শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ২৩ মে, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ২২ মে, ২০২০ ২৩:৩৩

ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষয়ক্ষতি

বাঁধ মেরামতে লুটপাট রোধ করুন

ঘূর্ণিঝড় আম্ফানের আঘাতে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল ও পশ্চিমাঞ্চলের ২৬টি জেলা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। সরকারি হিসাবে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ অন্তত ১ হাজার ১০০ কোটি টাকা। তবে ক্ষয়ক্ষতির পরিপূর্ণ হিসাব পেতে আরও এক সপ্তাহ লাগবে। ঘূর্ণিঝড় আম্ফান যে বেগে বাংলাদেশের দিকে ধাবিত হচ্ছিল, তাতে সুন্দরবনে বাধাপ্রাপ্ত না হলে এবং বাংলাদেশকে পাশ কাটিয়ে পশ্চিমবঙ্গ ও উড়িষ্যার দিকে না গেলে ভয়াবহ বিপর্যয় অনিবার্য হয়ে উঠত। বোরো ধানের সিংহভাগ আগেভাগে ঘরে ওঠায় বড় বিপর্যয় এড়ানো গেছে। সারা দেশে ১ লাখ ৭৬ হাজার হেক্টর জমির ফসল নষ্ট হয়েছে। সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয়েছে আম, লিচু, কলা, তিল, সবজি, মুগ, সয়াবিন ইত্যাদি ফসলের। আম্ফান ও জলোচ্ছ্বাসে দেশের উপকূলভাগের বেশ কিছু বাঁধ ভেঙে গেছে। ঘূর্ণিঝড় প্রতিরোধে বরাবরই সুন্দরবন মাতৃসুলভ আচরণ করে আসছে। এবারও ঘূর্ণিঝড় আম্ফান বাংলাদেশের লোকালয়ে আঘাত হানার আগেই তার প্রবল শক্তি দুর্বল করে ক্ষয়ক্ষতির মাত্রা কমিয়ে দিয়েছে সুন্দরবন। সুন্দরবন কতবার যে ঘূর্ণিঝড়, ঝড়, প্রাকৃতিক বিপর্যয় থেকে বাংলাদেশকে রক্ষা করেছে, এর কোনো পরিসংখ্যান নেই। অত্যন্ত শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় আম্ফান থেকে রক্ষায় এবারও বুক পেতে দিয়েছে বিশ্বের এই বৃহত্তম বাদাবন। সুন্দরবন দেশের উপকূলকে কালাপাহাড়ের মতো আগলে রেখেছে সব সময়। এ বনের সুন্দরী-গেওয়াসহ নানা বৃক্ষের মজবুত বেষ্টনী আর অসংখ্য নদীনালা বছরের পর বছর ধরে প্রাণী ও সম্পদ রক্ষা করে আসছে। নিজে ক্ষতবিক্ষত হলেও উপকূলের তেমন ক্ষতি হতে দেয়নি। বুধবার তীব্র বাতাস, ভারি বৃষ্টিপাত ও উঁচু জলোচ্ছ্বাস নিয়ে উপকূলজুড়ে তান্ডব চালিয়েছে ঘূর্ণিঝড় আম্ফান। সন্ধ্যা ৬টায় শুরু হয়ে সর্বোচ্চ ১১২ কিলোমিটার গতিতে আঘাত হেনেছে এ ঝড়। প্রায় ৬ ঘণ্টা তান্ডব চালিয়ে রাত ১২টার দিকে খুলনা জেলা অতিক্রম করেছে আম্ফান। সুন্দরবন দিয়ে অতিক্রম করার কারণে আম্ফানের তান্ডব কিছুটা কম হয়েছে। আম্ফানের ক্ষয়ক্ষতি পূরণে সরকারকে দ্রুত উদ্যোগ নিতে হবে। বিশেষ করে বাঁধ মেরামতে জরুরি ভিত্তিতে পদক্ষেপ নিতে হবে। আমাদের দেশে বাঁধ নির্মাণে যে অর্থ ব্যয় হয় তার অন্তত ৬০ ভাগই লুটপাটের শিকার হয়। এটি এড়াতে বাঁধ নির্মাণে সংশ্লিষ্ট এলাকার সর্বস্তরের মানুষকে যুক্ত করতে হবে। তা হলে অর্ধেক অর্থেই মজবুত বাঁধ পাবে উপকূলভাগের মানুষ। লুটপাটও বন্ধ হবে।


আপনার মন্তব্য