শিরোনাম
প্রকাশ : ২৩ মে, ২০১৯ ২০:১৫

বাসে দ্বিগুণ ভাড়া আদায়, এক লাখ টাকা জরিমানা

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম:

বাসে দ্বিগুণ ভাড়া আদায়, এক লাখ টাকা জরিমানা

চট্টগ্রাম নগরের একে খান থেকে নওগাঁর নিয়মিত বাস ভাড়া ৮০০ টাকা। কিন্তু ঈদকে সামনে রেখে আর এম ট্রাভেলস নামের বাস নিচ্ছে ১ হাজার ৩৫০ টাকা। অন্যদিকে, কর্নেল হাট থেকে বগুড়ার নিয়মিত ভাড়া ৭৫০ টাকা। কিন্তু এখন শাহ্ ফতেহ আলী পরিবহন নিচ্ছে ১ হাজার ২৫০ টাকা। তাছাড়া ১ হাজার ২৫০ টাকা নেওয়া হলেও টিকিটে উল্লেখ আছে ১১৫০ টাকা। অলংকার থেকে রাজশাহী নিয়মিত ভাড়া ৬০০ টাকা হলেও এখানকার বেপারী পরিবহন নিচ্ছে ১ হাজার ৪০০ টাকা।

বৃহস্পতিবার দুপুর থেকে বিকাল পর্যন্ত পরিচালিত ভ্রাম্যমাণ অভিযানে এভাবে দ্বিগুণ ভাড়া আদায় করার চিত্র দেখা যায়। বিআরটিএ’র নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এস. এম. মনজুরুল হক নগরের দামপাড়া, অলংকার, একে খান ও কর্নেল হাটের বাস কাউন্টারগুলোতে সাঁড়াশি অভিযান পরিচালনা করেন।

অভিযানে বাড়তি ভাড়া আদায়, টিকিটে টাকা কম উল্লেখ করা, ভাড়ার টাকা  একেবারেই উল্লেখ না থাকাসহ নানা অপরাধে আর এম ট্রাভেলসকে ২৫ হাজার  টাকা, শাহ ফতেহ আলী পরিবহনকে ২০ হাজার টাকা, বেপারী পরিবহনকে ৩০ হাজার টাকা, লিটন পরিবহনকে ২০ হাজার টাকা ও বলেশ্বর পরিবহনকে ৫ হাজার টাকাসহ মোট এক লাখ জরিমানা করা হয়।

বিআরটিএ’র নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এস. এম. মনজুরুল হক বলেন, ‘দূর পাল্লার বাস কাউন্টারগুলোতে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের বিষয়ে আমাদের কাছে খবর আছে। তাই চারটি বড় কাউন্টারে অভিযান পরিচালনা করা হয়। অভিযানে পাঁচটি বাস সার্ভিসকে এক লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। এখন থেকে আমরা বাস কাউন্টারগুলোকে কঠোর নজরদারিতে রাখব। ঈদ উপলক্ষে কোনা বাস অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করছে কিনা, টিকিটে ভাড়া উল্লেখ আছে কিনা, কাউন্টারগুলোতে ভাড়ার চার্ট আছে কিনা এবং যাত্রীদের হয়রানি করা হচ্ছে কিনা তা আমরা তদারকি করছি। তাছাড়া দূর পাল্লার সকল পরিবহনকে ঈদ উপলক্ষে বাড়তি ভাড়া আদায় না করতে সতর্ক করে দেয়া হয়েছে। অভিযান নিয়মিত চলবে।’

বিডি প্রতিদিন/এ মজুমদার


আপনার মন্তব্য