শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ৩ মার্চ, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ৩ মার্চ, ২০২০ ০১:০১

ঢাকা-১০ উপনির্বাচন

নির্বাচনী প্রচারে দুই প্রার্থী

নিজস্ব প্রতিবেদক

নির্বাচনী প্রচারে দুই প্রার্থী

নৌকাকে স্বাধীনতা, উন্নয়ন এবং অগ্রযাত্রার মার্কা আখ্যায়িত করে এই প্রতীককে বিজয়ী করতে জনগণের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন ঢাকা-১০ আসনের উপ-নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী সফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন। গতকাল ধানমন্ডির ৩২ নম্বর সড়কে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানানোর মাধ্যমে আনুষ্ঠিকভাবে নির্বাচনী প্রচারণায় নামার সময় তিনি এ আহ্বান জানান। সফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন বলেন, ঢাকা-১০ আসনে বিগত ১১ বছরে ব্যাপক উন্নয়নমূলক কাজ হয়েছে। বিগত সংসদ সদস্য ( শেখ ফজলে নূর তাপস) তার উন্নয়নমূলক কর্মকাে র মাধ্যমে এই এলাকার মানুষের হৃদয়ে স্থান করে নিয়েছেন। তারই ধারাবাহিকতায় আমি নির্বাচিত হতে পারলে বিগত সংসদ সদস্য মহোদয়ের অসমাপ্ত কাজগুলো সমাপ্ত করব। এসময় ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ, সাংগঠনিক সম্পাদক মোর্শেদ কামাল, সাবেক ছাত্রনেতা জয়দেব নন্দীসহ স্থানীয় আওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগ, যুবলীগসহ সহযোগী সংগঠনের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

ভোটে মানুষের শঙ্কা অনাগ্রহ-রবি : সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন অনুষ্ঠানে নির্বাচন কমিশন সক্ষম নয় বলে মন্তব্য করেছেন ঢাকা-১০ আসনের উপনির্বাচনে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী শেখ রবিউল আলম রবি। তিনি বলেছেন, বিগত নির্বাচনগুলোতে জনগণ তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারেনি। এতে ভোটে মানুষের শঙ্কা এবং অনাগ্রহ তৈরি হয়েছে। জনগণের কেন্দ্রে গিয়ে ভোট দেওয়ার সুযোগ কম। তবে রাজনৈতিক দল হিসেবে সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য বিএনপি যে আন্দোলন করছে সে কারণেই আমি নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছি। নির্বাচনী প্রচারণার দ্বিতীয় দিন গতকাল বিকালে গণসংযোগকালে এ কথা বলেন তিনি। এর আগে সকাল থেকে রাজধানীর কলাবাগান, আবাহনী মাঠ, রবীন্দ্র সরোবর, কাঁঠালবাগান, গ্রিন রোড, ফ্রি স্কুল স্ট্রিট রোড, বাংলামোটরসহ বিভিন্ন এলাকায় গণসংযোগ করেন ধানের শীষের এই প্রার্থী। এ সময় রাজধানীর ১৬ নম্বর ওয়ার্ডে নির্বাচনী অফিসের উদ্বোধন করা হয়। বিকালে প্রচারণার সময় লিফলেট বিতরণ নিয়ে হাতিরপুলে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সঙ্গে ভুল বোঝাবুঝি হয়। পরে বিষয়টির সুরাহা হলে গণসংযোগ শুরু করেন তিনি।

প্রচারণায় রবিউল আলমের সঙ্গে ধানমন্ডি থানা বিএনপির সিনিয়র সহসভাপতি কাবিরুল হায়দার চৌধুরী, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক শাহাদাৎ হোসেন সৈকত, কলাবাগান থানা বিএনপির সভাপতি মো. সিরাজুল ইসলাম, স্থানীয় বিএনপি নেতা মাইনুল ইসলাম মাইনু, ছাত্রদলের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ, ছাত্রদল নেতা, সবুজ, হাসানসহ স্থনীয় বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের বিপুলসংখ্যক নেতা-কর্মী অংশ নেন।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর