Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ১১ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১১ আগস্ট, ২০১৯ ০০:১৫

কোরবানির পশুর হাট

বরিশালে দেশি গরুর আমদানি বেশি

নিজস্ব প্রতিবেদক, বরিশাল

বরিশালে দেশি গরুর আমদানি বেশি

বরিশালে শেষ সময় জমে উঠেছে কোরবানির পশুর হাট। গত কয়েক দিন ধরে পশুর হাট বসলেও গতকাল মূল বিক্রি শুরু হয়েছে। এর আগে ক্রেতারা এক হাট থেকে অন্য হাটে পশুর দাম যাচাই করেন। এখন শেষ সময়ে এসে ক্রেতারা কিনছেন পছন্দের পশু। তবে হাট ভেদে পশুর দাম কোথাও তুলনামূলক কম আবার কোথাও একটু বেশি বলে জানিয়েছেন ক্রেতারা। বাজারে আসা পশুর মধ্যে দেশী বা স্থানীয় জাতের গরুর আমদানি বেশি। ভারতীয় গরু আমদানি নিষিদ্ধ হলেও ফাঁক ফোঁকর                গলে কিছু বাজারে আসছে বলে জানিয়েছেন ইজারাদাররা। তবে ক্রেতাদের পছন্দ দেশীয় জাতের গরু। এবার বরিশাল নগরীতে দুটি স্থায়ী এবং চারটি অস্থায়ী পশুর হাট বসেছে। এ ছাড়া জেলার ১০ উপজেলায় বসেছে স্থায়ী-অস্থায়ী ৫৪টি পশুর হাট। অন্য বছরের মতো এবারও বরিশাল জেলার উল্লেখযোগ্য পশুর হাটগুলো হলো সদর উপজেলার চরমোনাই গরুর হাট, বাকেরগঞ্জ উপজেলার বোয়ালিয়া গরুর হাট, বানারীপাড়ার গুয়াচিত্রা গরুর হাট এবং গৌরনদী উপজেলার কসবা গরুর হাট। যশোর, কুষ্টিয়া, ঝিনাইদহ, বাগেরহাট, ফরিদপুর থেকে বেপারীরা পশু নিয়ে আসছেন বরিশালের পশুরহাটগুলোতে। এ ছাড়া বরিশাল জেলার স্থানীয় খামার এবং গৃহস্থের পশুও আসছে বরিশলের হাটগুলোতে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, বরিশালে কোরবানির পশুর চাহিদার ৮০ ভাগ জোগান হয় স্থানীয়ভাবে। বাকি ২০ ভাগ আসে আশপাশের জেলা থেকে।

এবার অস্থায়ী হাটগুলো কোরবানির এক সপ্তাহ আগে শুরু হয়ে চলবে কোরবানিীর আগের রাত পর্যন্ত। এবার পশুর হাটগুলোতে শতকরা ৫ টাকা হারে খাজনা আদায় করার অনুমোদন দিয়েছে প্রশাসন।

বরিশাল প্রাণী সম্পদ অধিদফতর সূত্র জানায়, ২০১৮ সালে (গত বছর) বরিশাল বিভাগে ৪ লাখ ৮০ হাজার ৩৬৫টি পশু কোরবানি হয়। এর মধ্যে গরু ৩ লাখ ৪৫ হাজার ৮৫২ টি , ছাগল ১ লাখ ৩২ হাজার ১৬৩ টি, ভেড়া ২ হাজার ৩৩৬ টি  এবং অনান্য পশু ১৪ টি। এর মধ্যে বরিশাল জেলায় কোরবানী করা হয় ১ লাখ ২৬ হাজার ৭৫৮ টি পশু। 

জেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা. মো.  নুরুল আলম এবং বিভাগীয় প্রাণী সম্পদ অধিদফতরের উপ-পরিচালক ডা. কানাই লাল স্বর্ণকার জানান, দেশের উত্তরাঞ্চলের বন্যা পরিস্থিতি এবং দেশব্যাপী ডেঙ্গু ছড়িয়ে পড়ার কারণে এবার পশু কোরবানির সংখ্যা গত বছরের চেয়ে বাড়বে না। এ কারণে বরিশাল বিভাগে এবার পশুর চাহিদা গত বছরের মতো একই রকম বলে জানিয়েছেন তারা।

এদিকে জেলা ও নগরীর পশুর হাটগুলোতে জাল টাকা শনাক্তকরণে বিশেষ পদক্ষেপ নিয়েছে প্রশাসন। এ ছাড়া সব পশুর হাটের নিরাপত্তায় পর্যাপ্ত ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে বলে পুলিশ প্রশাসনের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। 

 

 


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর