শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ২৩:২৩

বৃষ্টিতে ভিজে নষ্ট হলো বই

সাংস্কৃতিক প্রতিবেদক

বৃষ্টিতে ভিজে নষ্ট হলো বই

ঠিকমতোই চলছিল সবকিছু। পাঠকদের পদচারণে সফলতার দিকেই এগিয়ে যাচ্ছিল অমর একুশে গ্রন্থমেলা। তবে হঠাৎ মেলার ছন্দময় গতিতে বাদ সাধে বৃষ্টি। গতকাল সকালের হঠাৎ ঝোড়ো বৃষ্টিতে গ্রন্থমেলার প্রায় অর্ধশত প্যাভিলিয়ন-স্টল ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে ইউনিভার্সিটি প্রেস লিমিটেড (ইউপিএল), অন্যপ্রকাশ, অ্যার্ডন পাবলিকেশন্স, কথাপ্রকাশ, শিকড়, ত্রয়ী প্রকাশন, জাতীয় সাহিত্য প্রকাশনী,  বাসিয়া প্রকাশনী, নালন্দাসহ আরও বেশ কিছু প্রকাশনী। সোহরাওয়ার্দী উদ্যান সরেজমিন পরিদর্শনে জানা যায়, বৃষ্টিতে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ইউনিভার্সিটি প্রেস লিমিটেডের (ইউপিএল) স্টল। এই প্রকাশনীতে কর্মরত এ কে এম কামরুজ্জামান জানান, তাদের প্রকাশনা সংস্থার প্রায় তিন হাজারের বেশি বই বৃষ্টিতে ভিজে গেছে। আর এতে প্রায় ১০ লাখ টাকার লোকসান হয়েছে। দ্বিতীয় সর্বোচ্চসংখ্যক বই ভিজেছে অন্যপ্রকাশের। এই প্রকাশনীর পরিচালক সিরাজুল কবির চৌধুরী কমল জানান, তাদের প্যাভিলিয়নের দুই হাজারের বেশি বই ভিজেছে। আর প্রায় সাত থেকে আট লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। এ সময় প্রকাশনীর সামনের লেকের পাড়ে বই শুকাতে দেখা গেছে। শুধু অন্যপ্রকাশই নয়, ইউপিএল, আদর্শসহ প্রায় ক্ষতিগ্রস্ত সবগুলো স্টলের বিক্রয়কর্মীদের নিজ নিজ প্রকাশনা সংস্থার ভেজা বই  শুকাতে দেখা গেছে। কলম প্রকাশনীর ফারজানা হোসেন জানান, তাদের প্রকাশনীতে ১৫-২০টি বই ভিজেছে। উৎস প্রকাশনীর মোস্তফা সেলিম জানান, তার প্রকাশনীর তিন শর বেশি বই বৃষ্টিতে ভিজেছে। শিরীন পাবলিকেশন্সের আবু তাহের জানান, তাদের প্রকাশনীতে প্রায় ১৫, শ্রাবণ প্রকাশনী রবিন আহসান জানান তার স্টলের ২৫-৩০টি বই বৃষ্টিতে ভিজে গেছে। বাংলাদেশ জ্ঞান ও সৃজনশীল প্রকাশক সমিতির সভাপতি ফরিদ আহমদ বলেন, ‘যতটা ক্ষয়ক্ষতির আশঙ্কা করা হয়েছিল, এর চেয়ে কম হয়েছে। সকাল ও বিকাল দুই দফায় পরিদর্শন করেছি আমরা। কয়েকটি প্রকাশনীর ক্ষতি বেশি হয়েছে। প্রাকৃতিক দুর্যোগের ওপর তো কারও হাত নেই। বিমা করা আছে। সেই আওতায় নানা দিক থেকে সহযোগিতার চেষ্টা করা হবে ক্ষতিগ্রস্ত প্রকাশকদের।’

বৃষ্টিতে বিপর্যস্ত ফাল্গুনের সকাল : প্রস্তুতিহীন হঠাৎ বৃষ্টিতে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছিল ফাল্গুনের সকাল। গতকাল সাত সকালে নেমে এল ঝুম বৃষ্টি। আবহাওয়া অধিদফতর জানায়, সকাল ছয়টা থেকে আটটা পর্যন্ত তিন ঘণ্টায় রাজধানীতে ২০ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। বৃষ্টির রেশ আরও ক’দিন থাকতে পারে।

 আবহাওয়া অধিদফতরের পূর্বাভাসে জানানো হয়, ফেব্রুয়ারি মাসের দ্বিতীয়ার্ধে দেশের উত্তর ও উত্তর পশ্চিমাঞ্চলে শিলা ও বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে রাজশাহী, রংপুর, ঢাকা, ময়মনসিংহ, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় এবং রাজশাহী, খুলনা ও বরিশাল বিভাগের দুই এক জায়গায় বৃষ্টি হতে পারে। বৃষ্টি হলেও দিন ও রাতের বেলা তাপমাত্রা বাড়তে পারে।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর