Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : শুক্রবার, ১০ জুন, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ৯ জুন, ২০১৬ ২১:৫২
প্রাচীন মসজিদ
প্রাচীন মসজিদ

মধ্যযুগে তো বটেই; আধুনিক সময়েও প্রাচীনকালের সাক্ষী। মূল্যবান ইট পাথরে তৈরি জরাজীর্ণ এসব মসজিদ সুলতানি আমলের রত্ন। পোড়ামাটির দেয়ালে নবাবী আবহ ছড়িয়ে আছে এসব ঐতিহাসিক স্থাপনায়।

 

নবাবী আমল নিয়ে মানুষের আগ্রহের কমতি নেই। তখনকার সময়ের রাজা-বাদশাদের চলাফেরা নিয়ে চলে হরহামেশা গবেষণা।  যার ছিটেফোঁটাও কমেনি আজ অবধি। প্রাচীন মুঘল আমলের বহু মসজিদ আজও নীরব কালের সাক্ষী হয়ে আছে। অনেক প্রাচীন স্থাপনার সঠিক ইতিহাসও জানা সম্ভব হয়নি। বোঝাই যায় কত পুরনো এসব স্থাপনা। এখনো মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে আছে প্রাচীন স্থাপত্যের এসব প্রাচীন মসজিদ। এক সময় এসব প্রাচীন মসজিদে আজান হতো, নামাজ পড়তে রাজপরিবারের সদস্যরা আসতেন। ইতিহাস থেকে পাওয়া যায়, মসজিদে রাজদরবারের সভা বসত। প্রাচীন ঐতিহ্য আর সংস্কৃতির এসব স্থাপনা ঘুরে আসতে পারেন সপরিবারে।

 

ষাটগম্বুজ মসজিদ

ঐতিহাসিক ষাটগম্বুজ মসজিদ বাংলাদেশের প্রাচীন মসজিদগুলোর মধ্যে সর্ববৃহৎ। মসজিদটি বাগেরহাট শহরকে বাংলাদেশের তিনটি বিশ্ব ঐতিহ্যবাহী শহরের মধ্যে স্থান করে দিয়েছে। মসজিদটি নির্মাণের সঠিক সময় সম্পর্কে কোনো নির্দেশনা নেই। ধারণা করা হয়, পঞ্চদশ শতাব্দীতে খানজাহান আলী (রহ.) মসজিদটি নির্মাণ করেন। মসজিদের পূর্বদিকে কোদালধোয়া দীঘি, পশ্চিমে বিশাল আকারের ঘোড়াদীঘি এবং উত্তরে খানজাহানের বসতভিটা রয়েছে। মসজিদটির দেয়াল প্রায় ৮.৫ ফুট পুরু। মসজিদটি ষাটগম্বুজ নামে পরিচিত হলেও মোট গম্বুজ রয়েছে ৮১টি। দক্ষিণ-পূর্ব কোনের বুরুজ দিয়ে উপরে ওঠার সিঁড়ি। গবেষকদের ধারণা, ষাটটি থামের অস্তিত্ব থেকেই মসজিদটির নাম ষাটখাম্বাজ করা হয়। জনশ্রুতি আছে, হযরত খানজাহান (রহ.) ষাটগম্বুজ মসজিদ নির্মাণের জন্য সমুদয় পাথর সুদূর চট্টগ্রাম, মতান্তরে ভারতের উড়িষ্যার রাজমহল থেকে তার অলৌকিক ক্ষমতাবলে জলপথে পাথর ভাসিয়ে এনেছিলেন। ইমারতটির গঠন বৈচিত্র্যে তুঘলক স্থাপত্যের বিশেষ প্রভাব মেলে।

সুলতান নসিরউদ্দীন মাহমুদ শাহের (১৪৩৫-৫৯) আমলে খান-উল-আযম উলুঘ খান-ই-জাহান (রহ.) সুন্দরবনের কোল ঘেঁষে খলিফাবাদ রাজ্য গড়ে তোলেন। খানজাহান তার রাজধানীতে শাসনকার্য পরিচালনা এবং বৈঠক করার জন্য একটি দরবার হল গড়ে তোলেন, যা ষাটগম্বুজ মসজিদ নামে পরিচিত। এর পরিকল্পনার সঙ্গে দিল্লি ও লাহোরের বাদশাহী মসজিদের মিল রয়েছে। মসজিদটিতে তুঘলকি ও জৌনপুরী নির্মাণ শৈলী এতে সুস্পষ্ট।

♦ কীভাবে যাবেন

ঢাকার গাবতলী থেকে ঈগল বা সোহাগ পরিবহনের বাসে বাগেরহাট যাওয়া যায়। বাসস্ট্যান্ড থেকে ষাটগম্বুজ মসজিদ সাত কিলোমিটার। এ ছাড়া আন্তঃনগর ট্রেন সুন্দরবন এক্সপ্রেসে খুলনা গিয়ে এরপর বাস ধরে বাগেরহাটে যেতে পারেন।

 

ছোট সোনামসজিদ

সুলতানি স্থাপত্যের রত্ন বলে পরিচিত ছোট সোনামসজিদ। রাজশাহীর চাঁপাইনবাবগঞ্জে অবস্থিত ছোট সোনামসজিদ প্রাচীন মসজিদগুলোর মধ্যে অন্যতম। মসজিদের শিলালিপি থেকে জানা যায়, সুলতান আলা-উদ-দীন শাহের শাসনামলে ওয়ালী মোহাম্মদ নামের এক ব্যক্তি প্রাচীন গৌড় নগরীর উপকণ্ঠে অবস্থিত ফিরোজপুর গ্রামে মসজিদটি প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। যার জন্য এর নামও দেওয়া হয় গৌরের রত্ন। মসজিদটি উত্তর-দক্ষিণে ৮২ ফুট লম্বা ও পূর্ব-পশ্চিমে ৫২.৫ ফুট চওড়া। আর উচ্চতায় প্রায় ২০ ফুট। মসজিদের দেয়াল প্রায় ৬ ফুট পুরু। ইট ও পাথরের ব্যবহারে মসজিদটি তৈরি করা হয়। খিলান ও গম্বুজগুলো তৈরি হয় শুধু ইট দিয়ে। মসজিদের চারকোনে চারটি বুরুজ রয়েছে। মসজিদের পূর্ব দিকের দেয়ালে পাঁচটি খিলানযুক্ত দরজা আছে। খিলানগুলো বহু ভাগে বিভক্ত এবং নানা অলঙ্করণে সমৃদ্ধ। এ ছাড়া উত্তর ও দক্ষিণে আরও তিনটি করে দরজা রয়েছে। মসজিদের একটি সিঁড়ি অভ্যন্তরে অবস্থিত একটি বিশেষ কামরায় উঠে গেছে। কামরাটি সুলতানের নামাজ আদায়ে ব্যবহূত হতো বলে ধারণা করা হয়।

মসজিদের অন্যতম বৈশিষ্ট্য হলো— বাইরের যে কোনো পাশ থেকে দেখলে কেবল পাঁচটি গম্বুজ দেখা যায়, পেছনের গম্বুজগুলো চোখে পড়ে না। সম্পূর্ণ মসজিদটির অলঙ্করণে প্রধানত পাথর এবং এরপর ইট, টেরাকোটা বা টাইল ব্যবহার করা হয়েছে। এ ছাড়া কারও কারও বর্ণনা অনুযায়ী একসময় এই মসজিদটির গোটা বহির্ভাগে অথবা গম্বুজগুলোর উপরে সোনালি রঙের আস্তরণ ছিল বলেও জানা যায়।

কীভাবে যাবেন

ঢাকার গাবতলী ও কল্যাণপুর থেকে বিভিন্ন পরিবহনের বাসে চাঁপাইনবাবগঞ্জ। এ ছাড়া ট্রেনেও রাজশাহী নেমে চাঁপাইনবাবগঞ্জ যেতে পারেন। চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে সোনামসজিদ স্থলবন্দরে যাওয়ার জন্য বাস সার্ভিস আছে।

আতিয়া জামে মসজিদ

দশ টাকার মসজিদ বললে সবাই চিনবে। টাঙ্গাইলের আতিয়া গ্রামের মুসলিম ঐতিহ্যের প্রতীক এ মসজিদ। নব্বই দশকে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের দশ টাকা নোটে উঠে এসেছিল বিখ্যাত এ মসজিদের ছবি। মধ্যযুগের এ পুরাকীর্তিটি পোড়ামাটি দিয়ে তৈরি। কিন্তু কী কারণে মসজিদটি বিখ্যাত বা নির্মাণ সাল সে বিষয়ে বিস্তারিত দিকনির্দেশনা নেই! শুধু মসজিদের নেমপ্লেটে ইংরেজিতে লেখা সাঈদ খান পন্নীর নাম। মসজিদের কেবলামুখী দেয়ালে রয়েছে তিনটি অলঙ্কৃত মেহরাব। এ ছাড়া পূর্ব ও উত্তর দেয়ালে রয়েছে চমৎকার পোড়ামাটির নকশা। মসজিদের পূর্ব আঙ্গিনায় একটি পাকা কবর রয়েছে। কবরের পাশে একটি পাকা সুড়ঙ্গ পথ। সুড়ঙ্গটি বর্তমানে বন্ধ। এই মসজিদটির নিকটেই রয়েছে স্বচ্ছ পানির বড় পুকুর। ধারণা করা হয়, ১৬০৮-১৬১১ সালের মাঝামাঝি সময়ে মসজিদটি নির্মাণ করা হয়। দূর-দূরান্ত থেকে বহু পর্যটক এখানে বেড়াতে আসেন।

ইতিহাসে পাওয়া যায়, আলী শাহান শাহর বাবা আদম কাশ্মীরি (রহ.)-কে সুলতান আলাউদ্দিন হুসায়েন শাহ টাঙ্গাইল জেলার জায়গিরদার নিয়োগ দিয়েছিলেন। সে সময় ইসলাম প্রচার এবং আনুষঙ্গিক ব্যয় নির্বাহের জন্য আফগান শাসক সোলাইমান কররানী তাকে এলাকাটি দান করেছিলেন। সে থেকে অঞ্চলটির নাম আতিয়া। পরবর্তীকালে বাবা আদম কাশ্মীরির পরামর্শক্রমে সাঈদ খান পন্নী নামক এক সুফি ১৬০৮ সালে আতিয়া মসজিদ নির্মাণ করেন। মসজিদের ভেতরের কবরটি বাবা আদম কাশ্মীরির।

কীভাবে যাবেন

ঢাকার মহাখালী বাস টার্মিনাল থেকে ঝটিকা সার্ভিস বা ধলেশ্বরী সার্ভিসে টাঙ্গাইলের পুরাতন বাসস্ট্যান্ড। এরপর সিএনজি কিংবা অটোরিকশাতে পাথরাইল বটতলা। বটতলা থেকে সিএনজি অটোরিকশায় করে আতিয়া মসজিদে পৌঁছাতে পারবেন।  এ ছাড়া ব্যক্তিগত গাড়ি নিয়ে ঘুরে আসতে পারেন।




সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত
এই পাতার আরো খবর
up-arrow