শিরোনাম
প্রকাশ : ২৩ মে, ২০২০ ১৮:২৬
প্রিন্ট করুন printer

যুক্তরাষ্ট্রে করোনা রোগীর ৩৫ শতাংশ ছিলেন উপসর্গহীন

যুক্তরাষ্ট্র প্রতিনিধি:

যুক্তরাষ্ট্রে করোনা রোগীর ৩৫ শতাংশ ছিলেন উপসর্গহীন

কোন ধরনের উপসর্গ ছাড়াই আমেরিকায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ছিলেন মোট রোগীর ৩৫ শতাংশ। যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় রোগ নিয়ন্ত্রণ এবং প্রতিষেধক সেন্টার (সিডিসি)’র পক্ষ থেকে পরিচালিত সর্বশেষ এক পর্যবেক্ষণ প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা গেছে। 

করোনা প্রতিরোধ এবং সংক্রমণ রোধে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের লক্ষ্যে সিডিসির পক্ষ থেকে বিভিন্ন ধরনের ৫টি পরিকল্পনা গ্রহণের সময় এ পর্যবেক্ষণ উঠে এসেছে। এরমধ্যে রয়েছে সংক্রমণের গতি-প্রকৃতি, আক্রান্ত হবার প্রাক্কালের লক্ষণ এবং কোন ধরনের লক্ষণ না থাকা। অর্থাৎ ইতিমধ্যেই যেসব লক্ষণ নির্দ্ধারণ করা হয়েছে তার একটিও রোগীর দেহে না থাকা। 

গভীর এই গবেষণা-পর্যবেক্ষণের পর সিডিসি ২২ মে শুক্রবার এ তথ্য প্রকাশ করেছে। এই শ্রেণীর রোগীর মাধ্যমে খুব বেশী সংখ্যক মানুষের মাঝে ভাইরাসের বিস্তার ঘটেছে। কারণ, তাপমাত্রা স্বাভাবিক, সর্দি-কাশী নেই, মাথা ব্যথা নেই, চোখও স্বাভাবিক, শারীরিক দুর্বলতা না থাকায় কেউই এ নিয়ে চিন্তিত ছিলেন না। 

সিডিসি উল্লেখ করেছে যে, এমন লক্ষণওয়ালা রোগীর সংস্পর্শে আসা লোকজনের মধ্যে যারা করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন তাদের মারা যাবার শঙ্কা ০.৪ শতাংশ। সিডিসির বিশ্লেষণ অনুযায়ী যুক্তরাষ্ট্রে মোট আক্রান্তের মধ্যে মারা যাবার হার বেড়েছে ১ শতাংশ।
 
সিডিসি উল্লেখ করেছে যে, শারীরিকভাবে দুর্বল হয়ে পড়ার আগেই ৪০ শতাংশ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হচ্ছেন। 


বিডি প্রতিদিন/হিমেল


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৮ জানুয়ারি, ২০২১ ০৬:২১
প্রিন্ট করুন printer

কোয়ারেন্টাইনের নিয়ম ভাঙায় এক ব্যক্তিকে সাড়ে ২৯ লাখেরও বেশি টাকা জরিমানা

অনলাইন ডেস্ক

কোয়ারেন্টাইনের নিয়ম ভাঙায় এক ব্যক্তিকে সাড়ে ২৯ লাখেরও বেশি টাকা জরিমানা
তিনি তিন দিনে সাতবার তার অ্যাপার্টমেন্ট থেকে বের হয়েছিলেন

একে একে সাতবার হোম কোয়ারেন্টাইনের নিয়ম ভাঙায় তাইওয়ানের এক ব্যক্তিকে ১০ লাখ তাইওয়ানি ডলার (৩৫ হাজার মার্কিন ডলার) জরিমানা করা হয়েছে। বাংলাদেশ মুদ্রায় যা ২৯ লাখ ৬৫ হাজার ৯০০ টাকা (প্রতি ডলার ৮৪.৭৪ টাকা)।

এই জরিমানা এখন পর্যন্ত তাইওয়ানে সর্বোচ্চ। ওই ব্যক্তিকে তার কোয়ারান্টাইনের খরচের জন্য প্রতিদিন ৩ হাজার এনটিডি (১০৭ মার্কিন ডলার) দিতে হবে।  তাইওয়ান সরকার প্রতিদিন ১ হাজার এনটিডি (৩৫ ডলার) করে ক্ষতিপূরণ দেয় কোয়ারেন্টইনে থাকা ব্যক্তিদের, এই সুবিধা থেকেও বঞ্চিত হবেন ওই ব্যক্তি।

