শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ১৮ জুন, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৭ জুন, ২০২১ ২২:৫১

বিদ্যুৎ কেন্দ্রের চার ইউনিট বন্ধ হুমকিতে নৌ-চলাচল

কাপ্তাই হ্রদে পানি সংকট

ফাতেমা জান্নাত মুমু, রাঙামাটি

বিদ্যুৎ কেন্দ্রের চার ইউনিট বন্ধ হুমকিতে নৌ-চলাচল
Google News

রাঙামাটির কাপ্তাই হ্রদে আশঙ্কাজনক হারে কমেছে পানি। এতে সংকট তৈরি হয়েছে কর্ণফুলী পানিবিদ্যুৎ কেন্দ্রে। ২৩০ মেগাওয়াট উৎপাদন ক্ষমতাসম্পন্ন এ কেন্দ্রের পাঁচটি ইউনিটের মধ্যে বন্ধ হয়ে গেছে চারটি। ফলে বিদ্যুৎ উৎপাদন হচ্ছে মাত্র ২৫ মেগাওয়াট; যা স্বাভাবিকের চেয়ে অনেক কম। সমস্যা তৈরি হয়েছে কাপ্তাই হ্রদে নৌ-চলাচলেও। পানিস্বল্পতার কারণে এরই মধ্যে নৌ-যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়েছে রাঙামাটির ছয় উপজেলার সঙ্গে। সেগুলো হলো বরকল, জুরাছড়ি, বিলাইছড়ি, হরিনা, লংগদু, নানিয়ার চর ও বাঘাইছড়ি। এতে দুর্ভোগে পড়েছেন পাহাড়ের বাসিন্দারা। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানান, টানা খরায় দ্রুত কমেছে কাপ্তাই হ্রদের পানি। দীর্ঘদিন বৃষ্টি না হওয়ায় শুকিয়ে গেছে জেলার খাল-বিল, ছড়া, ঝর্ণা ও নদীর পানি। এতে নানামুখী সংকটে পড়েছেন জেলাবাসী। দুর্গম উপজেলাগুলোয় বন্ধ লঞ্চ চলাচল। স্থানীয়রা জানান, প্রতি বছর শুষ্ক মৌসুমে এমন দুর্ভোগ দেখা দিলেও এবার কষ্টের মাত্রা বেড়েছে কয়েক গুণ। রাঙামাটি লঞ্চ মালিক সমিতির সহসভাপতি মঈনুদ্দীন সেলিম বলেন, ‘কয়েক মাস ধরে দুর্গম ছয় উপজেলার সঙ্গে লঞ্চ চলাচল বিচ্ছিন্ন রয়েছে। কাপ্তাই হ্রদের তলদেশ ভরাট হয়ে যাওয়ায় শুষ্ক মৌসুমে সৃষ্টি হয় বহু ডুবোচর। যার কারণে লঞ্চ চলালচ হুমকিতে পড়ে। ড্রেজিং না হওয়ায় এ সমস্য দিন দিন বাড়ছে।’ কর্ণফুলী পানিবিদ্যুৎ কেন্দ্রের ব্যবস্থাপক প্রকৌশলী এ টি এম আবদুজ্জাহেদ বলেন, ‘কাপ্তাই হ্রদে পানিস্বল্পতার কারণে কর্ণফুলী পানিবিদ্যুৎ কেন্দ্রে মারাত্মক উৎপাদন ঘাটতি দেখা দিয়েছে। ২৩০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতাসম্পন্ন কেন্দ্রের পাঁচ ইউনিটের মধ্যে চালু আছে মাত্র একটি। পিক-আওয়ারে রেশনিং পদ্ধতিতে বর্তমানে দৈনিক সর্বোচ্চ ২৫ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন সম্ভব হচ্ছে। বৃষ্টি না হওয়া পর্যন্ত সংকট বাড়তে পাড়ে।’