শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ৬ জুলাই, ২০১৫ ০০:০০ টা
আপলোড : ৬ জুলাই, ২০১৫ ০০:০০

ডাকাতি করতে এসে ধর্ষণ, নগ্ন ছবি ধারণ

ডাকাতি করতে এসে ধর্ষণ, নগ্ন ছবি ধারণ

যশোর শহরের সিটি কলেজ পাড়ার একটি বাড়িতে ডাকাতি, শিশু ধর্ষণ ও দম্পতিকে নগ্ন করে ছবি ধারণের ঘটনা ঘটেছে। শুক্রবার রাতে তারাবির নামাজের সময় এ ঘটনা ঘটে। ধর্ষণের শিকার ওই শিশুটি মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে শনিবার রাতে আত্দহত্যার চেষ্টা চালালে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এদিকে এ ব্যাপারে ঘটনার শিকার গৃহবধূ বাদী হয়ে শনিবার রাতে যশোর কোতোয়ালি থানায় মামলা করেছেন। মামলায় শহরের নীলগঞ্জ তাঁতিপাড়া এলাকার ইব্রাহিম ওরফে টাক ইব্রাহিম, যশোরের স্থানীয় একটি পত্রিকার ফটো সাংবাদিক ইলিয়াস সাজু বাদশা, আরএন রোড এলাকার বিল্লাল, তরিকুল, সাইদুল, লাকু বিশ্বাস, রানা ও সোহরাবকে আসামি করা হয়েছে। শনিবার রাতে অভিযান চালিয়ে পুলিশ তরিকুল ও বিল্লালকে আটক করেছে। মামলার বাদীর স্বামী জানান, শুক্রবার (৩ জুলাই) তারাবির নামাজ শেষে বাসায় ঢুকে দেখতে পান শহরের নীলগঞ্জ তাঁতিপাড়া এলাকার ইব্রাহিম, একই এলাকার রানা, ইলিয়াস সাজু ওরফে বাদশাসহ সাতজন তার বাসায় অবস্থান করছে। এদের একজন তাকে চড়-থাপ্পড় মেরে সোফার ওপর বসিয়ে শরীর থেকে পাঞ্জাবি খুলে ফেলে। এরপর তার বাসায় আশ্রিতা কিশোরীকে নগ্ন করে তার সঙ্গে বেশ কয়েকটি ছবি তোলে। এসব ঘটনা ফাঁস করলে ছবি পত্রিকা ও ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দেওয়া হয়। মামলার বাদী গৃহবধূ বলেন, দুর্বৃত্ত দলটি বাসার ডোর বেল চাপলে আমার নয় বছরের মেয়েটি দরজা খুলে দেয়। এরপর তারা ঘরে ঢুকে প্রথমে আমাকে নগ্ন করে কয়েকটি ছবি তোলে। তারপর হাত-পা বেঁধে ফেলে। পরে দুর্বৃত্তদের দুজন আমার বাসায় আশ্রিতা ১৪ বছর বয়সী শিশুকে পর্যায়ক্রমে ধর্ষণ করে। বাদী বলেন, কয়েকদিন আগে ওই চক্রটি আমার স্বামীর কাছে চাঁদা চেয়েছিল। চাঁদা না দেওয়ায় শুক্রবার তারা এই পৈশাচিক ঘটনা ঘটায়। যশোর কোতোয়ালি থানার ওসি জানান, তিনি ওই কিশোরীকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করান। ঘটনার শিকার মেয়েটি মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে বলেও তিনি জানান।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর