Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১০ জুলাই, ২০১৮ ০০:০০ টা
আপলোড : ৯ জুলাই, ২০১৮ ২৩:৪০

জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০১৬ অর্জনের প্রতিক্রিয়া

মানসম্মত কাজের অঙ্গীকার

মানসম্মত কাজের অঙ্গীকার

জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০১৬-তে আজীবন সম্মাননা পেয়েছেন যুগ্মভাবে আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন অভিনেত্রী ববিতা ও চলচ্চিত্রের মিয়াভাই খ্যাত অভিনেতা ফারুক। অন্যদিকে সেরা নায়িকা নির্বাচিত হয়েছেন যৌথভাবে নুসরাত ইমরোজ তিশা ও কুসুম শিকদার। আর নায়কের সম্মান অর্জন করেছেন চঞ্চল চৌধুরী। চলচ্চিত্রের সর্বোচ্চ এই রাষ্ট্রীয় সম্মান লাভে তাদের অনুভূতির কথা তুলে ধরেছেন— আলাউদ্দীন মাজিদ

   

ববিতা

জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে আজীবন সম্মাননা পেলেন। অনুভূতি কেমন?

অনুভূতির কথা ভাষায় প্রকাশের মতো নয়। মনে হচ্ছে, এত বছর ধরে চলচ্চিত্রের সমৃদ্ধির জন্য যে পরিশ্রম করেছি আজ তার যথার্থ স্বীকৃতি পেলাম। চলচ্চিত্রের উন্নয়নে এখন আমার দায়িত্ব আরও বেড়ে গেল। আমাকে এই সম্মাননা জানানোর জন্য সরকারের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি।

 

তাহলে আবার অভিনয়ে ফিরছেন?

অবশ্যই, আশা করছি আমার অভিনয় করার মতো চলচ্চিত্র এবং চরিত্র তৈরি হবে এবং শিগগিরই আমি বড় পর্দায় ফিরতে পারব। তা ছাড়া নতুন করে নির্মাণ নিয়েও ভাবছি। তবে এক্ষেত্রে সিনেমা হল বৃদ্ধি ও আধুনিকায়নসহ যাবতীয় সুযোগ-সুবিধার ব্যবস্থা যদি সরকার করে দেয় তাহলে চলচ্চিত্রকে আবার আগের সম্মানে পৌঁছে দিতে পারব।

 

এই সম্মাননার জন্য আপনি কার কাছে কৃতজ্ঞ?

প্রথমেই আমার একমাত্র সন্তান অনিকের কথা বলব, তার সহযোগিতায় সহজে অভিনয় করে যেতে পেরেছি। আর যেসব নির্মাতা আমাকে ভালো কাজের সুযোগ করে দিয়েছেন তাদের ধন্যবাদ জানাচ্ছি। তাদের কারণেই আজ চলচ্চিত্র তারকা হিসেবে আমার এই পূর্ণতা।

 

সহকর্মীদের মধ্যে এই মুহূর্তে কার কথা বেশি মনে পড়ছে?

চলচ্চিত্র জগতের সবার কথাই আমার মনে পড়ছে। বিশেষ করে দেশীয় চলচ্চিত্রের প্রবাদপুরুষ প্রয়াত নায়করাজ রাজ্জাক ভাইকে আজ বেশি করে মনে পড়ছে। তার প্রয়াণে দেশীয় চলচ্চিত্রের একটি ইনস্টিটিউট হারিয়ে গেল। সরকারের কাছে আমার অনুরোধ, আমাদের চলচ্চিত্রের এই প্রবাদপুরুষকে স্মরণীয় করে রাখতে তার নামে চলচ্চিত্রের যে কোনো একটি স্থাপনার নামকরণ করেন। পাশাপাশি অসচ্ছল শিল্পীদের আবাসনসহ নানা সুযোগ-সুবিধা তৈরির সরকারের কাছে আবেদন রাখছি।

 

 

ফারুক

চলচ্চিত্রে জাতীয়ভাবে আজীবন সম্মাননা পেলেন, কেমন লাগছে?

অনেক বড় একটি সম্মান পেলাম। সারা জীবন চলচ্চিত্রে যে মেধা, শ্রম দিয়েছি, যে কষ্ট করেছি, তা আজ সার্থক হলো। আমার মনে হয় শিল্পীদের জন্য আরও কিছু করতে পারে সরকার। যেমন আমাদের ভিআইপি স্ট্যাটাস নেই, এটা থাকা উচিত। আমাকে সম্মানিত করার জন্য সরকার, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সর্বোপরি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি।

 

এই সর্বোচ্চ সম্মান প্রাপ্তিতে চলচ্চিত্রের উন্নয়নে ভূমিকা কী হবে?

সরকারের কাছে অনুরোধ, শিগগিরই সিনেমা হলগুলোতে ডিজিটাল প্রজেক্টর স্থাপন করে চলচ্চিত্র শিল্পে প্রাণ ফিরিয়ে আনা, চলচ্চিত্র নির্মাণে সরকারি অনুদানের অর্থ বৃদ্ধি, বাণিজ্যিক ধারার চলচ্চিত্র নির্মাণে অনুদান প্রদান, সেন্সর বোর্ডের কার্যক্রম যুগোপযোগী করে আধুনিক চলচ্চিত্র নির্মাণের সুযোগ দিতে হবে। সব মিলিয়ে বাংলাদেশের চলচ্চিত্রকে বিশ্বে আবার প্রতিষ্ঠিত করার ভূমিকা রাখার প্রয়াস চালিয়ে যাব।

 

বর্তমান প্রজন্মের শিল্পীদের প্রতি আপনার পরামর্শ কী?

এখন মেধাসম্পন্ন অনেক নতুন শিল্পী ও নির্মাতা আসছেন। তারা যেন ভালো কাজকে অগ্রাধিকার দেন। আমি ভালো ছবি করতাম মনের ক্ষিদে মেটানোর জন্য। বিনা পারিশ্রমিকেও কাজ করেছি, যখন দেখেছি ছবিটা ভালো। টিকে থাকতে হলে সব ধরনের কাজই করতে হবে, নিজেকে চলচ্চিত্রের ইতিহাসে দৃষ্টান্ত হিসেবে রাখার জন্য ভালো কাজ করতে হবে। সবার কাছে আমার অনুরোধ তারা যেন বঙ্গবন্ধুর চোখ দিয়ে চলচ্চিত্রকে দেখার চেষ্টা করেন। তাহলেই চলচ্চিত্রকে ঘিরে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন সত্যি হবে। মহান এই ব্যক্তির স্বপ্নের চলচ্চিত্র নির্মাণ হবে। আর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চলচ্চিত্রের উন্নয়নে যেভাবে নিরলস প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন সবার দায়িত্ব হলো ভেদাভেদ ভুলে সুষ্ঠু কাজের মাধ্যমে তাকে সহযোগিতা করে বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর স্বপ্নকে সার্থক করে তোলা।

 

 

তিশা

জাতীয় সম্মান পেলেন, কেমন লাগছে?

এই অনুভূতি ভাষায় প্রকাশ করার মতো নয়। আমি কিন্তু খুব বেশি ছবিতে অভিনয় করিনি। এর কারণ হলো আমি মান দেখে কাজ করায় বিশ্বাসী। মান যাচাই করে কাজ করেছি বলেই চলচ্চিত্র ক্যারিয়ারের অল্প সময়ে এবং অল্প কাজের মাঝেও অনেক বড় একটি জাতীয় সম্মান অর্জন করতে পেরেছি। এতে নিজের  প্রতি আস্থা ও দায়িত্ব আরও বেড়ে গেল।

 

চলচ্চিত্রে অভিনয়ে আগামী পরিকল্পনা কী?

চলচ্চিত্র যেহেতু বড় গণমাধ্যম। এই মাধ্যমে  সমাজ, দেশ আর মানুষের প্রতিচ্ছবি ফুটে ওঠে আর সবাইকে সচেতন ও বিনোদিত করা যায় তাই চলচ্চিত্রে আরও বেশি করে কাজ করতে চাই। এর জন্য দরকার মানসম্মত ছবি বেশি করে নির্মাণ করা।

 

এর আগে শিশুশিল্পী হিসেবে জাতীয় পুরস্কার পেয়েছিলেন?

বিটিভির ‘নতুন কুঁড়ি’ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে আমার জাতীয় পুরস্কার অর্জনের পালা শুরু হয়। ১৯৯৫ সালেও নতুন কুঁড়িতে গানের জন্য জাতীয় পুরস্কার পেয়েছিলাম। সেবারও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাত থেকে পুরস্কার নিয়েছিলাম। এবার অভিনেত্রী হিসেবে পেয়েছি।

 

 

চঞ্চল চৌধুরী

আবারও জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার, কেমন লাগছে?

এবার নিয়ে দুবার চলচ্চিত্রের জন্য জাতীয় পুরস্কারে সেরা অভিনেতা হলাম। এর আগে ‘মনপুরা’ চলচ্চিত্রের জন্য সেরা অভিনেতার পুরস্কার পেয়েছিলাম। অবশ্যই অনেক ভালো লাগছে। বড় কথা হলো অভিনয়ের প্রতি দায়িত্বটা বেড়ে গেল। চলচ্চিত্রে আরও বেশি পরিমাণে ভালো কাজ করে দর্শক আর দেশকে সমৃদ্ধ উপহার দিতে চাই।

 

চলচ্চিত্রে কী এখন বেশি সময় দেবেন?

সেটিই তো চাই। এর জন্য প্রয়োজন বেশি করে মানসম্মত চলচ্চিত্র নির্মাণ হওয়া। বেশি করে মানসম্মত গল্পের ছবি নির্মাণ হলে শিল্পীরা ভালো কাজ করার জন্য সর্বাত্মক চেষ্টা করতে পারবে। এতে দর্শক, চলচ্চিত্র শিল্প আর দেশ উপকৃত হবে।

 

কেমন চলচ্চিত্রে অভিনয় করতে চান?

যে চলচ্চিত্রে মানুষ, দেশ আর সমাজের চিত্র থাকবে, জীবন ঘনিষ্ঠ গল্প থাকবে। যা দেখে দর্শক সব বিষয়ে সচেতন হবে এবং বিনোদন পাবে। এককথায় সুষ্ঠু এবং সুস্থধারার গল্প। যেখানে সব শ্রেণির মানুষ তার পারিপার্শ্বিকতাকে খুঁজে পাবে। প্রতিটি চরিত্রে নিজের প্রতিচ্ছবি দেখতে পাবে এবং দর্শকদের সব বিষয়ে ভাবাবে, সমাধান ও আনন্দ দেবে। এমন চলচ্চিত্র ও চরিত্র শুধু আমি নই। সবাই চায়।

 

 

কুসুম শিকদার

আবার সেরা অভিনেত্রী, ভালো লাগাটা কেমন?

এককথায় অসাধারণ। কে না চায় ভালো কাজ দিয়ে জাতীয়সহ মর্যাদাসম্পন্ন স্বীকৃতি পেতে। এর আগে ‘গহীনে শব্দ’ ছবির জন্য সেরা পুরস্কার পেয়ে মনে হয়েছিল চলচ্চিত্রে অভিনয়ে দায়িত্বটা বেড়ে গেছে। সেই দায়িত্ববোধ থেকে চেষ্টা ছিল আবারও সেরা কাজ উপহার দিতে। এবার শঙ্খচিল ছবির জন্য আবারও জাতীয় পুরস্কার পেয়ে মনে হচ্ছে চেষ্টাটা অনেকখানি সফল হলো।

 

চলচ্চিত্রে অভিনয়ের পরিমাণ কম, কেন?

যে ধরনের গল্প এবং চরিত্রে অভিনয় করলে  দর্শক এবং রাষ্ট্রের নজর কাড়বে, সে ধরনের ছবি এখন খুব কম নির্মাণ হচ্ছে। গতানুগতিক ধারার ছবিতে কাজ করে হয়তো অর্থ পাব, সম্মান পাব না। আমার কাছে সম্মানটিই মুখ্য। তাই বেছে বেছে কাজ করি বলে আমার অভিনীত ছবির সংখ্যা কম।

 

এতে কি কোনো দুঃখবোধ আছে?

অবশ্যই আছে, বেশি পরিমাণে মানসম্মত ছবি নির্মাণ হয় তাহলে দর্শক আবার আগের মতো পরিবার-পরিজন নিয়ে বেশি পরিমাণে সিনেমা হলে যাবে। এমন ছবি এখন কেন কম হচ্ছে। সবাই মিলে যদি ভালো ছবির পরিমাণ বাড়াতে পারি তাহলে কোনো দুঃখ থাকবে না।


আপনার মন্তব্য