শিরোনাম
প্রকাশ : ২০ জানুয়ারি, ২০২১ ১৯:৩৮
প্রিন্ট করুন printer

তেঁতুলিয়ায় দৃষ্টিনন্দন পরিবেশে গৃহহীনদের বাড়ি

সরকার হায়দার, পঞ্চগড়

তেঁতুলিয়ায় দৃষ্টিনন্দন পরিবেশে গৃহহীনদের বাড়ি

পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া উপজেলার মহানন্দা নদীর তীর ঘেঁষে গড়ে উঠেছে কাশিমগঞ্জ গ্রাম। এই গ্রামেই গৃহহীন পরিবারের জন্য নির্মিত হয়েছে ৯টি পাকা বাড়ি। নদীর পাড়ের আশপাশে অবারিত মাঠ। চারদিক ফল-ফসলের গাছপালা। সবুজের সমারোহে গড়ে উঠেছে গৃহহীনদের এই পল্লী। দৃষ্টিনন্দন বিভিন্ন এলাকায় পরিকল্পিতভাবে গৃহহীনদের জন্য গুচ্ছগ্রাম প্রতিষ্ঠিত করা হয়েছে উত্তরের পর্যটন এলাকা তেঁতুলিয়ায়।

রনচন্ডি এলাকায় গৃহহীনদের বাড়ি নির্মাণে জমি পাওয়া যাচ্ছিল না। এসময় এগিয়ে আসেন বীর মুক্তি যোদ্ধা আব্দুল মালেক। তিনি গৃহহীনদের জন্য ৯০ শতক কৃষি জমি দান করেছেন। এই জমিতে গড়ে উঠেছে ৩২টি বাড়ি। গুচ্ছগ্রামটির নামকরণ করা হয়েছে বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মালেক নগর গুচ্ছ গ্রাম।

এই গুচ্ছ গ্রামে যাতায়াতের জন্য নির্মিত হচ্ছে পাকা সড়ক। সড়কের নাম বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মালেক স্মরণী। সংযুক্ত করা হয়েছে সোলার প্যানেল। দেয়া হয়েছে বিদ্যুৎ সংযোগ। নিরাপদ পানির জন্য বসানো হয়েছে টিউবওয়েল। গুচ্ছ গ্রামের শিশুদের মনন বিকাশে প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে মুক্তিযোদ্ধা সাংস্কৃতিক সংঘ।

বুড়াবুড়ি এলাকার ডাহুক নদীর অপার সৌন্দর্যের ভেতরে গড়ে উঠেছে আরেকটি গুচ্ছ গ্রাম। এই গুচ্ছ গ্রামে বসবাস করবে ১২টি পরিবার। দেবনগর ইউনিয়নের ঝালিঙ্গি পুকুর পাড় ঘিরে গড়ে উঠেছে ঝালিঙ্গি গুচ্ছগ্রাম। পুকুর আর অবারিত কৃষি জমি ঘিরে গড়ে উঠেছে এটি।

গৃহহীন মানুষেরা এসব এলাকায় বাড়ি পেয়ে আত্মবিশ্বাসী হয়ে উঠেছে। তারা বলছেন, নিজের এবার বাড়ি, নিজের ঘরে ঘুমানোর স্বপ্ন পূরণ হয়েছে।

বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মালেক জানান, বঙ্গবন্ধুর দেখানো যে স্বপ্নে মুক্তিযুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়েছিলাম গৃহহীনদের বাড়ি করার জন্য জমি দিতে পেরে নিজের সেই স্বপ্ন পূরণ হয়েছে। আমি গর্ব অনুভব করছি। মনোরম পরিবেশে এই বাড়িগুলো নির্মাণ করা হয়েছে।

কাশিমগঞ্জ গুচ্ছ গ্রামের ফারুক হোসেন জানান, নদীর পাড়ে বাড়ি পেয়েছি। আশপাশে অনেক গাছ গাছালী। শিশুদের খেলাধুলার মাঠও রয়েছে। এমন সুন্দর প্রাকৃতিক পরিবেশে বাড়ির স্বপ্ন দেখেছিলাম। সত্যি সত্যি এমন বাড়ি পেয়ে যাব ভাবতেই পারিনি। 

জানা গেছে, প্রায় প্রত্যেক গুচ্ছগ্রামের আশপাশেই রয়েছে কৃষি জমি, চা বাগান। কাছেই বয়ে গেছে নদী। রয়েছে পুকুর, যোগাযোগ ব্যবস্থা।  দৃষ্টিনন্দন এবং পরিবেশগত ভাবেই এসব গুচ্ছ গ্রামে বাস করা মানুষের কর্মসংস্থানও হবে খুব সহজে। পর্যটকরাও আকৃষ্ট হবেন। এমন বিবেচনা মাথায় রেখেই তেঁতুলিয়া উপজেলা প্রশাসন গুচ্ছ গ্রামগুলো নির্মাণ করছেন।

উপজেলা চেয়ারম্যান কাজী মাহমুদুর রহমান ডাবলু জানান,পরিবেশবান্ধব গুচ্ছ গ্রাম গড়ে তোলা হয়েছে। এই কর্মসূচিতে সরকারের অনুকূলে গৃহহীনদের জন্য মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মালেক জমি দান করার মাধ্যমে এক অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন।

তেঁতুলিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার সোহাগ চন্দ্র সাহা বলেন, ১৪২টি গৃহহীণ পরিবারের জন্য বাড়ি নির্মাণের কাজ দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলেছে। এসব বাড়ি নির্মাণে তেঁতুলিয়ার পর্যটন  ও পরিবেশকে মাথায় রেখে পরিকল্পনা করে কাজ চলছে। আগামী ২৩ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রীর উদ্বোধনের মাধ্যমে গৃহহীনদের হাতে এসব বাড়ি তুলে দেয়া হবে।

বিডি প্রতিদিন/এমআই


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর