শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ২১:১২

৮ মার্চ নারী দিবস

সময় এখন নারীর

তানিয়া তুষ্টি

সময় এখন নারীর
নতুন অঙ্গীকার, নতুন উদ্যমে কাজ করার জন্য সারা বিশ্বের নারীরা বিশেষ এই দিনটি পালন করে থাকেন। ♦ মডেল : সাবিনা স্যাবি ও সালহা খানম নাদিয়া ♦ ছবি : ফ্রাইডে আর্কাইভ

রাজনীতি, অর্থনীতি, প্রশাসন, শিক্ষা-সংস্কৃতি, গণমাধ্যম, আইনশৃঙ্খলা, ব্যাংক-বীমা, করপোরেট হাউস কিংবা অনলাইন ব্যবসা সর্বত্রই নিজেদের সরব উপস্থিতি জানান দিচ্ছেন বাংলাদেশের নারী। ধাপে ধাপে বাধা অতিক্রম করে প্রতি বছর উন্নয়ন সূচককে এগিয়ে নিচ্ছেন তারা। এককথায় আমাদের দেশের অর্থনীতিতে নারীর অবদান এখন বিশ্বের বিস্ময়।

 

নারীর স্বাধীন হওয়ার স্বপ্ন একবিংশ শতাব্দীতে অনেকটাই পূর্ণ। বর্তমানে ঘরে-বাইরে সবখানেই  বেড়েছে নারীর কর্মব্যস্ততা। আজ নারীর সঙ্গে যোগ হয়েছে দক্ষতা, কর্মমুখিতা, উৎসাহ, উদ্যোগের মতো সংজ্ঞা, সময়ের কলতানে নারীর জীবন থেকে বাদ পড়েছে পিছিয়ে থাকা আর আড়ষ্ঠতা নামক কিছু বৈশিষ্ট্য। নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে নারী আজ ঘরের বাইরে শুধু পা রাখেননি, সেই সঙ্গে রাখছেন সফলতার শিখরে পদচিহ্ন। রাজনীতি, অর্থনীতি, প্রশাসন, শিক্ষা,   সংস্কৃতি, গণমাধ্যম, আইনমৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, ব্যাংক-বীমা, করপোরেট হাউস কিংবা অনলাইন ব্যবসা সর্বত্রই নিজেদের সরব উপস্থিতি জানান দিচ্ছেন বাংলাদেশের নারী। ধাপে ধাপে বাধা অতিক্রম করে প্রতি বছর উন্নয়ন সূচককে এগিয়ে নিচ্ছেন তারা। আর তাই নারীর অগ্রগামিতা নিয়ে তৈরি হচ্ছে নানা সূচক। এককথায় দেশের অর্থনীতিতে নারীর অবদান এখন বিশ্বের বিস্ময়।

 

আজ নারী বিভিন্ন কর্মক্ষেত্রে আপন মহিমায় ভাস্বর। তাই নারী আজ ঘরের কোণে সেকালের মতো বন্দী  থেকে অন্ধ অনুকরণ ও বিশ্বাসকে আঁকড়ে না ধরে শিক্ষা তাদের অন্তর-বাহিরকে জাগরিত করেছে। তাই এ কথা আজ বলতে দ্বিধা নেই যে, শিক্ষা ছাড়া নারী সমাজের পরিবর্তন সম্ভপর ছিল না। কারণ শিক্ষা শুধু একটি জাতি গঠনের মূল স্তম্ভই নয়, বরং জাতির বিভিন্ন জনগোষ্ঠীকে জাগ্রত করে। দেশের উন্নয়ন, অগ্রগতি, সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে যায়। যুগে যুগে নারী-পুরুষের সমন্বিত প্রচেষ্টায় দেশ এগিয়ে গেছে সমৃদ্ধির পথে। আজকে আমাদের নারীর অগ্রগতি আমাদের আশান্বিত করে। একবিংশ শতাব্দীর চ্যালেঞ্জ  মোকাবিলায় শুধু পুরুষ নয়, নারীর অগ্রগতি এগিয়ে চলা দৃশ্যমান। এ পথে নারীর নানা বাধাবিপত্তি থাকলেও শিক্ষা, চাকরি, নারীর ক্ষমতায়নসহ নানা ধরনের চ্যালেঞ্জিং পেশায় থেকে দেশ-জাতির উন্নতি, অগ্রগতিতে কাজ করে যাচ্ছেন। নারীর হাতে দৃষ্টান্ত স্থাপনকারী সাফল্য আজ নিত্যদিনের খবর। কর্মজীবী নারীকে সমানতালে সামলাতে হয় ঘর, অফিস, সন্তান, স্বামী, আত্মীয়-পরিজন ও নানা সামাজিকতা। সন্তান-সংসারের সব দায়িত্ব পালন করে একজন কর্মজীবী মাকে বের হতে হয় অফিস বা কর্মক্ষেত্র।