ওই ব্যক্তি মধ্য তাইওয়ানের তাইচুংয়ে থাকেন। তিনি চীনে ব্যবসায়িক ভ্রমণ থেকে ফিরে আসার পর তার অ্যাপার্টমেন্টে কোয়ারান্টাইনে থাকাকালীন সময়ে ওই  নিয়ম ভঙ্গ করেন। 

তিনি তিন দিনে সাতবার তার অ্যাপার্টমেন্ট থেকে বের হয়েছিলেন। কেনাকাটা, গাড়ি ঠিক করাসহ নানা কাজ করেছেন। কোয়ারেন্টাইনের সময় বারবার বাড়ি থেকে বের হওয়া নিয়ে এক প্রতিবেশির সাথে তিনি বিবাদেও জড়ান। 

তাইচুংয়ের স্থানীয় সরকার জানায়, ২১ জানুয়ারি চীনের মূল ভূখণ্ড থেকে দেশের ফেরেন ওই ব্যক্তি। তাইওয়ানের নিয়ম অনুযায়ী দূর ভ্রমণের পর নাগরিকদের ১৪ দিনের জন্য কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হয়।

ওই ব্যক্তির কোয়ারেন্টাইন ভঙ্গকে ‌‘গুরুতর অপরাধ’ বলে নিন্দা জানিয়েছেন তাইচুংয়ের মেয়র লু শিও-ইয়েন। তাকে অবশ্যই কঠোর শাস্তি পেতে হবে বলেও তিনি সতর্ক করেন।  

সূত্র: সিএনএন  

বিডি প্রতিদিন/জুনাইদ আহমেদ

 

 


 


 
  


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৮ জানুয়ারি, ২০২১ ০৩:২৯
প্রিন্ট করুন printer

করোনার নতুন ধরন

বাহরাইনে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও রেস্তোরাঁয় নতুন নির্দেশনা

একরামুল হক টিটু, বাহরাইন

বাহরাইনে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও রেস্তোরাঁয় নতুন নির্দেশনা

বাহরাইনে নতুন ধরনের করোনাভাইরাসের সন্ধান মিলেছে। দেশটিতে করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের জন্য গঠিত জাতীয় টাস্কফোর্স ২৭ জানুয়ারি এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য নিশ্চিত করে। 

এজন্য হোটেল-রেস্তোরাঁ ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে এসেছে নতুন নির্দেশনা। এতে বলা হয়েছে, আগামী ৩১ জানুয়ারী থেকে সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে ৩ সপ্তাহের জন্য রেস্তোরাঁগুলোর ভেতরে বসে খাওয়া স্থগিত থাকবে। এ ছাড়া একই দিন থেকে ৩ সপ্তাহের জন্য সকল কিন্ডারগার্টেন, সরকারি-বেসরকারি বিদ্যালয় ও উচ্চশিক্ষার প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থী উপস্থিতি স্থগিত থাকবে। 

সংবাদ মাধ্যমের অপর তথ্য অনুযায়ী, শ্রম ও সামাজিক উন্নয়ন মন্ত্রণালয় দ্বারা অনুমোদিত সরকারি পুনর্বাসন কেন্দ্র, নার্সারি ও বেসরকারি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র ও ইনস্টিটিউটগুলোতেও উপস্থিতি স্থগিত থাকবে। তবে সব প্রতিষ্ঠানের প্রশাসনিক, শিক্ষামূলক ও প্রযুক্তিগত সংস্থার সদস্যদের উপস্থিতি থাকবেন। 

উল্লেখ্য, দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার পর গেল বছরের ২৪ অক্টোবর সর্বোচ্চ ৩০ জনের মতো বসে খাওয়ার বিধান রেখে খুলে দেওয়া হয় খাবার হোটেলগুলো। এক দিন পর অনুমতি মিলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার। এবার চলতি বছরের ২৭ জানুয়ারি নতুনরূপের করোনাভাইরাস নিশ্চিতের পর তিন মাসের ব্যবধানে নতুন নির্দেশনা এলো। 

বিডি প্রতিদিন/জুনাইদ আহমেদ

 

 


 


 
  


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৭ জানুয়ারি, ২০২১ ১৬:০৬
আপডেট : ২৭ জানুয়ারি, ২০২১ ১৬:৩৭
প্রিন্ট করুন printer

২৪ ঘণ্টায় করোনায় মৃত্যু ও শনাক্তের সর্বশেষ তথ্য

অনলাইন ডেস্ক

২৪ ঘণ্টায় করোনায় মৃত্যু ও শনাক্তের সর্বশেষ তথ্য

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আরও ১৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মোট মৃত্যু হয়েছে ৮ হাজার ৭২ জনের।

নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন ৫২৮ জন। সবমিলিয়ে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে পাঁচ লাখ ৩৩ হাজার ৪৪৪ জনে।

বুধবার বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

 

বিডি প্রতিদিন/ ওয়াসিফ


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৭ জানুয়ারি, ২০২১ ১৫:৩০
প্রিন্ট করুন printer

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় দেয়া হবে করোনার ১২ হাজার ডোজ টিকা

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি:

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় দেয়া হবে করোনার ১২ হাজার ডোজ টিকা

আগামী এক সপ্তাহের মধ্যেই ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় করোনাভাইরাসের টিকাদান কার্যক্রম শুরু হবে বলে জানিয়েছেন জেলার সিভিল সার্জন মোহাম্মদ একরাম উল্লাহ। প্রথম পর্যায়ে করোনাযুদ্ধের ফ্রন্টলাইনারদের টিকা দেয়া হবে। বুধবার দুপুরে মুঠোফোনে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন তিনি। টিকাদানের জন্য সবধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ। চিকিৎসক ও টিকাদানকর্মীদের প্রশিক্ষণও শেষ পর্যায়ে।

সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, জেলায় এখন পর্যন্ত মহামারি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন দুই হাজার ৮০০ জন। এর মধ্যে মারা গেছেন ৪৫ জন। সবকিছু ঠিক থাকলে আগামী এক সপ্তাহের মধ্যেই জেলায় সরকারিভাবে টিকাদান শুরু হবে। দুই-তিনদিনের মধ্যেই জেলায় ১২ হাজার ডোজ টিকা এসে পৌঁছাবে। এরপর সেগুলো কোল্ড স্টোরে সংরক্ষণ করা হবে। জেলা সদর হাসপাতাল ও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সগুলোতে টিকা দেয়া হবে।

টিকা প্রদানের জন্য চিকিৎসক ও টিকাদানকর্মীদের প্রশিক্ষণ চলছে। আর টিকাদানের জন্য জেলা সদরে আটটটি ও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সগুলোতে দুইটি করে টিম গঠন করা হয়েছে। প্রতিটি টিমে দুইজন করে টিকাদানকর্মী ও চারজন করে স্বেচ্ছাসেবক রয়েছেন।

সিভিল সার্জন মোহম্মদ একরাম উল্লাহ বলেন, টিকাদানের জন্য আমাদের সবধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। টিকা আসার পর সেগুলো সংরক্ষণ করার জন্য সংরক্ষণাগারও প্রস্তুত করা হয়েছে। টিকা গ্রহণের জন্য অনলাইনে নিবন্ধন করতে হবে। নিবন্ধন সম্পন করার পর টিকাগ্রহীতার মুঠোফোনে ক্ষুদেবার্তার মাধ্যমে জানিয়ে দেয়া হবে, তিনি কবে-কোথায় টিকা গ্রহণ করবেন। আশা করছি এক সপ্তাহের মধ্যেই ফ্রন্টলাইনারদের টিকা প্রদানের মাধ্যমে টিকাদান কর্মক্রম শুরু হবে।

বিডি প্রতিদিন/ মজুমদার 


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৭ জানুয়ারি, ২০২১ ১৪:৩৪
আপডেট : ২৭ জানুয়ারি, ২০২১ ১৫:২৩
প্রিন্ট করুন printer

সেপ্টেম্বরের মধ্যে সকল আমেরিকানকে টিকা

যুক্তরাষ্ট্র প্রতিনিধি :

সেপ্টেম্বরের মধ্যে সকল আমেরিকানকে টিকা

সেপ্টেম্বরের মধ্যেই সকল আমেরিকানকে করোনার টিকা প্রদানের একটি পরিকল্পনা উপস্থাপন করেছেন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। ক্ষমতা গ্রহণের ১০০ দিনের মধ্যে ১০০ মিলিয়ন টিকা প্রদানের লক্ষ্যমাত্রা কিছুটা পরিবর্তন করে দৈনিক দেড় মিলিয়নের কথাও বললেন ডেমক্র্যাটিক পার্টির এই প্রেসিডেন্ট। 

মঙ্গলবার প্রদত্ত এসব কর্মসূচির তথ্য উপস্থাপনকালে বাইডেন পুনরায় উল্লেখ করেছেন যে, করোনা মহামারিকে যুদ্ধাবস্থা বিবেচনায় সকলকে সোচ্চার থাকতে হবে। পাশাপাশি টিকা প্রদানের কর্মসূচি বাস্তবায়িত করা সম্ভব হলেই এ যুদ্ধে জিতবে আমেরিকা। এ সময় বাইডেন আরো বলেছেন, সামনের সপ্তাহ থেকে টিকার সরবরাহ ব্যবস্থা ট্র্যাকে ফিরবে। দ্রুতই আরো ২০০ মিলিয়ন ডোজ ভ্যাকসিন ক্রয়ের কথাও জানিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট। 

গ্রীষ্মকালের মধ্যেই সকল আমেরিকানকে টিকা প্রদানের এই পরিকল্পনা প্রসঙ্গে বাইডেন বলেন, আমরা জানি কভিড-১৯কে কীভাবে পরাস্থ করতে হবে। সেটি হচ্ছে সম্মিলিতভাবে। সমগ্র জাতিকে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে সবকিছু করতে। আর আমরা সবকিছু করবো বিজ্ঞানসম্মতভাবে, বাস্তবতার আলোকে। রাজনৈতিক মতলবে নয়। সত্যকে মেনে নিয়ে, ভয়াবহতাকে অবজ্ঞা না করে, করোনা দমনে বিস্তারিত কর্মসূচিতে আমরা এগুবো। 

ঘোষিত পরিকল্পনার আলোকে আরো ১০০ মিলিয়ন ভ্যাকসিন কেনা হবে ফাইজার-বায়োএনটেক থেকে এবং আরো ১০০ মিলিয়ন ভ্যাকসিন ক্রয় করতে হবে মডার্না থেকে। ইউএস ফুড এ্যান্ড ড্রাগ এডমিনিস্ট্রেশন (এফডিএ)এর নির্দেশ অনুযায়ী প্রত্যেককে নির্দিষ্ট সময়ের ব্যবধানে দুটি করে ডোজ নিতে হচ্ছে। বাইডেনের চাহিদার পরিপূরক টিকা সরবরাহের জন্যে কোম্পানীগুলো উৎপাদন জোরদার করেছে বলে জানা গেছে। বাইডেন বলেন, গ্রীষ্মের মধ্যেই প্রয়োজনীয়সংখ্যক ভ্যাকসিন স্টেটসমূহে পৌঁছে যাবে। 

উল্লেখ্য, করোনার টিকা বিনামূল্যে পাচ্ছেন আমেরিকানরা। নতুন এ পরিকল্পনা অনুযায়ী ভ্যাকসিন ক্রয়ের পরিমাণ ৪০০ মিলিয়ন থেকে বেড়ে ৬০০ মিলিয়ন হবে। একেকজনের দুৃই ডোজ করে মোট ৩০০ মিলিয়ন আমেরিকানের জন্যে তা যথেষ্ঠ। জনসংখ্যা ৩৩০ মিলিয়ন তথা ৩৩ কোটি হলেও শিশুরা বাদ যাবে। দুই বছরের কম বয়েসী শিশুর টিকার প্রয়োজন নাও হতে পারে বলে চিকিৎসা-বিজ্ঞানীরা মনে করছেন। 

করোনার টিকা সরবরাহ ব্যবস্থায় যে জটিলতা সৃষ্টি হয়েছিল তা দ্রুতই কেটে যাবে বলে উল্লেখ করেন বাইডেন। তিনি বলেছেন সাপ্তাহিক সাপ্লাইয়ের কোটা পুরোদমে চালু হবে সকল গন্তব্যে। বর্তমানে সপ্তাহে ৮৬ লাখ ভ্যাকসিনের সরবরাহ ব্যবস্থা চালু থাকলেও তা ১০ মিলিয়নে উত্তীর্ণ করার কথা বলেছেন তিনি। একইসাথে স্টেটসমূহে যাতে এক সপ্তাহের টিকা মজুদের স্থলে তিন সপ্তাহের মজুদ করা যায় সে পথেও হাঁটছে হোয়াইট হাউজ। তাহলে সাপ্লাইয়ের সংকট কোন কর্মসূচিতে ব্যাঘাত ঘটাতে পারবে না। বাইডেনের কোভিড সম্পর্কিত সমন্বয়কারি জেফ জিয়েন্টস নিউইয়র্কসহ বিভিন্ন স্টেটের গভর্ণরকে মঙ্গলবার বিকেলে ফোন করে জানিয়েছেন সামনের সপ্তাহ থেকে তারা পূর্বঘোষিত পরিমাণের চেয়ে ১৬% বেশি ভ্যাকসিনের সরবরাহ পাবেন। 

সিডিসি থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী মঙ্গলবার বিকেল পর্যন্ত ২ কোটি ২৭ লাখ আমেরিকানকে টিকা প্রদান করা হয়েছে। ঐ সময়ের মধ্যে করোনায় মারা গেছেন ৪ লাখ ২১ হাজার ৮০০ আমেরিকান।


বিডি প্রতিদিন/ ওয়াসিফ


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর