শিরোনাম
প্রকাশ : ৫ আগস্ট, ২০২১ ১৭:৩৮
প্রিন্ট করুন printer

শাজাহানপুরে বেড়েছে আর্সেনিকের ঝুঁকি

নিজস্ব প্রতিবেদক, বগুড়া:

শাজাহানপুরে বেড়েছে আর্সেনিকের ঝুঁকি
Google News

বগুড়ার শাজাহানপুর উপজেলায় আবারও আর্সেনিকের ঝুঁকি বেড়েছে। শাজাহানপুর উপজেলার আমরুল ইউনিয়নের ৪ হাজার পরিবারের সদস্যরা এই ঝুঁকির মধ্যে পড়েছে। সম্প্রতি একই গ্রামে আর্সেনিকযুক্ত ক্ষতিকর পানির প্রভাবে ১৫ জনের শরীরে আর্সেনিকের উপসর্গ দেখা দিয়েছে।

বগুড়ার শাজাহানপুর উপজেলা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের তথ্য মতে, উপজেলার মধ্যে আমরুল ইউনিয়নে ক্ষতিকর মাত্রায় আর্সেনিক শনাক্ত করা হয়েছে। ইউনিয়নে ১৯টি গ্রামের মধ্যে ১৩ টিতে আর্সেনিকের মাত্রা সবচেয়ে বেশি।

আমরুলে মারাত্মক আর্সেনিক প্রবল এলাকা হওয়ায় জাইকা এবং বাংলাদেশ সরকারের যৌথ অর্থায়নে অর্ধকোটি টাকা ব্যয়ে ১০টি গভীর নলকূপ (সাব-মারসিবল পাম্প) মাধ্যমে ৪০০ পরিবারে মাঝে আর্সেনিক মুক্ত নিরাপদ পানি সরবরাহ করা হয়। আর্সেনিক মুক্ত নিরাপদ পানি সরবরাহ জন্য জাইকা অর্থায়নে নগর আমরুল পাড়া হুদার মোড় স্থাপন করা গভীর নলকূপ থেকে সরবরাহ করা ৬টি টেপে পানি পয়েন্টে দুর্গন্ধ ও ময়লা আসায় এখন নিরাপদ খাবার পানির অভাবে ভুগছেন বলে অভিযোগ করেন বসবাসরত ২০ টি ভুক্তভোগী পরিবার।

বগুড়ার শাজাহানপুর উপজেলা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলী কর্মকর্তা রিপা পারভীন জানান, গভীর নলকূপগুলো আমাদের দপ্তর থেকে নির্মিত না জাইকা ও এলজিইডি মাধ্যমে বাস্তবায়ন হয়েছে। আমরা শুধু কারিগরি সহায়তা দিয়েছি।

নগর আমরুল পাড়া গ্রামের আব্দুল করিম জানান, গ্রামে সরকারি ভাবে একটি টিউবওয়েল দিয়েছিল। সেটার পানি খেয়ে আমরা অনেকটা সুস্থ আছি। তারপরও অনেকেই শরীরে আর্সেনিকের উপসর্গ দেখা দিচ্ছে। আমরা সরকারের কাছে এটার সমাধান চাই। পুটু মোল্লা জানান, আর্সেনিক যুক্ত পানি খাওয়ার ফলে তার হাতে ও বুকে ফুসকা দাগ পড়েছে। স্ত্রী রাশেদা গায়ের চামড়া হাত পায়ে ফুসকার মত গুটি হয়ে যাচ্ছে। ভাল হচ্ছে না।
কুলসুম বেগম নামের এক গৃহবধূ জানান, খাবার পানিতে আর্সেনিকের ফলে শরীর ভিতর জালা পোড়া চুলকানি হয়। হাতের তালু ও পায়ের তলায় দাগ হচ্ছে কোন ওষুধ ভালো হচ্ছে না।

উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. মোতারব হোসেন বলছেন, দীর্ঘদিন আর্সেনিকযুক্ত পানি পান করলে লিভার সিরোসিস, কিডনির সমস্যা ও চর্ম রোগ ছাড়াও হয়ে মানুষের মৃত্যু হতে পারে। আর্সেনিক মুক্ত নিরাপদ পানি, ভিটামিন এ, ই, সি এবং পুষ্টিকর খাবার খেলে রোগ দ্রুত নিরাময় সম্ভব।

বগুড়ার শাজাহানপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান প্রভাষক সোহরাব হোসেন ছান্নু জানান, নিরাপদ পানি সরবরাহ প্রকল্পের আওতায় গ্রামীণ পাইপড সাল্পাই স্কিম মাধ্যমে উপজেলাবাসীকে বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ করা হবে। উপজেলাব্যাপী আর্সেনিক কবলিত এলাকা চিহ্নিত করে ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানান তিনি।

বিডি প্রতিদিন/ মজুমদার 

এই বিভাগের আরও খবর