 

তবে একজন কর্মজীবী নারীকে প্রথমেই যতœ নিতে হবে নিজের। পরিমিত এবং স্বাস্থ্যকর খাবার গ্রহণ করতে হবে। পাশাপাশি প্রয়োজন ঘড়ি ধরে বিশ্রাম।

 

কারণ কর্মস্পৃহা বাড়াতে এগুলোই আপনার অ্যানার্জি হিসেবে কাজ করবে। তাই প্রতিদিন পর্যাপ্ত ঘুমের অভ্যাস করা জরুরি। এক্ষেত্রে রাতে তাড়াতাড়ি ঘুমিয়ে পড়তে হবে। প্রতিদিন অন্তত ৭ ঘণ্টা ঘুম যেন হয়। অফিসে বসে দিনের পর দিন একটানা কাজের ফলে অনেক নারীর ওজন বেড়ে যায়। তাই প্রতিদিন একটি নির্দিষ্ট সময় হাঁটার অভ্যাস করতে পারলে ভালো। ওজন নিয়ন্ত্রণে থাকলে আপনি সুস্থ থাকবেন। প্রতিদিন কমপক্ষে ৮-১০ গ্লাস করে পানি পান করতে হবে। তবে সুস্বাস্থ্যের পাশাপাশি ত্বকও থাকবে সুন্দর। ঘুম পেলে বা কাজ করতে ইচ্ছা না করলে চা বা কফি পান করে আড়ষ্টতা কাটাতে পারেন। প্রতিদিন ব্রেন এক্সারসাইজ করা উচিত। কীভাবে করবেন ভাবছেন? আজকাল ইউটিউবে ব্রেন রিলাক্সেশনের অনেক ভিডিও পেয়ে যাবেন। সেখান থেকে দেখে টিউটোরিয়াল করতে পারেন। চিকিৎসকরা কর্মরত নারীদের প্রতিদিন ব্রেন এক্সারসাইজ করার পরামর্শ দিয়ে থাকেন। অফিসে কাজের দক্ষতার সঙ্গে সাজগোজ আর পোশাকের বিষয়টি প্রাধান্য পায়। চাকরির স্থান এবং অফিসের ধরনের ওপর নির্ভর করবে আপনি কী ধরনের পোশাক পরবেন। এসব দিক বিবেচনা করে তবেই পোশাক-আশাক সম্পর্কে সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিত।

 

নারীর ফ্যাশনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অনুষঙ্গ পোশাক। সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে পাল্টে যায় পোশাকের ধরনও। তবে কর্মজীবী নারীদের যেহেতু সময়ের অভাব, তাই তাদের পোশাক এমন হওয়া উচিত যা আরামদায়ক, কাজের পরিবেশের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ। তবে সেক্ষেত্রে শুধু পোশাকের ম্যাটেরিয়াল নয়, পুরো পোশাকটাই এমন হওয়া উচিত যা সহজে সামলানো যায়। বাঙালি কর্মজীবী নারীরা অফিস আউটফিট হিসেবে শাড়িকে বেশি পছন্দ করেন। আর করবেই না কেন! শাড়ি যে বাঙালি নারীর ঐতিহ্যের ভূষণ। শাড়ির পাশাপাশি অনেক নারী কুর্তি-কামিজে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন। কোনো কোনো ক্ষেত্রে নারীকে সম্পূর্ণ করপোরেট সাজে সেজে উঠতে হয়। যদিও বাঙালি নারীর চিরন্তন শাড়ির সৌন্দর্য এমন সব ওয়েস্ট বা মিশ্র কালচারের পোশাকে ফুটে ওঠে না। শাড়ি বা সালোয়ার-কামিজ যা-ই পরুন না  কেন, সেটা এক রঙের হলে ভালো হয়। অর্থাৎ এসব অনুষ্ঠানে প্রিন্টের কাপড় না পরাই ভালো। পোশাকের রঙের ক্ষেত্রেও সচেতন হতে হবে। উজ্জ্বল বা শকিং কোনো রঙের পোশাক না পরাই উত্তম। শাড়ি পরলে ব্লাউজের কাটের ব্যাপারে সচেতন হতে হবে। বিশেষ ক্ষেত্রে শাড়ি বা সালোয়ার-কামিজের ওপর ব্লেজার পরতে পারেন, যা স্মার্টনেস বাড়িয়ে দেয়। তবে কর্মজীবী নারীরা যেমন পোশাক পরিধান করুন না কেন পোশাক নির্বাচনের সময় মাথায় রাখবেন আপনার পোশাকটি যেন মার্জিত রুচির হয়। পোশাক থেকে সাজগোজে কখনই যেন উগ্রতা প্রকাশ না পায়।

আজকাল নারীরা দেশ-বিদেশ ভ্রমণে ভীষণ উৎসাহী। প্রাকৃতিক ও অন্যান্য নিদর্শন দেখার আগ্রহ ও প্রবণতা দিন দিন অনেক বেড়েছে এখনকার নারীদের। তাই বেড়াতে যাওয়ার আগে আপনাকে ওই জায়গার ধরন অনুযায়ী পোশাক নিয়ে যেতে হবে। সমুদ্রতীরে বেড়াতে বা পানিতে নামার সময় মেয়েদের শাড়ি বা ঢিলেঢালা পোশাক না পরাই ভালো। এক্ষেত্রে টি-শার্ট, টিউনিক, টপের সঙ্গে থ্রি-কোয়ার্টার প্যান্ট, লেগিংস পরা সুবিধাজনক হবে। পাহাড়ি এলাকায় যেতে নারীর ট্র্যাকিং স্যুট, টি-শার্ট, ট্রাউজার ইত্যাদি পরা ভালো। সঙ্গে কেডস নিতে ভুলবেন না। শীতল এলাকায় নিয়ে যেতে হবে প্রয়োজনীয় উলের বা পশমি পোশাক।

 

বিভিন্ন জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক দিবসে নারীদের বিশেষ পোশাক পরতে দেখা যায়। বিশ্ব নারী দিবস মেয়েরা বেগুনি কিংবা গোলাপি রঙের শাড়ি, কামিজ পরে উদযাপন করে থাকেন। বিজয় দিবসে লাল-সবুজ, ভাষা দিবসে সাদা-কালো, আর ভালোবাসা দিবসে লাল রঙের পোশাক তো মোটামুটি আবশ্যকই। বাংলা বর্ষবরণ বা পয়লা বৈশাখ বাঙালি জাতির ঐতিহ্যবাহী উৎসব। আগে সাদা রঙের কাপড়ের ওপর লাল রঙের বিভিন্ন ঐতিহ্যবাহী নকশা করা শাড়ি পরার প্রচলন ছিল। এখন অবশ্য নারীরা নিজেদের পছন্দমতো রঙের কামিজ বা শাড়ি ও ফুলের গয়না পরতে ভালোবাসেন। এছাড়া পয়লা ফাল্গুনে বাসন্তী রঙের শাড়িই প্রাধান্য পায়।

 

নানা ক্ষেত্রে বাংলাদেশের নারীদের ভূমিকা, অংশগ্রহণ ও গুরুত্ব বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বেড়েছে ফ্যাশন সচেতনতাও। পোশাক পরার সময় যে বিষয় বেশি গুরুত্ব পায়, তা হলো অনুষ্ঠানটি ফরমাল, না ক্যাজুয়াল। এরপর নিজের পছন্দ, চলতি ধারা বুঝে পোশাক নির্বাচন। পৃথিবীর সব জায়গায় এখন স্থান-কাল-পাত্র বুঝে পোশাক পরা হয়। আর পোশাক তো ব্যক্তিত্ব প্রকাশেরও মাধ্যম। তাই যা পরছি, তা ফ্যাশনেবল কিনা, দেখার পাশাপাশি ওই অনুষ্ঠান বা জায়গার জন্য উপযোগী কিনা, সে ব্যাপারে লক্ষ্য রাখা উচিত।


আপনার মন্তব্য