৪ জুলাই, ২০২১ ২০:৫৩

ঘুমন্ত স্ত্রীর গায়ে পেট্রোল ঢেলে আগুন দিলেন স্বামী

নিজস্ব প্রতিবেদক, সিলেট

ঘুমন্ত স্ত্রীর গায়ে পেট্রোল ঢেলে আগুন দিলেন স্বামী

স্বামী ও তার পরিবারের লোকজনের নির্যাতন সইতে না পেরে বাবার বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছিলেন গৃহবধূ রহিমা বেগম (২০)। কিন্তু তাতেও শেষ রক্ষা হয়নি তাঁর। অভিযোগ উঠেছে, বাবার বাড়িতে ঘুমন্ত অবস্থায় পেট্রোল ঢেলে আগুন দিয়ে রহিমার শরীর ঝলসে দিয়েছেন তার স্বামী। এতে রহিমার হাত-মুখসহ শরীরের প্রায় ৬৩ শতাংশ পুড়ে গেছে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে সিলেট ওসমানী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

রবিবার ভোরে মৌলভীবাজারের বড়লেখা উপজেলার দক্ষিণভাগ দক্ষিণ ইউনিয়নের হরিপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এই ঘটনায় পুলিশ রহিমার স্বামী অভিযুক্ত শিপন আহমদকে গ্রেপ্তার করেছে।

থানা পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, বড়লেখা উপজেলার হরিপুর গ্রামের রফিক উদ্দিনের মেয়ে রহিমা বেগমের সঙ্গে প্রায় তিন বছর আগে একই ইউনিয়নের আরেঙ্গাবাদ গ্রামের মুকুল মিয়ার ছেলে শিপন আহমদের বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে নানা কারণে রহিমার সঙ্গে স্বামী ও তার পরিবারের লোকজনের ঝগড়া লেগেই থাকতো। এনিয়ে স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির লোকজন রহিমাকে শারীরিক নির্যাতন করতেন।

এদিকে নির্যাতন সইতে না পেরে প্রায় সাতমাস আগে এক সন্তানকে নিয়ে স্বামীর বাড়ি থেকে বাবার বাড়ি চলে যান রহিমা। তবে সন্তানকে দেখার অজুহাতে প্রায়ই শ্বশুর বাড়ি যেতেন রহিমার স্বামী শিপন। গত শনিবারও শিপন শ্বশুরবাড়ি যান এবং রাতে সেখানে থাকেন। ভোর পাঁচটার দিকে ঘুমন্ত স্ত্রীর গায়ে পেট্রোল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দিয়ে পালিয়ে যান শিপন। রহিমার চিৎকার শুনে স্বজনরা তাকে উদ্ধার করে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও ওসমানী হাসপাতালে নিয়ে যান।

এদিকে, ঘটনার পর রবিবার বেলা আড়াইটার দিকে উপজেলার পশ্চিম হাতলিয়া এলাকা থেকে শিপনকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

বড়লেখা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাহাঙ্গীর হোসেন সরদার বলেন, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরির্দশন করেছে। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে পেট্রোল ঢেলে রহিমাকে তার স্বামী পুড়িয়েছে। পুলিশ অভিযুক্ত শিপনকে গ্রেফতার করেছে।


বিডি প্রতিদিন/ ওয়াসিফ

এই রকম আরও টপিক

এই বিভাগের আরও খবর