Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : ১৮ জুন, ২০১৯ ১৬:০০
আপডেট : ১৮ জুন, ২০১৯ ১৮:৪৯

প্রকাশ্যে অস্ত্র ঠেকিয়ে প্রতি মাসে ২ লাখ টাকা চাঁদা দাবি

নিজস্ব প্রতিবেদক, বরিশাল:

প্রকাশ্যে অস্ত্র ঠেকিয়ে প্রতি মাসে ২ লাখ টাকা চাঁদা দাবি

বরিশাল নগরীর সদর রোডে প্রকাশ্যে দিবালোকে অস্ত্র দেখিয়ে এক ডায়াগনস্টিক সেন্টারে প্রতি মাসে ২ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করা হয়েছে। এ সময় ওই ডায়াগনস্টিক সেন্টারের ম্যানেজারকে মারধর করে পিস্তল মাথায় ঠেকিয়ে সাদা চেকে সাক্ষর আদায়ের চেষ্টাসহ ইয়াবা দিয়ে পুলিশে ধরিয়ে দেওয়ার হুমকি দেওয়া হয়। 

একই সাথে ডায়াগনস্টিক সেন্টারের মালিকের হাত-পা কেটে নেওয়ার হুমকি দেয় চিহ্নিত সন্ত্রাসীরা। গত শুক্রবার সকাল সাড়ে ৬টায় নগরীর সদর রোডের বেলভিউ গলিতে (দক্ষিনাঞ্চল গলি) এই ঘটনা ঘটলেও থানায় মামলা দায়ের করা হয় দুইদিন পর রবিবার রাতে। 

প্রধান অভিযুক্তের নাম সৈয়দ রফিকুল ইসলাম রাজু। সে পাশ্ববর্তী বাটার গলি এলাকার মৃত সৈয়দ আব্দুল মন্নানের ছেলে এবং সদর রোডের চিহ্নিত সন্ত্রাসী হিসেবে পরিচিত। এর আগে একাধিক সন্ত্রাসী কর্মকান্ড এবং মাদকের মামলায় একাধিকবার কারাভোগ করেছে সে। 

সদর রোডের বেলভিউ গলির প্রাইম ডায়াগনস্টিকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. কামাল সরদার জানান, গত দুই যুগেরও বেশি সময় ধরে তিনি সদর রোডে ডায়াগনস্টিক সেন্টারের ব্যবসা করছেন। ব্যবসার শুরু থেকেই সন্ত্রাসী রাজু বিভিন্ন সময় তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে চাঁদাবাজি করে আসছিলো। রোগীদের আত্মীয়-স্বজন পরিচয় দিয়ে বিভিন্ন সময় তার ডায়াগনস্টিকে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করিয়ে নামমাত্র টাকা দিয়ে বাকী টাকা আত্মসাত করে আসছিলো সে। এ কারণে তিনি গত ৩ বছর রাজুকে এড়িয়ে চলছেন। 

গত শুক্রবার সকাল সাড়ে ৬টার দিকে রাজু তার কয়েকজন সহযোগী নিয়ে প্রাইম ডায়াগনস্টিকে এসে ম্যানেজার ইকবাল হোসেন আরিফকে ডেকে বাইরে নিয়ে যায়। রাজুর সাথে ছিলো আরও ২ সহযোগী। এ সময় রাজু তার পড়নে থাকা গেঞ্জি তুলে কোমড়ে গোজা পিস্তল দেখায় এবং অপর এক সহযোগীকে ধারালো অস্ত্র বের করতে বলে। রাজু আরিফকে মারধর করে প্রতিমাসে মালিকের কাছ থেকে ২ লাখ টাকা চাঁদা এনে দিতে হুশিয়ারি দেয়। চাঁদার অগ্রীম হিসেবে একটি চেকে জোর করিয়ে সাক্ষর করিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয় তারা। পরে একটি ইয়াবার প্যাকেট বের করে পুলিশে ধরিয়ে দেয়ার হুমকি দেয় রাজু। একই সাথে ওই ডায়াগনস্টিকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের বাসায় গিয়ে তার হাত-পা কেটে নেওয়ার হুমকি দেয় তারা।  

এ ঘটনার পুরো দৃশ্য পাশ্ববর্তী সেবা ডায়াগনস্টিকের সিসি ক্যামেরায় ধারণ হয় এবং এক উৎসুক প্রতিবেশী তার মুঠোফোনে ভিডিও ধারণ করে। উৎসুক ওই প্রতিবেশী ওই ঘটনার ভিডিও চিত্র তার ফেসবুকে আপলোড করার পর ভাইরাল হয়ে যায়। 

এদিকে এ ঘটনায় নিরাপত্তাহীনতায় ২দিন পর গত রবিবার রাতে কোতয়ালী মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করেন ওই ডাগায়নস্টিকের চেয়ারম্যান মো. মজিবুল হক। 

কোতয়ালী মডেল থানার ওসি মো. নুরুল ইসলাম মামলার অভিযোগ তদন্ত করে অভিযুক্তদের গ্রেফতারসহ আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানিয়েছেন। 

বিডি প্রতিদিন/এ মজুমদার


আপনার মন্তব্য