। আজ স্থায়ী কমিটির ১৯টি পদের মধ্যে একটি পদও রাজশাহীর ভাগ্যে জোটেনি। শুধু রাজশাহী জেলা নয়, রাজশাহী বিভাগ, অর্থাৎ বৃহত্তর বগুড়া, বৃহত্তর পাবনা থেকে একজনও স্থায়ী কমিটির সদস্য খুঁজে পাওয়া যায়নি। একই বঞ্চনা সিলেট বিভাগ, বরিশাল বিভাগ, খুলনা এবং বৃহত্তর ময়মনসিংহ অঞ্চলে বিরাজ করছে। আবদুল্লাহ আল নোমান, চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফের মতো সাদেক হোসেন খোকার নামটিও হারুন আল রশিদের পরে তালিকাভুক্ত দেখে যে কেউ বলতে বাধ্য হবেন, এই তালিকা কোনো ‘কাঁচা’ হাতে তৈরি হয়নি। এ তালিকা তৈরির পেছনে কোনো গভীর ষড়যন্ত্র আছে। উদ্দেশ্য বিএনপির যারা সম্পদ তাদের কৌশলে দলচ্যুত করে, একটি চক্রের কিছু ব্যক্তিকে দলের হর্তাকর্তা বিধাতা করে দেওয়া, যাতে করে বিএনপি গুলশান অফিস এবং নয়াপল্টন কার্যালয়ে অবরুদ্ধ হয়ে শ্বাসরুদ্ধ হয়ে তিলে তিলে নিঃশেষ হয়ে যায়। এই ষড়যন্ত্রের শিকড়ে আছেন দুইজন। সঙ্গে আছেন আরও ক’জন যারা কেউই কোনো দিন স্থানীয় সরকার অথবা জাতীয় সংসদে নির্বাচিত হননি। এটাই এদের পরিচয়।

১৯৯৬ জুন নির্বাচনে বিএনপি বিরোধী দলে অবস্থান নেওয়ার পর প্রকৃচির নেতারা, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়, ময়মনসিংহ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক নেতারা, সাংবাদিক নেতারা এবং সাংস্কৃতিক অঙ্গনের নেতাদের সমন্বয়ে শতনাগরিক কমিটি গঠন করেছিলাম। আওয়ামী লীগ সমর্থিত সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের বিপরীতে বিএনপি সমর্থিত শতনাগরিক গঠনের পর বিএনপি চেয়ারপারসন সংসদীয় পার্টির সভায় আমাকে প্রশংসা করেছিলেন।

প্রফেসর এমাজউদ্দীন আহমদের সভাপতিত্বে এই সংগঠনে ডা. এম. এ. মাজেদ, ইঞ্জিনিয়ার এল. কে. সিদ্দিকী, প্রফেসার আফজাল আহমদ, প্রফেসর মাহবুবুল্লাহ, সাদেক খানের মতো ব্যক্তিরা ছিলেন। এই শত নাগরিকের মাধ্যমেই সাত দিনব্যাপী সংহতি সম্মেলন করে ২০০১ সালের জাতীয় নির্বাচনে চারদলীয় জোটের স্লোগান ‘জাতীয়তাবাদ ও ইসলামী মূল্যবোধ’ রচনা করা হয়েছিল। ২০০১-এর নির্বাচনে শত নাগরিকের অবদান ছিল অপরিসীম। বস্তুত সংহতি সম্মেলনের মঞ্চেই চারদলীয় ঐক্যজোট তৈরি হয়েছিল। আজ রুহুল কবির রিজভী আছেন প্রফেসর এমাজউদ্দীন নেই। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক নেতারা কোথাও নেই। যে ড. আফতাব মাহমুদ আদর্শের জন্য জীবন দিয়েছেন তার কথা কেউ স্মরণ করে না।

এতবড় কাজটি কোনো ‘কাঁচা’ হাতের কাজ নয়। এ তালিকাটি পাকা হাতে তৈরি। এটা একটি মাফিয়া চক্রের কাজ। ২০০৭-এর নির্বাচন বন্ধ হওয়ার পর এক-এগারোর সময়ে এ চক্রটি সৃষ্টি হয়েছে। আগেই বলেছি এই চক্রের যারা সদস্য তাদের একটি বিশেষ পরিচয় আছে— এরা কেউ কোনো দিন জাতীয় সংসদ অথবা স্থানীয় সরকারের নির্বাচনে নির্বাচিত হয়নি। এদের কোনো নির্বাচনী এলাকা নেই। এরা নির্বাচন প্রত্যাশীও নয়। তাই এই নির্বাচনমুখী দল যাতে জাতীয় সংসদে নির্বাচন না করে, স্থানীয় সরকার নির্বাচনে যাতে সব আসন হারায়, তার জন্য সর্বক্ষণ এরা কাজ করে যাচ্ছে। এদের কর্মস্থল গুলশান অফিস ও নয়াপল্টন কার্যালয়ে কেন্দ্রীভূত। এদের কাজ হলো নির্বাচনে যারা দুই থেকে পাঁচবার নির্বাচিত হয়ে খালেদা জিয়াকে তিনবার প্রধানমন্ত্রী এবং দু’বার বিরোধীদলীয় নেতা নির্বাচিত করেছে তাদের জন্য এই দুই অফিসের দ্বার রুদ্ধ করে দেওয়া। এ কাজটি সমাধান করার পর এরা এমন প্রার্থীদের ২০০৮ সালের নির্বাচনে মনোনয়ন দিয়েছে যাদের শতকরা ৭০ ভাগকে স্বয়ং ভগবানও নির্বাচনে জয়ী করতে পারবে না। আমার এলাকায় ১৯৭৯ নির্বাচনে বিএনপি দুই বছরের জন্য একজন সংসদ সদস্য পেয়েছিল। পরে ১৯৯১ সালে দ্বিতীয়বার নির্বাচন করে বিএনপি প্রার্থী জামানত হারায়। তিন লাখ ভোটের মধ্যে বিএনপি পায় সাড়ে বার হাজার ভোট। পরে সপ্তম ও অষ্টম সংসদে আমি মনোনয়ন নিয়ে দুবারই দুজন সাবেক মন্ত্রীকে পরাজিত করে রেকর্ড ভোটে দলকে জয়ী করি। এরপর জঙ্গি ইস্যু নিয়ে দলের সঙ্গে আমার মতপার্থক্য হওয়া সত্ত্বেও ২০০৭-এর ২২ জানুয়ারি নির্বাচনে আমাকে মনোনয়ন দেওয়া হয়। কিন্তু এই মাফিয়া চক্র সৃষ্টি হওয়ার পর ২০০৮-এর নির্বাচনে আমাকে আর মনোনয়ন দেওয়া হয়নি।

তারেক রহমান লন্ডনে থাকেন। ওখান থেকেই সংসদীয় গণতন্ত্রের উদ্ভব। তিনি নিশ্চয়ই দেখছেন সেখানে সবকটি দলই নির্বাচনে জেতার জন্য যোগ্য প্রার্থী খুঁজে বেড়াচ্ছে। ‘ব্রেকসিট’ এর পর লেবার পার্টির নেতাকেও ৫১ জন সংসদ সদস্যের সমর্থন দেখাতে হয়েছে। রক্ষণশীল দলের সংসদে সংখ্যাগরিষ্ঠতা থাকার কারণেই ক্যামেরনের পদত্যাগের পর একই দলের আর একজন প্রধানমন্ত্রী হয়েছেন। আজ রুহুল কবীর রিজভীদের হাতে সংগঠনের যে তালিকা তৈরি হয়েছে তা দিয়ে বেগম খালেদা জিয়া অথবা তারেক রহমান কোনো দিন ক্ষমতায় যাবেন অথবা বিরোধী দলে বসবেন এ কথা পাগলেও বিশ্বাস করবে না। এই দুষ্টচক্রই ২০১২ সালের কমিটির মেয়াদ শেষ হলেও দীর্ঘ দুই বছর ধরে কাউন্সিল করতে দেয়নি। কারণ তাতে এই চক্র ভেঙে যেত। সঠিকভাবে নির্বাচনের মাধ্যমে নির্বাচিত প্রতিনিধিদের দ্বারা কাউন্সিল অধিবেশন হলে এদের কারও কমিটির কোথাও কোনো স্থান থাকত না।

২০০৮ সালের নির্বাচনে বিএনপির চরম বিপর্যয় ঘটানোর পর থেকে আজ অবধি এই চক্র একই ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে। বিএনপিকে নির্বাচন থেকে দূরে সরিয়ে রাখাই এদের একমাত্র দায়িত্ব ও কর্তব্য। ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যখন বেগম জিয়াকে টেলিফোনে সারা দিন ধরে খুঁজছিলেন তখন সবাই টেলিফোন লাইনটি কেটে রেখেছিল। এরপর সারা দিন চেষ্টার পর নিজেই লাইনটি ঠিক করে প্রধানমন্ত্রী যখন বেগম জিয়ার সঙ্গে সংযোগ স্থাপন করলেন তখন দুজনই শান্তভাবে কথা বলার মতো অবস্থায় ছিলেন না। ফলে ক্ষতি যার হওয়ার তারই হলো। বেগম জিয়া একটি সুবর্ণ সুযোগ হারালেন। লাভ হলো তাদেরই যারা কোনো দিন নির্বাচনে জিতবে না। কাউকে জিততেও দেবে না। দুই ষড়যন্ত্রের আখড়ায় ওদের কর্তৃত্ব অক্ষত থাকল। এরপর ৯৩ দিনের অবরোধ। কথা নাই, বার্তা নাই, স্থায়ী কমিটির কোনো সিদ্ধান্ত নেই, জাতীয় কমিটির সঙ্গে কোনো যোগাযোগ নেই, সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলতে বলতে হাসতে হাসতে ৯৩ দিনের অবরোধ ঘোষিত হয়ে গেল দেশব্যাপী। আর এই কর্মসূচি পালন করতে গিয়ে পুরো দল ছিন্নভিন্ন হলো, নেতা-কর্মীরা ক্ষতবিক্ষত হলো। সারা দেশের মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হলো।

প্রধানমন্ত্রী আবার এগিয়ে গেলেন সমঝোতার উদ্যোগ নিয়ে। কোকোর মৃত্যুর পর সহমর্মিতা জানানোর ইচ্ছা প্রকাশ করে। কিন্তু আবারও সেই মাফিয়া চক্র। এতবড় একটি দলের নেতা হিসেবে আবির্ভূত হলেন শিমুল বিশ্বাস। ২০০১ সালে বিএনপির বিজয়ের পর তাকে একটি আধা-সরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি দেওয়া হয়েছিল। তিনি দেশের প্রধানমন্ত্রীকে বাইরে দাঁড় করিয়ে রেখে ফিরে যেতে বাধ্য করলেন। সেদিন দুই নেত্রীর দেখা হলে অবরোধ শেষ হতো, সংলাপ হতো, নির্বাচন হতো, বিএনপি সংসদে ফিরে যেত। কিন্তু তাতে শিমুল বিশ্বাসরা হারিয়ে যেত। আজ শিমুল বিশ্বাস আছে— বিএনপি কোথাও নেই। নেই বেগম খালেদা জিয়া, তারেক রহমানও।

লেখক : সাবেক সংসদ সদস্য।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow