Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৪ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৪ ০০:০০
বগুড়া
হারিয়ে যাচ্ছে পাকিস্তানের সেই প্রধানমন্ত্রী মোহাম্মাদ আলীর বাড়ি
হারিয়ে যাচ্ছে পাকিস্তানের সেই প্রধানমন্ত্রী মোহাম্মাদ আলীর বাড়ি

কালে কালে বেলা হয়েছে অনেক। জমে আছে অনেক কথা আর গল্প। আবার গল্পের ধারাবাহিকতা এতটায় সব কিছু তুলে ধরা যায় না। ঠিক তেমনি বগুড়ার নবাববাড়ি। জমিদারি, নওয়াবি থেকে একটি রাষ্ট্রের প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী, কূটনৈতিক, জীবন-যাপন, শিক্ষা, কৃষ্টি কালচার, সংস্কৃতি, রাজনীতি, সাধারণ মানুষের জন্য চিন্তাচেতনার সঙ্গে মিশে আছে হাজারো গল্প। একেকটি গল্প বগুড়ার ইতিহাসে উল্লেখযোগ্য অধ্যায় হয়ে আছে। কালক্রমে সে সব সত্য গল্পের পাতায় বালু পড়ে চাপা পড়ে আছে। সঠিক যত্নের অভাবে হারাতে বসেছে সেই ইতিহাস। ইতিহাস হারাতে বসলেও এখনো নবাববাড়ির মানুষকে আলাদা একটা মর্যাদার সঙ্গেই দেখেন বগুড়ার মানুষ।
জানা যায়, টাঙ্গাইল জেলার দেলদুয়ারের বিশিষ্ট জমিদার বংশে সৈয়দ আবদুস সোবাহান চৌধুরী জন্মগ্রহণ করেন। বৈবাহিক সূত্রে তিনি বগুড়ায় বসবাস শুরু করেন। ব্রিটিশ সরকার জনহিতকর কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ সৈয়দ আবদুস সোবাহান চৌধুরীকে ১৮৮৪ সালের ২০ মার্চ ‘নওয়াব’ উপাধিতে ভূষিত করেন। শহরের করতোয়া নদীর পশ্চিম তীরে নওয়াবের জন্য প্রাসাদ নির্মাণ করা হয়। নওয়াববাড়ি কালক্রমে নবাববাড়ি বলে ডাকা হয়। নবাববাড়ির সামনের সড়কটিকে বলা হয় নবাববাড়ি সড়ক। প্রাসাদটি আজও কালের সাক্ষী হয়ে আছে। তার সময়ে তিনি বগুড়া অঞ্চলের সাধারণ মানুষকে জমি ও আর্থিকভাবে সহযোগিতা করতেন। বগুড়ার উন্নয়নে নিজের জমির ওপর বিভিন্ন কিছু নির্মাণ করেন। সান্তাহার থেকে লালমনিরহাট রেল সড়ক নিজের জায়গার ওপর নির্মাণ করে সাধারণ মানুষের জন্য উন্মুক্ত করেন।
সৈয়দ আবদুস সোবাহান চৌধুরী ছিলেন টাঙ্গাইল জেলার ধনবাড়ী এলাকার বিশিষ্ট জমিদার। তিনি বগুড়ার মানিকপুর এলাকার জমিদার বংশীয় মীর সারোয়ার আলীর বোন তহুরুন নেছাকে বিয়ে করেন। স্ত্রী তহুরুন নেছা মারা গেলে সৈয়দ আবদুস সোবাহান চৌধুরী জমিদারি লাভ করেন। তাদের সংসারে জন্ম নেন কন্যা আলতাফুননেছা। সৈয়দ আবদুস সোবাহান চৌধুরী জমিদারি লাভের পর বগুড়া অঞ্চলে শিক্ষা ও সাধারণ মানুষের সেবামূলক নানা কাজ করেন। আজও বগুড়াবাসী সে সব সুবিধা ভোগ করছেন। ১৮৮২ সালে তিনি ভিক্টোরিয়া মাদ্রাসা স্থাপন করেন। যা পরে ১৯৫৫ সালে হাইস্কুলে রূপান্তরিত এবং ১৯৯০ সালে বগুড়া সেন্ট্রাল হাইস্কুল নামকরণ করা হয়। তিনি উডবার্ন পাবলিক লাইব্রেরি, হাসপাতাল স্থাপন করেন। উডবার্ন লাইব্রেরিটি আজও টিকে আছে। হাসপাতালটি এখন তহুরুন নেছা মহিলা পরিষদ হয়েছে। তিনি একাধিক খাল খনন, শিক্ষা বিস্তারে সহযোগিতা, কৃষকদের ফসল উৎপাদনে সহযোগিতা করেন। বগুড়ার জমিদার সৈয়দ আবদুস সোবাহান চৌধুরীর কন্যা আলতাফুননেছাকে বিয়ে করেন টাঙ্গাইলের ধনবাড়ীর জমিদার নওয়াব আলী চৌধুরী। তাদের একমাত্র সন্তান নওয়াব আলতাফ আলী। সৈয়দ আবদুস সোবাহান চৌধুরী মারা গেলে তার জমিদারি এস্টেটের মোতওয়াল্লি হন আলতাফ আলী। আলতাফ আলীর সংসারে ১৯০৯ সালে জন্ম নেন সৈয়দ মোহাম্মাদ আলী চৌধুরী। পিতা আলতাফ আলী চৌধুরী মারা গেলে পুত্র মোহাাম্মাদ আলী সেই জমিদারির ২য় মোতওয়াল্লি নিযুক্ত হন। মোহাম্মদ আলী বিয়ে করেন টাঙ্গাইলের দেলদুয়ার এলাকার সাবেক লেফটেন্যান্ট মোহাম্মাদ হোসেনের কন্যা হামিদা বানুকে। মোহাম্মাদ আলীর দুই পুত্র সৈয়দ হাম্মাদ আলী ও সৈয়দ হামদে আলী। ১৯৪৭ সালে দেশ ভাগ হয়ে পাকিস্তানের জন্ম হয়। ১৯৫৩ সালে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হন মোহাম্মাদ আলী। বগুড়ায় যাওয়া আসা ছিল তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী মোহাম্মাদ আলীর। ১৯৬২ সালে জাতীয় আইন পরিষদের সদস্য পদে মোহাম্মদ আলী বগুড়ার গাবতলী-সারিয়াকান্দি আসন থেকে নির্বাচিত হয়ে তৎকালীন প্রেসিডেন্ট আইয়ুব খানের ক্যাবিনেটে পররাষ্ট্রমন্ত্রী হন। ১৯৬৩ সালে পররাষ্ট্রমন্ত্রী থাকাকালে ধানমন্ডির বাসভবনে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে নবাববাড়ির কৃতী সন্তান মোহাম্মাদ আলী ইন্তেকাল করেন। বগুড়ায় আজও দাঁড়িয়ে সেবা দিচ্ছে মোহাম্মদ আলী হাসপাতাল, আলতাফুননেছা খেলার মাঠ, সার্কিট হাউস, বগুড়া জিলা স্কুল। জেলা প্রশাসনের অফিস গড়তে আংশিক জায়গা প্রদানসহ বিভিন্নভাবেই বগুড়াকে আধুনিকভাবে গড়ার চেষ্টা ছিল অফুরন্ত। বগুড়ার নবাববাড়ির ইতিহাস ছিল রূপকথার মতো। সেই ইতিহাস এখন ধুয়ে যেতে বসেছে। বর্তমানে নবাববাড়ি শুধু নবাব প্যালেসটি নিয়ে কালের সাক্ষী হয়ে দাঁড়িয়ে আছে। যত্নের অভাবে ক্ষয়ে যাচ্ছে ইতিহাসের পাতা।
 কালের হাওয়ায় বাতাস লেগে মুছে যাচ্ছে উজ্জ্বল ইতিহাস। বর্তমানে মোহাম্মাদ আলীর ছোট ছেলে হামদে আলী বগুড়ায় অবস্থান করছেন এবং নবাব প্রাসাদটির দায়িত্ব নিয়েছেন। গড়েছেন নবাববাড়ির ইতিহাস ও নবাবের জীবন প্রণালী এবং নবাবী আমলের সভ্যতা-কৃষ্টি, সংস্কৃতিকে বর্তমান প্রজন্মের সামনে তুলে ধরার জন্য মিউজিয়াম। নাম দেওয়া হয়েছে মোহাম্মাদ আলী প্যালেস মিউজিয়াম অ্যান্ড পার্ক। এ পার্কে নবাববাড়ির ওই সময়ের পাইক-পেয়াদা বরকন্দাজের রূপকথা, মডেল করে সাজানো হয়েছে।
নবাব প্যালেসে প্রবেশ করতে গিয়ে প্রায় ২০০ বছর আগের বিশাল নকশা করা কাঠের দরজা দেখে অবাক হয়ে যেতে পারেন। মনে হবে নবাবের কোনো দারোয়ান ছুটে আসছে কোনো ফরমায়েশ নিয়ে। প্রধান ফটক পেরিয়ে ভিতরে প্রবেশ করলে দেখা যাবে তরুণী-কৃষাণি বধূরা অপেক্ষা করছে তার প্রেমিক কৃষাণের জন্য। পুরানো প্যালেসটি বিশাল এক জাদুঘর। বিনোদন কেন্দ্র, জোড়া ঘোড়ার গাড়ি, কোচয়ানদের হাতে চাবুক। অতীত দিনের নেপালি দারোয়ান, মালী, পালকি, বেহারা, কোচয়ান, টমটম, সিংহ, বাঘ, কুমির, ময়ূর, রাজহাঁস, বিভিন্ন পাখির প্রতিমূর্তি সিমেন্ট দিয়ে তৈরি করা হয়েছে। বিরাট হলরুমের দেয়ালে নবাব আবদুস সোবাহান চৌধুরী, নবাবজাদা আলতাফ আলী চৌধুরী, তৎকালীন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী মোহাম্মাদ আলী, সৈয়দ তহুরুন নেছা চৌধুরানী, সৈয়দ আলতাফুন নেছা চৌধুরানী। নবাব আমলের ঐতিহ্যকে ধরে রাখতে মরহুম শিল্পী আমিনুল করিম দুলাল প্রথম পদক্ষেপ নেন। সৈয়দ ওমর আলী চৌধুরীর উদ্যোগে শিল্পী দুলাল তার সৃষ্টিশীলতার মাধ্যমে ইতিহাসের সূতিকাগার নবাববাড়িকে রক্ষা করেন অন্যদিকে দর্শনীয় স্থানে রূপদানের চেষ্টা করেন। অতিথি আপ্যায়ন, বিলিয়ার্ড খেলা, পড়ার ঘরে বই সাজানো, জলসা ঘরে জলসার দৃশ্য, নায়েবের খাজনা আদায় এমন অনেক দৃশ্যকে জীবন্ত করে তোলার জন্য ভাস্কর্য নির্মাণ করা হয়েছে। নবাব প্যালেস পার্কে শিশুদের বিনোদনের জন্য মিনি ট্রেন ভ্রমণ, কৃত্রিম বিমান ভবন, দোলনা, কৃত্রিম পশুপাখি গড়া হয়েছে। গড়ে উঠেছে শিশু-কিশোরদের খাবার ও খেলনা সামগ্রী বিক্রয় কেন্দ্র। শতবর্ষী কর্পুর গাছ রয়েছে এ নবাববাড়িতে। এ গাছটি দেখতে বিভিন্ন প্রান্তের মানুষ ছাড়াও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, জাহাঙ্গীর নগর, চট্টগ্রামসহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক এখনো ভিড় জমান।
১৯৯৮ সালের মে মাসে মোহাম্মাদ আলী প্যালেস মিউজিয়াম অ্যান্ড পার্ক বাণিজ্যিকভাবে যাত্রা শুরু করে। প্রতিদিন সকাল ১০ থেকে রাত ৮ পর্যন্ত দর্শনার্থীদের জন্য খোলা থাকে। মিউজিয়াম দেখাশুনা করেন সৈয়দ হামদে আলী চৌধুরী। দীর্ঘদিন কানাডায় অবস্থানের পর দেশে ফিরে পিতৃ বাড়িতে অবস্থান করছেন। নবাববাড়ির সঙ্গে মরহুম শিল্পী আমিনুল করিম দুলাল কারুপল্লী নামের একটি স্টুডিও তৈরি করেন। এ স্টুডিওর মধ্যে আদিম জীবন প্রণালী নিয়ে গড়া হয় আদিম গুহা। এ ছাড়া কারুপল্লীতে সিমেন্টের বাঘ, ভাল্লুক, হরিণ, জিরাফ, সাপ, বানরসহ নানা কিছু তৈরি করেন। বর্তমানে কারুপল্লী নেই। এখন গড়া হচ্ছে বহুতল বাণিজ্যিক ভবন। বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান জায়গাটি ক্রয় করে ভবন নির্মাণ শুরু করেছে। আর কারুপল্লীর পাথুরে বাঘ ভাল্লুকের আশ্রয় হয়েছে পৌরসভার পৌরপার্কের ভিতর।

 

এই পাতার আরো খবর
up-arrow