শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ২১ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ২০ জানুয়ারি, ২০১৯ ২৩:১০

অষ্টম শ্রেণির বাংলা প্রথমপত্র

মেহেরুন্নেসা খাতুন, সিনিয়র শিক্ষিকা

অষ্টম শ্রেণির বাংলা প্রথমপত্র

[পূর্বে প্রকাশের পর]

 

গ. উদ্দীপকে উল্লিখিত ইব্রাহীমের গুপ্তঘাতকের সঙ্গে ‘বাবুরের মহত্ত্ব’ কবিতায় বর্ণিত রাজপুত বীরের সাদৃশ্যপূর্ণ দিকটি ব্যাখ্যা কর।

উত্তর : উদ্দীপকে উল্লিখিত ইব্রাহীমের গুপ্তঘাতকের সঙ্গে ‘বাবুরের মহত্ত্ব’ কবিতায় বর্ণিত রাজপুত বীরের সাদৃশ্যপূর্ণ দিকটি হলো উভয়ে ঘাতক হিসেবে নিজেদের সত্যিকারের পরিচয় তুলে ধরেছে।

‘বাবুরের মহত্ত্ব’ কবিতার মোগল সম্রাট বাবুর ভারতবর্ষে তাঁর সাম্রাজ্য প্রতিষ্ঠা করেন। এ জন্য তাঁকে পানি পথের প্রান্তরে পরাজিত করতে হয়েছে পাঠান বাদশাহ্ ইব্রাহীম লোদি, খানুয়ার প্রান্তরে মেবার রাজ্যের অধিপতি রাজা সংগ্রাম সিংহকে এবং পাঞ্জাবের শাসক কৃতঘ্ন দৌলত খাঁ লোদিকে। কিন্তু দিল্লির মসনদে বসার পর তাঁর মনে হলো মাটির দখল বা কোনো নির্দিষ্ট ভূখন্ড জয়ই একমাত্র বিজয় নয়। তাই তিনি স্থির করলেন ভারতের যারা প্রকৃত অধিবাসী অর্থাৎ হিন্দুদের হৃদয় জয় করতে হবে। সে জন্য তিনি পর্যটকের ছদ্মবেশে দিল্লির পথে-প্রান্তরে প্রজাদের দুঃখ-কষ্ট জানার জন্য ঘুরতে লাগলেন। রাজপুতরা তাঁকে কিছুতেই মেনে নিতে পারছিল না। রাজপুত-বীর তরুণ রণবীর চৌহান বাবুরকে হত্যা করার জন্য রাজপথে ঘুরছিল। সে সময় মত্ত হাতির কবল থেকে নিজের জীবন বিপন্ন করে মেথর শিশুকে উদ্ধার-দৃশ্য দেখে সে বাবুরের  মহত্ত্বে বিস্মিত হয়, আর বাবুরের পায়ে পড়ে নিজের অপরাধ স্বীকার করে শাস্তি প্রার্থনা করে।

উদ্দীপকের গুপ্তঘাতক ও তার আশ্রয়দাতার আতিথেয়তায় মুগ্ধ হয়ে তার পুত্র ইব্রাহীমের হত্যাকারী বলে নিজের পরিচয় দিয়ে প্রাপ্য শাস্তি প্রার্থনা করে। উদ্দীপকের এই দিকটি ‘বাবুরের মহত্ত্ব’ কবিতার রাজপুত বীর চৌহানের শাস্তি প্রার্থনার সঙ্গে সাদৃশ্যপূর্ণ।

ঘ. উদ্দীপকটি ‘বাবুরের মহত্ত্ব’ কবিতার সমগ্রভাব প্রকাশে কতটুকু সক্ষম হয়েছে তা যুক্তি সহকারে আলোচনা কর।

উত্তর : উদ্দীপকটি ‘বাবুরের মহত্ত্ব’ কবিতার আংশিক ভাব প্রকাশে সক্ষম হয়েছে, যা কেবল চৌহানের অপরাধ স্বীকারোক্তির সঙ্গে সম্পর্কিত।

এ ছাড়া ‘বাবুরের মহত্ত্ব’ কবিতায় ভারতের মোগল সাম্রাজ্যের প্রতিষ্ঠাতা জহিরুদ্দিন বাবুরের আফগানিস্তানের সিংহাসন দখলের পর একে একে পানিপথ প্রান্তরে পাঠান বাদশাহ ইব্রাহীম লোদিকে পরাজিত করে দিল্লি অধিকার, মেবারের রাজা সংগ্রাম সিংহকে খানুয়ার প্রান্তরে এবং কৃতঘ্ন দৌলত খাঁ মলাদিকে পরাজিত করেন। কিন্তু দস্যুর মতো লুণ্ঠিত সম্পদ আর সিংহাসনের অধিকার পেয়ে তিনি তুষ্ট হতে পারলেন না। রাজ্য বিজয়ের পর তিনি প্রজাসাধারণের হৃদয়-জয়ে মনোযোগী হলেন আর পর্যটকের ছদ্মবেশে দিল্লির পথে-প্রান্তরে ঘুরতে লাগলেন তাদের দুঃখ-কষ্ট জানার জন্য।

আর উদ্দীপকের ইব্রাহীমের গুপ্ত ঘাতক আশ্রয়দাতার আতিথ্যে মুুগ্ধ হয়ে তার অপরাধ স্বীকার করেছে-এটুকুই কেবল বলা হয়েছে।

উপর্যুক্ত বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে তাই এ সিদ্ধান্তে উপনীত হওয়া যায় যে ‘বাবুরের মহত্ত্ব’ কবিতায় বাবুরের রাজ্য জয় ও প্রজা রঞ্জনের যে কাহিনি বর্ণিত হয়েছে, তা উদ্দীপকে নেই বলে তা আংশিক ভাব ধারণ করেছে-এ কথা নির্দ্বিধায় বলা চলে।


আপনার মন্তব্য